২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই ঘন্টায়    
ADS

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক সর্বোচ্চ মাত্রায় বিরাজ করছে ॥ পঙ্কজ শরণ

কূটনৈতিক রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পর্ক সর্বোচ্চ মাত্রায় বিরাজ করছে বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ। দুই দেশ পরস্পর ঘনিষ্ঠ সহযাত্রী বলেও উল্লেখ করেন তিনি। শুক্রবার রাজধানীর গোপীবাগের রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনে তাকে দেয়া উষ্ণ বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

বিদায় অনুষ্ঠানে ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ আবেগাাপ্লুত কণ্ঠে বলেছেন, আজ আমার জন্য একটি আবেগঘন দিন। তিনি বলেন, এ দেশের মানুষ অনেক অতিথিপরায়ণ। তাদের ব্যবহারে আমি আসলেই অভিভূত-চমৎকৃত। বাংলাদেশ থেকে মধুর স্মৃতি সঙ্গে নিয়ে ফিরে যাচ্ছেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বর্তমান সম্পর্ক সর্বোচ্চ মাত্রায় বিরাজ করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, শুধু ভারত-বাংলাদেশ নয়, দক্ষিণ এশিয়ার মানুষের কল্যাণের জন্য দুই দেশ একসঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে। সব কাজে আমরা পরস্পরের ঘনিষ্ঠ সহযাত্রী। আমরা দু’দেশের মানুষ খাদ্য-কৃষ্টি-সংস্কৃতিসহ অভিন্নভাবে বসবাস করি। আমাদের চিন্তা-চেতনা সবকিছুই এক। এ সময় পঙ্কজ শরণ জানান, স্বামী বিবেকানন্দ বিশ্বে মানবতার জন্য যে বাণী দিয়ে গেছেন তার সেই বাণী অক্ষরে অক্ষরে মেনে কাজ করে যাচ্ছেন রামকৃষ্ণ মিশন ও মঠের স্বামীরা।

তিনি বলেন, সমাজে অন্যায়, অত্যাচার, অবিচার ও জাতিভেদ দূর করতে একনিষ্ঠভাবে কাজ করে গেছেন স্বামী বিবেকানন্দ। তিনি আমাদের দেখিয়ে দিয়ে গেছেন কিভাবে লোভ-লালসাহীন, সুন্দর ও সৎভাবে জীবনযাপন করা যায়।

অনুষ্ঠানে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার বলেন, ভারত আমাদের মহান বন্ধু। আমাদের স্বাধীনতাযুদ্ধে ভারত সর্বাত্মক সহযোগিতা দিয়েছে। আমাদের গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রায় ভারত অকুণ্ঠ সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, দু’দেশের সম্পর্ক সর্বোচ্চ মাত্রায় নিয়ে যেতে বিদায়ী হাইকমিশনার যথেষ্ট কাজ করেছেন, যা বাংলাদেশের মানুষ কখনও ভুলবে না।

সংসদ সদস্য পঙ্কজ দেবনাথ বলেন, ভারত আমাদের দুঃসময়ের বন্ধু। আমাদের ইতিবাচক সব কাজে আমরা সব সময় ভারতকে কাছে পেয়েছি। এ সময় পঙ্কজ শরণকে বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের অগ্রযাত্রায় তার ভূমিকা অবিস্মরণীয়। তাই তাকে ভোলা যাবে না।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রামকৃষ্ণ মিশনের সভাপতি বিচারপতি (অব) গৌড় গোপাল সাহা। এতে আরও বক্তব্য রাখেনÑ স্বামী ধ্রুবেশানন্দ, স্বামী স্বরূপানন্দ, স্বামী আমিয়ানন্দজী মহারাজ, স্বামী গুরুসেবানন্দজী মহারাজ, স্বামী মৃদুল মহারাজ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেনÑ ভারতীয় হাইকমিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি (পলিটিক্যাল এ্যান্ড ইনফরমেশন) রাজেশ উইকি, ফার্স্ট সেক্রেটারি (ইন্দিরা গান্ধী কালচারাল সেন্টারের পরিচালক) জয়শ্রী কু-ু, অধ্যাপক নিমচন্দ্র ভৌমিক প্রমুখ।