১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভুলে যাচ্ছি প্রকৃতির অবদান

  • মুহম্মদ র, ই, শামীম

আমাদের বেঁচে থাকার প্রধান অবলম্বন প্রকৃতি। প্রকৃতির সম্পদ আমাদের অর্থনৈতিক সামাজিক উন্নতির প্ল্যাটফরম। চারপাশের প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদের নানামুখী সেবা-সরবরাহ নিয়েই টিকে আছি আমরা। চারপাশের প্রতিবেশ হতেই আমরা আমাদের খাদ্য, পানি, জ্বালানি, ওষুধ সবই পাচ্ছি। কিন্তু আমরা অর্থনৈতিক উন্নতির নামে প্রতিবেশ ধ্বংস করছি, অবিরাম হস্তক্ষেপ করছি প্রতিবেশ ব্যবস্থায়। মনে হয় যেন, আমরা ভুলে গেছি আমাদের বাঁচার জন্য প্রকৃতির অসীম অবদান বা সেবার কথা। অথচ আমাদের অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য আমরা প্রতিনিয়ত প্রতিবেশের ওপর নির্ভরশীল। প্রতিবেশ ব্যবস্থা আমাদের জীবন-জীবিকা অর্থনীতির অন্যতম প্রধান উৎস। অর্থনীতির চালিকাশক্তি। কিন্তু এরপরও চারদিকে আজ প্রকৃতি ধ্বংস, পরিবেশ ধ্বংস, নদী দখল, নদী ভরাট, নদী দূষণ, খাল-বিল ভরাট, প্রাকৃতিক সম্পদের অপচয়, অব্যস্থাপনা, অদক্ষ ব্যবস্থাপনা, অতিরিক্ত ভোগ-বিলাসের নামে জীব বৈচিত্র্য ও এর আবাসস্থল ধ্বংস চলছেই। ফলে চারপাশের প্রতিবেশ আজ হুমকির মুখে, সঙ্কটের মুখে।

প্রতিবেশ আমাদের বেঁচে থাকার ও আর্থ সামাজিক উন্নয়নের প্রধান রসদগুলোই যোগান দিচ্ছে। এছাড়া জলবায়ু নিয়ন্ত্রণ করে বসবাস উপযোগী রাখা, বন্যা, খরা, রোগ-বালাই, বর্জ্য ও পানির গুণগতমান ঠিক রাখতে নিয়ন্ত্রকের ভূমিকা রাখে প্রতিবেশ। মাটির গঠন, গুণগতমান, সালোকসংশ্লেষণ ও পুষ্টির চক্রায়ন এসব ক্ষেত্রে রয়েছে প্রতিবেশেরই অবদান। প্রতিবেশ ব্যবস্থা স্বাস্থ্য, পানি সরবরাহ ও গুণগতমান এবং দূষিত পানিকে প্রাকৃতিকভাবে শোধনের কাজ করে থাকে। পরিবেশ দূষণ রোধ, ভূমিক্ষয় রোধেও অবদান রাখছে আমাদের প্রতিবেশ। ক্ষতিকর কার্বন সঞ্চিত করে রাখতে ও কার্বন শোষণে বনের ভূমিকা অত্যন্ত প্রয়োজন। অথচ পৃথিবীর বনভূমির অর্ধেকই এখন আর নেই। মানুষের কল্যাণের জন্য সৃষ্ট এই বন, মানব জাতিই ধ্বংস করেছে। গত শতাব্দীতেই এর ধ্বংস হয়েছে সবচেয়ে বেশি।

বিশ্বে চিকিৎসা অর্থনীতিতে প্রাকৃতিক উৎস এখনও প্রধান ভূমিকায় রয়েছে। উন্নয়নশীল দেশের শতকরা আশি ভাগ প্রাথমিক চিকিৎসা; ঔষধি গাছ-গাছরার ওপর এখনও নির্ভরশীল। শুধু তাই নয়, ব্যবস্থাপত্রের মাধ্যমে বিক্রীত পৃথিবীর চারভাগের তিনভাগ ওষুধের উপাদান গাছ-গাছরার নির্যাস হতেই প্রাপ্ত। পৃথিবীর জলাভূমির প্রতিবেশেরও রয়েছে বিশাল অবদান। জলাভূমির প্রতিবেশ ব্যবস্থা হতে বিশ্বব্যাপী আমরা যে সেবা পেয়ে থাকি, তার আর্থিক মূল্য বছরে প্রায় ৬ হাজার ৬ শ’ ১৫ ট্রিলিয়ন ইউ,এস ডলার। গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর জীবন-জীবিকা, টেকসই গ্রামীণ অর্থনীতি, নির্ভরশীল জনগোষ্ঠীর পর্যাপ্ত আয়, অর্থনেতিক ও পরিবেশগত নিরাপত্তা সবই আমাদের প্রতিবেশনির্ভর। মানব কল্যাণে এভাবেই, আমাদের হাজার কোটি বছরে ধীরে ধীরে গড়ে ওঠা প্রকৃতি বা প্রতিবেশ নানাভাবে আমাদেরই কল্যাণে নিয়োজিত। কিন্তু আমরা আজ ভুলতে বসেছি, চারপাশে আমাদের প্রকৃতি ও প্রকৃতির নানা সম্পদের সীমাহীন অবদানের কথা। হাজার বছরের চিরায়ত জলবায়ুও বদলে যাচ্ছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ বেড়ে যাচ্ছে, বেড়ে যাচ্ছে দুর্যোগের তীব্রতা ও ক্ষয়ক্ষতি। প্রাকৃতিক দুর্যোগে তাই অর্থনৈতিক ক্ষয়ক্ষতিও বেড়ে যাচ্ছে আগের চেয়ে বেশি।

সবুজ বিপ্লবের নামে কৃষি আবাদী জমির আওতা বাড়ানো হয়েছে। কীটনাশকের উৎপাদনও বেড়েছে ৮ গুণ। সেচের আওতা বেড়ে হয়েছে দ্বিগুণ। রাসায়নিক সারের (নাইট্রোজেন ও ফসফরাস) ব্যবহারও বেড়েছে বহুগুণ। এসবের ফলে ভূমি ব্যবহার ও ব্যবস্থাপনার ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি ও পদ্ধতি ব্যবহারে সারা বিশ্বেই খাদ্য উৎপাদন ব্যাপক বেড়েছে। কিন্তু আমাদের পরিবেশ, প্রতিবেশ ও আবাসস্থলের ক্ষতির প্রাথমিক কারণও এটি। মানুষের কারণে প্রতিবেশ সেবা সঙ্কুচিত হয়ে যাচ্ছে এভাবেই। তাই বিশ্বব্যাপী মানুষের জীবন-জীবিকা, অর্থনীতি হয়ে ওঠছে ঝুঁকিপূর্ণ। ফলে বৈশ্বিক অর্থনীতিকে বহুমাত্রিক নতুন নতুন সঙ্কট ও চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হচ্ছে, সামনের দিনগুলোতে যা আরও বাড়বে।