২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তিন লাখ পাঁচ হাজার দু’শ’ কোটি টাকা চাইবে বাংলাদেশ

  • চার বছর পর বসছে উন্নয়ন ফোরামের বৈঠক

হামিদ-উজ-জামান মামুন ॥ উন্নয়নসহযোগীদের কাছে চাওয়া হবে ৩ লাখ ৫ হাজার ২০০ কোটি টাকার সহায়তা। আগামী পাঁচ বছরে সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নে এ অর্থের প্রয়োজন হবে। এক্ষেত্রে তারা কিভাবে এবং কোন কোন খাতে সহায়তা করতে চায় সেসব বিষয় বিস্তারিত আলোচনা হবে। চার বছর পর অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরামের বৈঠকে (বিডিএফ) এসব বিষয় তুলে ধরা হচ্ছে বলে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) সূত্রে জানা গেছে। আগামী ১৫ ও ১৬ নবেম্বর রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিডিএফ’র উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলাদেশে কর্মরত উন্নয়নসহযোগী (দাতা) দেশ ও সংস্থাগুলোর উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিরা এতে অংশ নিচ্ছেন। এ দুই দিনে সাতটি সেশনে ৭ এজেন্ডা নিয়ে আলোচনা হবে। এর মধ্যদিয়ে সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনায় দাতাদের সহযোগিতার দ্বার উম্মোচন হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা তৈরির দায়িত্বপ্রাপ্ত সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের (জিইডি) সদস্য (সিনিয়র সচিব) ড. শামসুল আলম জনকণ্ঠকে বলেন, সরাসরি অর্থ সহায়তা চাওয়া না হলেও এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে যে সম্পদের লক্ষ্য ধরা হয়েছে তা তুলে ধরা হবে এই বৈঠকে। সঠিক সময়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই বিডিএফ। কেননা কয়েকদিন আগে সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা অনুমোদন লাভ করেছে। এখন বাস্তবায়নে যাচ্ছে। ঠিক তার মধ্যেই এটি উন্নয়ন সহযোগীদের সামনে উপস্থাপন এবং আলোচনা হবে। তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পরই সম্মিলিত সেশনে এই পরিকল্পনা উপস্থাপন করা হবে। এর মাধ্যমেই আগামী পাঁচ বছরে অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রয়োজনীয় সম্পদের বিষয়টি আলোচনায় উঠে আসবে।

সূত্র জানায়, সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনাটি বাস্তবায়নে ব্যয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৩১ লাখ ৯০ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। যা এ যাবতকালের সর্বোচ্চ ব্যয়ের লক্ষ্য। মোট ব্যয়ের মধ্যে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ধরা হয়েছে ২৮ লাখ ৪৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা এবং বৈদেশিক উৎস থেকে ৩ লাখ ৫ হাজার ২০০ কোটি টাকা। আগামী ৫ বছরে মোট যে ব্যয়ের (বিনিয়োগ) লক্ষ্য ধরা হয়েছে তার মধ্যে সরকারী ব্যয় ৭ লাখ ২৫ হাজার ২০০ কোটি টাকা এবং বেসরকারী খাত (বৈদেশিকসহ) থেকে ২৪ লাখ ৬৫ হাজার ১০০ কোটি টাকা। অন্যদিকে শেষ হতে যাওয়া ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় গত পাঁচ বছরে ব্যয়ের যা লক্ষ্য ছিল তার চেয়ে আগামী পাঁচ বছরে ব্যয় হবে দ্বিগুণেরও বেশি।

ইআরডি সূত্র জানায়, বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরামের বৈঠকের প্রথম দিন উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে পর পর তিনটি সেশন অনুষ্ঠিত হবে।

সর্বশেষ ২০১০ সালের ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অনুষ্ঠিত হয় বিডিএফ বৈঠক। সেখানে সাতটি খাতে ২৫টি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল। এর জন্য সময়সীমাও নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছিল। পরবর্তীতে ওই বছরের ৭ নবেম্বর অনুষ্ঠিত হয় বিডিএফ মূল্যায়ন বৈঠক। সূত্র জানায়, ২০০২ সালে প্যারিসে বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরামের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বছরই সিদ্ধান্ত নেয়া হয় এখন থেকে প্যারিসে নয় উন্নয়ন ফোরামের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে ঢাকায়। সে হিসেবে ২০০৩ এবং ২০০৪ সালে ঢাকাতেই বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরোমের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিল।