২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডায়াবেটিস প্রতিরোধ নীতিমালা অনুমোদনের অপেক্ষায়

  • আলোচনায় আজাদ খান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ডায়াবেটিস প্রতিরোধে গণসচেতনতা সৃষ্টির আহ্বান জানানোর মধ্য দিয়ে শনিবার পালিত হয়েছে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। দিবসটি উপলক্ষে পালিত কর্মসূচীগুলোর মধ্যে ছিল র‌্যালি, সচেতনতামূলক পোস্টার ও লিফলেট বিতরণ, আলোচনা সভা ও বিনামূল্যে ডায়াবেটিস নির্ণয়। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, ডায়াবেটিস এমন এক রোগ, স্বাস্থ্যশিক্ষাই যার প্রধান চিকিৎসা। যথাযথ স্বাস্থ্যশিক্ষা পেলে একজন ডায়াবেটিস রোগী চিকিৎসকের ওপর নির্ভর না করে এ রোগ ভালভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন। শতকরা ৭০ ভাগ ডায়াবেটিস প্রতিরোধযোগ্য। ইচ্ছে থাকলেই তা প্রতিরোধ করা সম্ভব। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশে মহামারি আকারে ডায়াবেটিস ছড়িয়ে পড়েছে। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষে শনিবার রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে এক আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ডায়াবেটিক সমিতি। সমিতির সভাপতি এ কে আজাদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনায় প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডায়াবেটিক সমিতির সহ-সভাপতি এ আর খান, মহাসচিব মোঃ সাইফউদ্দিন প্রমুখ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বারডেমের ল্যাবরেটরি সার্ভিসেস বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক শুভাগত চৌধুরী। ডায়াবেটিক সমিতির সভাপতি এ কে আজাদ খান বলেন, স্বাস্থ্যসেবার দিক থেকে ডায়াবেটিক সমিতি পৃথিবীর সবচেয়ে বৃহৎ একটি মঞ্চ। সরকারের সহযোগিতা নিয়ে সমিতি কাজ করছে। ওয়ার্ল্ড হেলথ এ্যাসেম্বলিতে বাংলাদেশ জাতীয় একটি ডায়াবেটিস প্রতিরোধ নীতিমালা করার অঙ্গীকার করেছিল। নীতিমালাটি অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। দ্রুত অনুমোদন করা না হলে অঙ্গীকারটি কাগুজে অঙ্গীকার বলে মনে হতে পারে।

রাজধানীর ২০ শতাংশ মানুষ ডায়াবেটিস ও প্রি-ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ॥ বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষে শনিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের এ্যান্ডোক্রাইনোলজি (ডায়াবেটিস ও হরমোন) বিভাগের উদ্যোগে শোভাযাত্রা ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।