১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড় ॥ প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলা

  • অপরাধীদের বিচারে দাঁড় করাতে জাতিসংঘসহ বিশ্ব নেতৃবৃন্দের সংকল্প

জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন ও নিরাপত্তা পরিষদসহ বিশ্ব নেতৃবৃন্দ প্যারিসে সংঘটিত সন্ত্রাসী হত্যাকা-ের তীব্র নিন্দা করেছেন। নেতৃবৃন্দ ফ্রান্সের প্রতি সংহতি প্রকাশ করে অপরাধীদের খুঁজে বের করতে সহায়তা করার সংকল্প ব্যক্ত করেছেন। শুক্রবার ফরাসী রাজধানী ও এর আশপাশে সংঘটিত গুলিবর্ষণ ও আত্মঘাতী বোমা হামলায় শতাধিক লোক নিহত হয়। খবর এএফপি, ইউএন নিউজ সেন্টার ও এবিসি নিউজের।

জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন এক বিবৃতিতে ওই সব ঘৃণ্য সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা করেন। ফরাসী কর্তৃপক্ষ অপরাধীদের দ্রুত বিচারে সোপর্দ করতে সাধ্যমতো সবকিছু করবে বলে তিনি আস্থা ব্যক্ত করেন। তিনি ওই সব ঘটনায় নিহতদের পরিবারের প্রতি গভীর শোক ব্যক্ত এবং আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন। বান কি মুন তার বিবৃতিতে ফরাসী সরকার ও জনগণের পাশে থাকার আশ্বাস প্রদান করেন।

নিরাপত্তা পরিষদ এক পৃথক বিবৃতিতে এসব বর্বরোচিত ও কাপুরুষোচিত সন্ত্রাসী হামলার প্রতি তীব্র নিন্দা জানিয়ে সন্ত্রাসীদের বিচারে দাঁড় করানোর প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেয়।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা হোয়াইট হাউসে এক ভাষণে বলেন, এটি কেবল ফরাসী জনগণের ওপর নয়, সমগ্র মানবজাতির তথা আমাদের অভিন্ন সর্বজনীন মূল্যবোধের ওপরই এক হামলা। ওবামা বলেন, আমরা সন্ত্রাসীদের বিচারের আওতায় আনতে এবং যে কোন সন্ত্রাসী নেটওয়ার্ককে দমন করতে ফরাসী জনগণের সঙ্গে এবং বিশ্বের বিভিন্ন জাতির সঙ্গে কাজ করতে যথাসাধ্য চেষ্টা করব।

জার্মান চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মেরকেল ওই সব হামলায় গভীর শোক ব্যক্ত করে তার সহানুভূতি ও একাত্মতা জ্ঞাপন করেন। বার্লিনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ কথা জানায়। লন্ডনে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বলেন, আমরা সাহায্য করার জন্য যা করতে পারি তাই করব। ওই শহরে ২০০৫ সালে সরকারী পরিবহন ব্যবস্থায় একযোগে চালিত আত্মঘাতী হামলায় ৫২ ব্যক্তি নিহত এবং শত শত লোক আহত হয়েছিল।

স্পেনের প্রধানমন্ত্রী মারিয়ানো রেজয় তার ফরাসী প্রতিপক্ষকে ফোন করে একাত্মতা ব্যক্ত করেন। তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসে ম্যানুয়েল গার্সিয়া মারগালো এক জিহাদী হামলার আশঙ্কা ব্যক্ত করেন। এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, প্যারিসের বাতাক্লান মিউজিক ভেন্যুতে এক হামলাকারী আল্লাহু আকবার চিৎকার করে কনসার্টে উপস্থিত লোকজনের ওপর গুলি বর্ষণ করে। সেখানে তখন মার্কিন রক ব্যান্ড ইগলস অব ডেথ মেটাল এই কনসার্টের আয়োজন করেছিল। স্পেনের পাবলিক টেলিভিশন টিভিইতে গার্সিয়া মারাকালো বলেন, আমরা যে নজিরবিহীন চ্যালেঞ্জ, খুবই নির্মম এক চ্যালেঞ্জের মুখে রয়েছি, এসব কিছুই তাই নিশ্চিত করে। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে ২০০৪ সালে ট্রেনে সংঘটিত বোমা হামলায় ১৯১ ব্যক্তি নিহত হয়েছিল।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট তাইয়িপ এরদোগানও ফ্রান্সে চালিত হত্যাকা-ে শোক ব্যক্ত করেন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতিবিষয়ক প্রধান ফেদারিকা মোগারিনি বলেন, ইউরোপ ফ্রান্স ও ফরাসী জনগণের পাশে রয়েছে।

ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু বলেন, তার দেশ সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে অভিন্ন লড়াইয়ে ফরাসী প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদও ফ্রান্সের জনগণের পক্ষে রয়েছে। চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লেই বলেন, চীন ওই সব হামলায় গভীরভাবে শোকাহত এবং সন্ত্রাসবাদ দমনের লক্ষ্যে ফ্রান্সের সঙ্গে একাত্মতা ব্যক্ত করছে।