১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশ আজ জিতলেই জিম্বাবুইয়ে হোয়াইটওয়াশ

মিথুন আশরাফ ॥ ‘তৃতীয় ওয়ানডেকে হালকাভাবে নেয়ার কোন সুযোগ নেয়। আমরা জিততেই নামব।’Ñ বলেছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। জিতলেই জিম্বাবুইয়েকে হোয়াইটওয়াশ করে দেবে বাংলাদেশ। আজ সেই ম্যাচ। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেটি অনুষ্ঠিত হবে। দুপুর ১টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক যেখানে ম্যাচটি জিতে জিম্বাবুইয়েকে হোয়াইটওয়াশের ভাবনা করছেন, জিম্বাবুইয়ে অধিনায়ক এলটন চিগুম্বুরা সেখানে সিরিজে অন্তত একটি ম্যাচ জেতার আকাক্সক্ষা করছেন। বলেছেন, ‘আশা ছিল সিরিজে সমতা আনার। কিন্তু তা করতে পারিনি। যেহেতু আর একটি ম্যাচ বাকি আছে, সেই ম্যাচটি জিততে চাই।’ জিম্বাবুইয়ের এ আশাও কী পূরণ হবে? না কি প্রথম ও দ্বিতীয় ওয়ানডে হারের পর এবার হোয়াইটওয়াশই হবে জিম্বাবুইয়ে।

বাংলাদেশ যে এখন কতটা শক্তিশালী দল, তা ভালভাবেই বুঝে গেছে জিম্বাবুইয়ে। প্রথম ওয়ানডেতে ১২৩ রানে ৪ উইকেট হারাল বাংলাদেশ, শঙ্কা তৈরি হলো। সেখান থেকে মুশফিকুর রহীমের শতকে বাংলাদেশ ২৭৩ রানের বড় স্কোরই গড়ল। একাই ৫ উইকেট নিয়ে সাকিব আল হাসান ধসে দিলেন। ১২৮ রানেই অলআউট হয়ে গেল জিম্বাবুইয়ে। হার হলো ১৪৫ রানের বড় ব্যবধানে। জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে সবচেয়ে বড় জয় মিলল। দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও একই দশা হলো। বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ে জিম্বাবুইয়ের আশা জাগল। ১২৭ রানে ৪ উইকেট হারাল বাংলাদেশ। শেষপর্যন্ত ইমরুল কায়েসের ৭৬, নাসির হোসেনের ৪১ ও সাব্বির রহমান রুম্মনের ৩৩ রানে ২৪১ রান করল মাশরাফিবাহিনী। তখনই বোঝা হয়ে যায়, বাংলাদেশই জিততে যাচ্ছে। অবশেষে ১৮৩ রানেই গুটিয়ে যায় জিম্বাবুইয়ে। এবার ৫৮ রানের জয় মিলে বাংলাদেশের। আজ তৃতীয় ওয়ানডেতেও নিশ্চয়ই তেমন কিছুর প্রত্যাশাই করছে সবাই।

জিম্বাবুইয়ের সঙ্গে এখন খেলা হলেই বাংলাদেশ যে জিতবে তা আগে থেকেই ধরে নেয়া হয়। তা প্রমাণও করেছে বাংলাদেশ। একটা সময় ছিল, যখন বাংলাদেশ শুধুই হারত। কিন্তু এখন সেই দিন বদলে গেছে। এখন যে দলই প্রতিপক্ষ হোক, বাংলাদেশ জিতবে আশা নিয়েই নামে। এবং জিতেও।

গত বছর নবেম্বর থেকেই সেই জয়ের ধারা ভালভাবে শুরু হয়েছে। জিম্বাবুইয়েকে ৫-০ ব্যবধানে সিরিজে হারানোর পর দেশের মাটিতে পাকিস্তানকেও ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে দেয় বাংলাদেশ। এরপর ভারতকেও ২-১ ব্যবধানে হারায়। জিম্বাবুইয়ের আগে দক্ষিণ আফ্রিকাকেও ২-১ ব্যবধানে সিরিজে হারিয়ে দেয়। মাঝপথে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালেও খেলে বাংলাদেশ। নিজেদের প্রমাণ করে ফেলেছে মাশরাফিবাহিনী। এখন শুধু এগিয়ে যাওয়ার পালা। বাংলাদেশ যে এখন শক্তিশালী দল তা প্রমাণ করতে জিম্বাবুইয়েকে হোয়াইটওয়াশও করতে হবে।

বাংলাদেশ এ পর্যন্ত ৬১টি দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলে ২০টি সিরিজেই জিতে। দেশের মাটিতে ৩৫টি সিরিজ খেলে ১৬টিতেই জিতে। জিম্বাবুইয়ের বিপক্ষে ১৫টি সিরিজ খেলে নবম সিরিজ জয় নিশ্চিত করে সোমবারই। আজ যদি জিম্বাবুইয়েকে হারায় বাংলাদেশ, তাহলে ১১টি সিরিজে প্রতিপক্ষকে হোয়াইটওয়াশ করার কৃতিত্ব গড়বে। গত বছর নবেম্বরে জিম্বাবুইয়েকে হোয়াইটওয়াশ করার পর এ দুই দলের মধ্যকার আবার সিরিজ হচ্ছে। আজ জিতলে টানা দুই সিরিজে জিম্বাবুইয়েকে হোয়াইটওয়াশ করবে বাংলাদেশ।

এ ম্যাচটির আগে জিম্বাবুইয়ে ক্রিকেট দলের ক্রিকেটাররা অনুশীলনই করেননি। তবে বাংলাদেশ দলের ইমরুল কায়েস, লিটন কুমার দাস, এনামুল হক বিজয়, জুবায়ের হোসেন লিখন, মুস্তাফিজুর রহমান, কামরুল ইসলাম রাব্বি ও মুশফিকুর রহীম অনুশীলন করেন। বাংলাদেশ দল অপরিবর্তিতও থাকছে। জিম্বাবুইয়ের অনুশীলন না করা এবং বাংলাদেশ দলের অনুশীলন করার মধ্য দিয়েই বোঝা যাচ্ছে কতটা সিরিয়াস বাংলাদেশ। তৃতীয় ওয়ানডেও যে জিতে নিতে চায় তাই বোঝা যাচ্ছে। জিম্বাবুইয়েকে টানা ৮ ম্যাচে হারানোর গৌরবও যে মিলবে। আর আজ বাংলাদেশ জিতলেই হোয়াইটওয়াশ হবে জিম্বাবুইয়ে।