১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টিকফা বৈঠকে জিএসপি চাইবে বাংলাদেশ- বাণিজ্যমন্ত্রী

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে অনুষ্ঠেয় টিকফা বৈঠকের শুরুতেই বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধা ফেরত দেওয়ার বিষয়টি আলোচনায় তোলা হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

মঙ্গলবার সচিবালয়ের যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাটের সঙ্গে বৈঠকের পর একথা বলেন মন্ত্রী।

আগামী ২৩ নভেম্বর ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠেয় টিকফা বৈঠকে জ্যেষ্ঠ বাণিজ্য সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল অংশ নেবে, যাতে পররাষ্ট্র সচিব ও শ্রম সচিবও থাকবেন।

তোফায়েল বলেন, আমাদের এখান থেকে যারা যাবেন, তারা প্রথমেই জিএসপি নিয়ে প্রশ্ন তুলবেন। কারণ টিকফার সফলতা নির্ভর করে জিএসপি সুবিধা ফিরে পাওয়ার উপর। সে জন্য আমরা সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দেব জিএসপি ফিরে পাওয়ার উপর।

জিএসপি সুবিধা থেকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে খুব একটা লাভবান না হলেও এর সঙ্গে সুনাম জড়িত থাকায় এই বাংলাদেশ তা ফেরত পাওয়ার উপর জোর দিচ্ছে বলে উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী।

জিএসপি সুবিধা না থাকার পরও জুলাই-অক্টোবর সময়ে যুক্তরাষ্ট্রে এক হাজার ৯৭৬ মিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছে বাংলাদেশ।

রানা প্লাজা ধসের পর দেশের পোশাক খাত ‘কমপ্লায়েন্ট শিল্পে’ পরিণত হয়েছে দাবি করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, “মার্কিন রাষ্ট্রদূতও বেশ কিছু শিল্প প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেছেন; তিনি সন্তুষ্টও হয়েছেন।

তিনি বলেন, আমরা ধারণা জন্মেছে, এবারের টিকফা মিটিংয়ের পরে আমরা জিএসপি সুবিধা ফিরে পাব।

এবারের টিকফা বৈঠকে টিপিপি (ট্রান্সপ্যাসিফিক পার্টনারশিপ) বিষয়ে আলোচনা হবে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

টিপিপিভুক্ত ১২টি দেশের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া অন্য দেশ থেকে বাংলাদেশ শুল্কমুক্ত সুবিধা পায় জানিয়ে তোফায়েল বলেন, বাংলাদেশও যেন টিপিপিতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে সেজন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের বহু দিনের দেন-দরবারের পর ২০১৩ সালে তাদের সঙ্গে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সহযোগিতা কাঠামো চুক্তি (টিকফা) সই করে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার।

টিকফা স্বাক্ষরের পর ২০১৩ সালে বাংলাদেশের কারখানার শ্রম পরিবেশ নিয়ে অসন্তোষ থেকে বাংলাদেশি পণ্যের শুল্কমুক্ত প্রবেশ (জিএসপি) সুবিধা স্থগিত করে ওবামা প্রশাসন।

জিএসপি ফেরত পেতে তখন বাংলাদেশকে ১৬টি শর্ত বেঁধে দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। তা বাস্তবায়নে অগ্রগতির দাবি বাংলাদেশ করে এলেও এই বছরের মাঝামাঝিতে জিএসপি সুবিধা পুনরায় বিভিন্ন দেশকে দিলেও বাংলাদেশকে ধরার মধ্যে নেয়নি ওয়াশিংটন।