১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

২০১৭ নাগাদ ইউরোপে পৌঁছবে ৩০ লাখ শরণার্থী

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) দেশগুলোতে ২০১৭ সালের মধ্যে ৩০ লাখ শরণার্থী পৌঁছবে বলে ধারণা করছে ইউরোপীয় কমিশন।

এ বিপুল জনশক্তিকে কাজে লাগাতে পারলে দীর্ঘমেয়াদে ইইউ-এর অর্থনৈতিক উৎপাদন বাড়বে এবং অর্থব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটবে বলেই মনে করা হচ্ছে। শরণার্থীদের কারণে ইইউয়ের অর্থনীতিতে সামান্য হলেও এ ইতিবাচক প্রভাব পড়ার পূর্বাভাস বৃহস্পতিবার দিয়েছে ২৮-জাতির এ ব্লকটির নির্বাহী শাখা।

তাদের হিসাব মতে, এ বছর ইইউ দেশগুলোতে পৌঁছবে ১০ লাখ আশ্রয়প্রার্থী। আরও ১৫ লাখ শরণার্থী পৌঁছবে আগামী বছর অর্থাৎ, ২০১৬সালে এবং ২০১৭ সালে পৌঁছবে ৫ লাখ শরণার্থী। খবর বিবিসি/ ওয়েবসাইটের।

ইউরোপীয় কমিশন বলছে, ইউরোপে আসা মোট শরণার্থীর অর্ধেককেও আশ্রয় দেয়া গেলে এবং তাদের তিন-চতুর্থাংশ কাজ করার মতো বয়সের হলে ইইউ-এর শ্রমশক্তি এ বছর ০ দশমিক ১ শতাংশ বাড়বে। আর ২০১৬ ও ২০১৭ সাল- দু’বছরেই শ্রমশক্তি বাড়বে ০ দশমিক ৩ শতাংশ। ইইউ-এর দেশগুলোতে আশ্রয় পাওয়া শরণার্থীরা যদি সেইসব দেশের নাগরিকদের মতো একইরকম কর্মদক্ষ হয় তাহলে ২০১৬ সালে ইইউ-এর জিডিপি (মোট দেশজ উৎপাদন) বাড়বে ০ দশমিক ২১ শতাংশ এবং ২০১৭ সালে বাড়বে ০ দশমিক ২৬ শতাংশ।

তবে শরণার্থীরা ইইউ দেশগুলোর নাগরিকদের মতো একইরকম কর্মদক্ষ না হলে জিডিপি আগামী বছর কমে দাঁড়াবে ০ দশমিক ১৪ শতাংশে এবং ২০১৭ সালে এ হার দাঁড়াবে ০ দশমিক ১৮ শতাংশে।

আর জার্মানির মতো যে ইউরোপীয় দেশগুলো আশ্রয়প্রার্থীদের মূল গন্তব্য সেসব দেশে জিডিপি এ বছর খুব বেশি হলে ০ দশমিক ২ শতাংশ বাড়তে পারে।