১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ওয়েব সেলিব্রেটি ওকলের দুটি কথা

  • শাকিল আহমেদ

ইন্টারনেট ব্যক্তিত্ব টাইলার ওকলের কতইবা বয়স! মাত্র ২৬ বছর। অথচ তাঁর ইউটিউব চ্যানেলের গ্রাহক সংখ্যা ৭০ লাখ। সেই চ্যানেলে তিনি স্বীকারোক্তি ধাচের ক্লিপ আপলোড করেন। যেমন একটা ভিডিও জার্নাল। সম্প্রতি তিনি ‘বিনজ’ নামে একটি প্রবন্ধ গ্রন্থ ছেড়েছেন সেখানে বডি ইমেজ থেকে শুরু করে সম্পর্কগত দুঃখ-দুর্দশা, দুর্ভাগ্য ও বিপর্যয়ের মতো নানান বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছেন।

কিশোর-কিশোরীরা অনলাইনে সেসব ইমেজ দেখে তার সঙ্গে নিজেদের তুলনা করে। এ ব্যাপারে তাঁর নিজের কোন দায়িত্ববোধের কথা মনে হয় কিনা সে প্রশ্নের জবাবে টাইলর ওকলে বলেন, ইউটিউব বরাবরই আমার কাছে একটা ডায়েরির মতো। তবে আমার উদ্দশ্য বা অভিপ্রায় যা-ই থাকুক না কেন, লোকে যদি আমি কি করছি না করছি সেদিক তাকিয়ে থাকে এবং সেটাকে এমনভাবে গ্রহণ করে যেন আমি একজন রোল মডেল বা অনুকরণীয় আদর্শ তাহলে আমি প্রকৃতই তেমনটা হতে চাই বা না চাই তাতে কিছুই যায় আসে না।

টাইলার ওকলে শুধু যে ইউটিউব ব্যক্তিত্ব ও লেখক তা-ই নয়, তিনি একজন এ্যাডভোকেট ও কৌতুক রচয়িতাও। তার কর্মকা-ের বেশির ভাগই এলজিবিটি যুবকদের উদ্দেশে নিবেদিত। তাছাড়া স্বাস্থ্যসেবা, চিকিৎসা, যুবসমাজের আত্মহত্যার প্রবণতাসহ বিভিন্ন সামাজিক ইস্যুও তার ইউটিউবের ক্লিপে উঠে আসে।

মেধাবীদের নিয়ে তিনি কি করেন এ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে ওকলে বলেন, এ ক্ষেত্রে অনেক কিছু করার থাকে। কাজগুলো তখন আয়াসসাধ্য হয়। আমি খুব বেশি করেই পর্দার আড়ালে দেখিয়ে দিতে চাই যাতে মানুষ এ সম্পর্কে ভাল ধারণা লাভ করতে পারে। আমার প্রিয় সৃজনশীল ব্যক্তিদের কথা যখন ভাবি যেমন ধরুন সম্পাদনার ক্ষেত্রে কিংবা আলোকসম্পাতের ক্ষেত্রে তখন মনে হয় তারা অসাধারণ সব গল্প বলিয়ে। নিজে এক নতুন ধরনের বিনোদনের অংশ হওয়ায় আমার দুচোখ উন্মিলিত করতে ইচ্ছা হয়। তখন অন্য যেসব বিনোদন আমি আসলে পাই না সেগুলো নিয়ে সমালোচনা করার আগ্রহ কমে যায়। কেননা কোনটা ঠিক আর কোনটা বেঠিক তা বলার আমি কে? ওকলের বর্ণনাযোগ্যতা থেকেই তার প্রতি আবেদন বা আকর্ষণ সৃষ্টি হয়। নিজের ভক্তদের কাছে তার জীবন কখন বর্ণনাযোগ্যতা হারিয়ে ফেলবে বলে তিনি মনে করেন? এমন প্রশ্নের জবাবে ওকলের বক্তব্য হচ্ছে, বর্ণনাযোগ্য হবার চেষ্টা করার চাইতে নির্ভরযোগ্যতা থাকা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। নতুন করে আরও টুইটারে আসার চাইতে আমি বরং আমিই থেকে যাব। সূত্র : টাইম