২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘খনা’ নাটকের মঞ্চায়ন আজ

সংস্কৃতি ডেস্ক ॥ ঢাকার মঞ্চে অন্যতম জনপ্রিয় নাট্যদল বটতলার তৃতীয় প্রযোজনা নাটক ‘খনা’। কয়েক বছর ধরে ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে বিভিন্ন স্থানে মঞ্চস্থ হয়ে আসছে। ইতোমধ্যে নাটকটি কাহিনী ও নাট্য আঙ্গিকের কারণে দর্শকপ্রিয়তা অর্জন করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় নাটকটির ৫২তম মঞ্চায়ন হবে আজ বৃহস্পতিবার। আজ সন্ধ্যা ৬-৩০ মিনিটে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় মঞ্চস্থ হবে। নাটকটি রচনা করেছেন সামিনা লুৎফা নিত্রা ও নির্দেশনা দিয়েছেন মোহাম্মদ আলী হায়দার।

নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন, ইমরান খান মুন্না, তৌফিক হাসান, মিজানুর রহমান, আবদুল কাদের, সামিনা লুৎফা নিত্রা, ব্রাত্য আমীন, জিয়াউল আবেদীন রাখাল, বাকিরুল ইসলাম, ইভান রিয়াজ, সেউতি শাহগুফতা, পঙ্কজ মজুমদার, লায়কা বশীর, দোলা, তাহিম, মাহফুজা পলি, সৌরভ ও কাজী রোকসানা রুমা। নাটকটির মঞ্চ ও আলোক পরিকল্পনা করেছেন আবু আউদ আশরাফী, সুর ও সঙ্গীত ব্রাত্য আমিন, শারমিন ইতি ও জিয়াউল আবেদীন রাখাল। পোশাক পরিকল্পনা তাহমিনা সুলতানা মৌ ও তৌফিক হাসান ভূঁইয়া। কোরিওগ্রাফি মোহাম্মদ রাফি ও নাসির উদ্দিন নাদিম। প্রপস হুমায়রা আখতার। পোস্টার তৌহিন হাসান।

‘খনা’ নাটকের কাহিনীতে দেখা যায় এক বিদুষী ‘খনা’ যার অন্য নাম লীলাবতী। তার গল্পটা অনেক পুরনো, কিংবদন্তির ঘেরাটোপে বন্দী। তবু যেটুকুর তল খুঁজে পাওয়া যায় তাতে বোধহয় যে তিনি এক বিদুষী জ্যোতিষী, স্বামী মিহিরও একই বৃত্তিধারী। শ্বশুর যশস্বী জ্যোতিষী বরাহ মিহির।

পুত্রজায়ার যশ, খ্যাতি ও বিদ্যার প্রভাব দর্শনে বরাহের হীনম্মন্যতা ও ঈর্ষা। শ্বশুরের নির্দেশে লীলাবতীর জিহ্বা কর্তন ও তার ‘খনা’ হয়ে ওঠার গল্প পেরিয়েছে প্রজন্মের সীমানা। খনার বচনের মাঝে টিকে থাকা শত বছরের আগের জল, মাটি, ফসল আর মানুষের গন্ধ মাখা জ্ঞান আর সত্যটুকু কি সত্যি লীলাবতীর? নাকি এ সত্য-তথ্য সবই এ ভূ-খ-ের বৃষ্টি, পলি, আর জল হাওয়ার সঙ্গে মিশে থাকা যুগান্তরের সামষ্টিক জ্ঞানের সংকলন? লীলাবতী শুধুই কি একজন নারী বলে তার পরিণতি নির্মম, নাকি তিনি নারী হয়ে মিশেছিলেন চাষাভুষোর সনে; সেই তার কাল? পুরুষতন্ত্র না শ্রেণী কাঠামো নাকি উভয় দাঁড়ায় লীলাবতীর বিপ্রতীপে? মিহির বা প্রাকৃত লোকালয় কারোর পরোয়া না করা জীবন ত্যাগী নেশার ঘোর তাকে নিয়ে যায় দিগন্তের ওপার। খনার সত্য শুধু থেকে যায় কৃষকের মুখে। তবু প্রশ্ন থাকে, খনার সত্যই কি একক সত্য? নাকি আজকে নির্ভুল যা কাল তা হতে পারে অসত্য? শুধু সত্যের পক্ষে দাঁড়ানোর যে মৃত্যুনেশা তাঁর সে নেশা কি এক রোখা জেদ? খনা নিজেই নিজেকে করেন সম্মুখীন প্রশ্নের।