২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যথাসময়েই বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ ॥ সালাউদ্দিন

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ১৭ নবেম্বর বিকেল ৫টায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়ার ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচ এবং এ নিয়ে কোন সন্দেহের কোন অবকাশ নেই। ফিফার সিকিউরিটি অফিসার এটা আমাকে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন।’ কথাগুলো বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনে (বাফুফে) কাজী মোঃ সালাউদ্দিনের।

বাংলাদেশ-অস্ট্রলিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাই ম্যাচের নিরাপত্তা পরিকল্পনা জানতে ফিফার নিরাপত্তা কর্মকর্তা হল্যান্ডের ভ্যান রি উইলহেলমা মঙ্গলবার সকালে ঢাকায় আসেন। দুপুরে বাংলাদেশ সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে এক বৈঠকে মিলিত হন তিনি। এছাড়াও বাফুফে এবং ঢাকায় অবস্থানকারী ফুটবল ফেডারেশন অব অস্ট্রেলিয়ার (এফএফএ) নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের নিয়ে এক ত্রিপক্ষীয় বৈঠক করেন ভ্যান। ওই ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শেষেই উপরোক্ত মন্তব্য করেন সালাউদ্দিন।

ফুটবল রসিকরা বলেছেন, অস্ট্রেলিয়া ফুটবল দলের অবস্থা এখন হয়েছে, ‘ঠেলায় পড়লে বাঘেও ধান খায়!’ ফিফা আর আইসিসি এক নয়। ১৯৯৬ সালে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল ‘মেরুদ-হীন’ আইসিসির আদেশ অমান্য করে বিশ্বকাপের ম্যাচ খেলতে শ্রীলঙ্কায় যায়নি। এবার তাদের পদাঙ্ক অনুসরণ করার খায়েশ হয়েছিল তাদের জাতীয় ফুটবল দলেরও। বাংলাদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা অপ্রতুলÑ এই অভিযোগ তুলে তারা ফিফার কাছে আবেদন করেছিল তারা ম্যাচটি বাংলাদেশে খেলতে আসবে না, কোন নিরপেক্ষ দেশের ভেন্যুতে খেলতে চায়। কিন্তু ফিফা সাফ জানিয়ে দেয়, বাংলাদেশে কোন সমস্যা নেই। কাজেই কোন ধানাইপানাই নয়, বাংলাদেশে গিয়েই ম্যাচ খেলতে হবে। নইলে ফিফার সদস্যপদ খারিজ হয়ে যাবে অস্ট্রেলিয়ার। এই ধমকে কাজ হলেও দল আসার আগে শেষবারের মতো বাংলাদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থার খুঁত বের করার জন্য সোমবার পর্যন্ত ‘অপ্রয়োজনীয়’ তামাশা চালিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া থেকে আগত নিরাপত্তা পর্যবেক্ষক কমিটি। তারা প্র্যাকটিস ভেন্যু শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব লিমিটেড মাঠ এবং ম্যাচ ভেন্যু বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম পরিদর্শন করেন। এছাড়া অনুশীলন ভেন্যু থেকে হোটেলে যাতায়াত এবং হোটেল থেকে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে আসার রুট, রাস্তা, ওই দুটি ভেন্যুতে দলের গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা, স্টেডিয়ামের ড্রেসিংরুম, বাথরুমের অবস্থা ... এগুলোও খতিয়ে দেখে তারা।

তবে এগুলো পর্যবেক্ষণ করে তারা কোন মন্তব্য করেননি।

এর আগে রবিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে এক বৈঠকে মিলিত হন তারা। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বাফুফের উর্ধতন কর্মকর্তারাও। সভা শেষে বাংলাদেশের নিরাপত্তা নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধি দল। প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা মার্ক ফালিবার নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলাদা বৈঠকও করেন। সেখানেই মার্ক বলেন, ‘বাংলাদেশের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা সন্তোষজনক।’ অথচ পরদিন সোমবারই তারা দুই ভেন্যু পরিদর্শনের নামে তামাশা সৃষ্টি করে! সম্প্রতি নিরাপত্তার অজুহাত দেখিয়ে বাংলাদেশ সফর বাতিল করে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। তারই জের ধরে বেঁকে বসে অস্ট্রেলিয়ার ফুটবল দলও। শুধু তাই নয়, ফিফা এবং এএফসির কাছে বাংলাদেশে না খেলার জন্য আবেদনও করে তারা। কিন্তু ফিফা তাদের এ রকম প্রস্তাব নাকচ করে দেয়। ফলে যথাসময়েই অনুষ্ঠিত হচ্ছে বহুল আলোচিত এই ম্যাচটি।

উল্লেখ্য, ফিফা কর্মকর্তা ভ্যান এবং অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ পর্যন্ত সবাই ঢাকাতেই অবস্থান করবেন।