১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অনলাইন গণমাধ্যম নিবন্ধনের সময় বেঁধে দিল সরকার

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ অপসাংবাদিকতা রোধে সব অনলাইন গণমাধ্যমকে নিবন্ধনের আওতায় আনতে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে সরকার। সোমবার এক তথ্যবিবরণীতে এ কথা জানানো হয়। পত্রিকার অনলাইন সংস্করণের বিষয়ে কিছু উল্লেখ না থাকলেও তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, পত্রিকাগুলোকেও তাদের অনলাইন সংস্করণের জন্য নতুন করে আবেদন করতে হবে।

তথ্য বিবরণীতে বলা হয়, দেশের অনলাইন পত্রিকার প্রকাশকদের পত্রিকা প্রকাশের ক্ষেত্রে সরকারী সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা এবং অপসাংবাদিকতা রোধের লক্ষ্যে সরকার অনলাইন পত্রিকা নিবন্ধন কার্যক্রম চালু করেছে। এ লক্ষ্যে নির্ধারিত নিবন্ধন ফর্ম ও একটি প্রত্যয়নপত্র বা হলফনামা পূরণ করে তথ্য অধিদফতরে জমা দিতে হবে। আবেদন ফর্ম এবং প্রত্যয়নপত্রের নমুনা তথ্য অধিদফতরের ওয়েবসাইটে (িি.িঢ়ৎবংংরহভড়ৎস.ঢ়ড়ৎঃধষ.মড়া.নফ) পাওয়া যাবে।

নিবন্ধনের জন্য ফর্ম ও প্রত্যয়নপত্রের নমুনা সাময়িকভাবে তথ্য অধিদফতরের প্রটোকল শাখা থেকে সংগ্রহ করা যাবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়। বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকার দাখিল করা তথ্য যাচাই করে তথ্য অধিদফতর নিবন্ধন দেবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তথ্য অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা বলেন, সরকার সব অনলাইন গণমাধ্যমকে একটি নিয়মের মধ্যে আনার উদ্যোগ নিয়েছে। সকল অনলাইন গণমাধ্যমে নির্ধারিত ফর্মেটে আবেদন করে নিবন্ধন নিতে হবে। নিবন্ধনপ্রাপ্ত অনলাইন গণমাধ্যমই কেবল এ্যাক্রিডিটেশন কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবে।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, নিবন্ধন পাওয়া কোন্ অনলাইন পত্রিকা কয়টি এ্যাক্রিডিটেশন কার্ড পাবে তা ওই পত্রিকার এ্যালেক্সা রেটিং, গুগল এ্যানালিটিক্স, নিজস্ব কনটেন্টের পরিমাণ ও সাংবাদিকের সংখ্যার ওপর ভিত্তি করে দেয়ার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

তথ্যমন্ত্রী এবং তথ্য সচিবের নির্দেশনা অনুযায়ীই তথ্য অধিদফতরকে অনলাইন পত্রিকাগুলোকে নতুন করে নিবন্ধনের আওতায় আনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

তিনি জানান, বর্তমানে ১৩৮টি অনলাইন পত্রিকাকে এ্যাক্রিডিটেশন কার্ড দেয়া হয়েছে। আর সারা দেশের প্রায় তিন হাজার গণমাধ্যম এ্যাক্রিডিটেশন কার্ড পেয়েছে। কোন অনলাইন পত্রিকাকে নিবন্ধন দেয়ার আগে পুলিশের বিশেষ বিভাগের কর্মকর্তারা ওই অনলাইন পত্রিকার অফিস পরিদর্শন করে মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন দেবে।

তবে তথ্য বিবরণীতে বিভিন্ন পত্রিকার অনলাইন ভার্সনের নতুন করে নিবন্ধনের বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তথ্য মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, পত্রিকাগুলোর অনলাইনের জন্যও নতুন করে নিবন্ধন নিতে হবে।