১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যশোরে আমনের বাম্পার ফলনেও হাসি সেই কৃষকের

সাজেদ রহমান, যশোর অফিস ॥ যশোরে মাঠে মাঠে এখন রোপা আমান ধানের সোনালি সমারোহ। দিগন্তজোড়া মাঠে ধান কাটার কাজ করছেন কৃষকরা। ইতোমধ্যে যশোরে পুরোদমে ধান কাটা শুরু হয়েছে। অতিবর্ষণের কারণে যশোরের কিছু এলাকায় রোপা আমনের ক্ষতি হলেও অধিকাংশ উপজেলায় আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। কিন্তু বাম্পার ফলন হলেও কৃষকের মুখে হাসি নেই। হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমে মাঠে সোনা ফললেও বাজারদরে চাষীরা হতাশ।

যশোরের ৮ উপজেলায় এবার রোপা আমন ধান চাষ হয়েছে ১ লাখ ২৬ হাজার ৬শ’ হেক্টর জমিতে। এতে ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫ লাখ ৬৫ হাজার ২শ’ টন।

বিভিন্ন এলাকার মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, কৃষকরা এখন ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। মাঠ থেকে বাড়ির আঙিনা পর্যন্ত কৃষাণ-কৃষাণির দম ফেলার ফুরসত নেই। ইতোমধ্যে জেলার ৫০ শতাংশ ধান মাঠ থেকে কাটা হয়ে গেছে। এখন সেই ধান মাড়াইয়ের কাজ চলছে। তবে সোনালি ধান ঘরে তোলার পর উৎপাদন খরচ বাদে কৃষকের পকেটে কিছুই থাকছে না। এ হিসাব কষার পর কৃষকের মুখে আর হাসি থাকছে না।

যশোরের চৌগাছা উপজেলার আন্দুলিয়া গ্রামের কৃষক কামাল হোসেন জানান, এবার তিনি ৬ বিঘা নিচু জমিতে আমন ধান চাষ করেছেন। বিঘাপ্রতি ১৮-১৯ মণ ফলন হয়েছে। তবে উঁচু (ডাঙ্গা) ক্ষেতে ২০ থেকে ২২ মণ পর্যন্ত ধান হয়েছে। স্থানীয় বাজারে আমন ধান এখন ৪শ’ ৭৫ থেকে সাড়ে ৫শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাউফলে ১১ চরে আমন কাটা

নিয়ে শঙ্কা

নিজস্ব সংবাদদাতা বাউফল থেকে জানান, ১১ চরে আর কয়েকদিন পর শুরু হবে আমান ধান কাটা। এ বছর ওই সব চরে ধানের বাম্পার ফলন হলেও কৃষকরা নির্বিঘেœ ধান কেটে গোলায় তুলতে পারবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় শুরু হয়েছে। গত কয়েক বছর ধরে চরাঞ্চলে লাঠিয়াল-জোতদারের আনাগোনা না থাকলেও কতিপয় প্রভাবশালী কৃষকের কষ্টার্জিত ধান কেটে নিয়ে যায়। এ বছরও আমন ধান কেটে নিতে তৎপর হয়ে উঠেছে তারা। জানা গেছে, কাছিপাড়া, ধূলিয়া , কেশবপুর, চন্দ্রদ্বীপ ও কালাইয়া ইউনিয়নের চররায়সাহেব, চরব্যারেট, চরমিয়াজান, চরদিয়ারা কচুয়া, চরকচুয়া, চরফেডারেশন, চরবাসুদেব পাশা, চরঈশান, চরমমিনপুর, চরকারখানাসহ ১১টি চরে চলতি বছর প্রায় ১০ হাজার হেক্টর জমিতে আমন চাষ করা হয়েছে।

এরমধ্যে শুধু চরব্যারেটে ১২শ’ একর বিরোধপূর্ণ জমি রয়েছে। এ বছর আমন ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় কৃষকরা আনন্দিত হলেও ধান কাটার সময় যত এগিয়ে আসছে তাদের আনন্দ ম্লান হতে শুরু করেছে। ওই সব চরের একাধিক কৃষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, এ বছরও ধান লুটপাটের তৎপরতা শুরু হয়েছে।