২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রফতানি পণ্যের শুল্কায়ন হবে প্রাইভেট আইসিডিগুলোতে

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ দেশের প্রায় শতভাগ রফতানি পণ্যবাহী কন্টেনার হ্যান্ডলিং হয় প্রাইভেট আইসিডিগুলোতে। অথচ এর শুল্কায়ন হয়ে থাকে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে। এতে করে সময় এবং জনবল দুটোই বেশি প্রয়োজন হয়। বিষয়টি বিবেচনায় এখন থেকে প্রাইভেট আইসিডিতেই রফতানি পণ্যের শুল্কায়ন হবে। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের কমিশনার হোসেন আহমেদ গত সোমবার এই কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

কাস্টম সূত্রে জানানো হয়, এখন থেকে রফতানি পণ্যের শুল্কায়ন এবং কায়িক পরীক্ষা দুটোই প্রাইভেট আইসিডিতে হবে। ফলে একই কাজের জন্য দুই জায়গায় জনবল নিয়োগের প্রয়োজন আর থাকছে না। প্রাইভেট আইসিডিতে নিয়োগ করা কাস্টমস কর্মকর্তারাই শুল্কায়ন ও পরীক্ষণের কাজ করবেন। এটি একটি সময় ও জনবল সাশ্রয়ী পদক্ষেপ। এতে করে পণ্য রফতানি প্রক্রিয়া সহজতর হবে। রফতানিকারকদের দীর্ঘদিনের দাবিও ছিল এটি। কারণ দুই ধাপে কাজ হওয়ায় এক ধরনের দীর্ঘসূত্রতা ছিল পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে।

প্রাইভেট আইসিডিতে রফতানি পণ্যের শুল্কায়ন কার্যক্রম অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের অতিরিক্ত কমিশনার মোঃ আজিজুর রহমান, এছাক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ ইউনুস, উপ ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আলী, চট্টগ্রাম কাস্টমস সিএন্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েসনের সভাপতি একেএম আকতার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, বাংলাদেশ ইনল্যান্ড কন্টেনার ডিপো এ্যাসোসিয়েসনের (বিকডা) সেক্রেটারি মোঃ রুহুল আমিন সিকদার প্রমুখ। কাস্টমস কমিশনার বলেন, প্রাইভেট আইসিডিতে রফতানি পণ্যের শুল্কায়ন কাস্টম হাউসের ইতিহাসে যুগান্তকারী একটি পদক্ষেপ। দেশের বাণিজ্য ও ব্যবসায়ীদের সুবিধার্থে আমদানি রফতানি কার্যক্রম সহজীকরণের লক্ষ্যে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতায় টাইম রিলিজ নামে একটি প্রকল্প হাতে নেয়। এ প্রকল্পের অংশ হিসেবেই চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস রফতানি পণ্যের শুল্কায়ন ও কায়িক পরীক্ষা দুটোই প্রাইভেট আইসিডিতে সম্পন্ন করার উদ্যোগ গ্রহণ করে।