২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিটি ক্ষুদ্র উদ্যোগ পুরষ্কার-২০১৫’র কার্যক্রম শুরু

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সিটি ব্যাংক এনএ ও সাজেদা ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে ‘সিটি ক্ষুদ্র উদ্যোগ পুরষ্কার’ ২০১৫-র অনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরুর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এ বছর পাঁচটি বিভাগে এ পুরষ্কার দেওয়া হবে। যাচাই-বাছাই শেষে আগামী বছরের মে মাসের শেষ দিকে পুরষ্কার তুলে দেওয়া সম্ভব হবে বলে প্রত্যাশা সংশ্লিষ্টদের।

শনিবার সকালে রাজধানীর ডেইলি স্টার কনফারেন্স হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে পুরষ্কার প্রদানের তথ্য জানিয়ে এ প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হয়।

উদ্যোক্তা উন্নয়ন, কর্মসংস্থান, দারিদ্র বিমোচনসহ সামগ্রিক উন্নয়নে অবাদান রাখার জন্য দীর্ঘ ১০ বছর ধরে সিটি ফাউন্ডেশন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ও ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থাগুলোকে এ পুরষ্কার প্রদান করে আসছে। আর ১১তম পুরষ্কার প্রদানে নতুন করে যুক্ত হয় সাজেদা ফাউন্ডেশন।

পুরষ্কার প্রদানের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ও অর্থনীতিবিদ ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ। তিনি জানান, উদ্যোক্তা উন্নয়ন ও ক্ষুদ্র উদ্যোগকে অনুপ্রেরণা যোগাতে ২০০৪ সালে সিটি ফাইন্ডেশন ও গ্লোবাল স্টুডেন্টস্ এ্যালাইয়ান্স এর যৌথ উদ্যোগে ৮ টি দেশে গ্লোবাল উদ্যোক্তা পুরষ্কার দেওয়া হয়। জাতিসংঘ ক্ষুদ্রঋণ বর্ষ ২০০৫ এর আনুকূল্যে ৩০ টি দেশে পুরষ্কার কর্মসূচি বার্ধিত করে। ২০০৬ সাল থেকে সিটি ফাউন্ডেশন সিএমএ পুরষ্কারের সার্বিক দায়িত্ব নেয়। এ বছর সিটি ব্যাংক এনএ ও সাজেদা ফাউন্ডেশন যৌথভাবে সিএমএ পুরষ্কার দেবে।

বিভাগ গুলো হলো- বছরের শ্রেষ্ঠ সৃজনশীল ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থা, বছরের শ্রেষ্ঠ ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থা, বছরের শ্রেষ্ঠ কৃষি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা, বছরের শ্রেষ্ঠ মহিলা ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা, বছরের শ্রেষ্ঠ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা।

বছরের শ্রেষ্ঠ সৃজনশীল ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থা পাবে ৪ লাখ টাকা, বছরের শ্রেষ্ঠ ক্ষৃদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থা পাবে ৩ লাখ টাকা, বছরের শ্রেষ্ঠ কৃষি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা পাবেন ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা, বছরের শ্রেষ্ঠ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা পাবেন ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এছাড়া বছরের শ্রেষ্ঠ নারী উদ্যোক্তা, শ্রেষ্ঠ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা, শ্রেষ্ঠ কৃষি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা বিভাগের রানারআপ বিজয়ীরা পাবেন এক লাখ টাকা করে।

ওই সংবাদ সম্মেলনে সিটি ব্যাংক এনএ ও সাজেদা ফাউন্ডেশনের উধ্বর্তন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।