১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে সন্ত্রাস-উগ্রবাদের বিরুদ্ধে কাজ করবে- রিপন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিএনপি ভবিষ্যতে রাষ্ট্রক্ষমতায় গেলে সন্ত্রাস-উগ্রবাদের বিরুদ্ধে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সঙ্গে একযোগে কাজ করবে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির মুখপাত্র ও আন ্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন। রবিবার সন্ধ্যায় নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিপন বলেন, ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে যে লোমহর্ষক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে তার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে আমাদের দল। বিএনপি সকল ধরণের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পাশে রয়েছে। তিনি বলেন, সরকার তার ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করতে সারা দেশে গণগ্রেফতার চালাচ্ছে। বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের যেভাবে গ্রেফতার করা হচ্ছে তাতে কারাগারে মানবিক বিপর্যয় অত্যাসন্ন।

রিপন বলেন, বলেন, প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে দেশের নন এমপিও ক্যাটাগরির শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা তাদের ন্যায্য দাবী তুলে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন। সরকার বিষয়টির প্রতি মোটেই সহানুভুতিশীল বলে মনে হচ্ছে না। শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন-বাজেট বাড়ানো ছাড়া নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা সম্ভব নয়। শিক্ষামন্ত্রীর বাজেটের অজুহাত মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়। কেননা আমরা দেখছি প্রতি বছর বাজেটের শৃংখলা ভেঙ্গে সরকার অনেক কিছুই করে থাকেন।

রিপন বলেন, আমরা সরকার দলীয় এমপিদের চাপের মুখে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নতি শিকারের ঘটনায় বিস্মিত। আমরা অনতিবিলম্বে কেন্দ্রীয়ভাবে শিক্ষক নিযোগের পরীক্ষা পদ্ধতি চালু করার আহবান জানাচ্ছি এবং নন এমপিও ক্যাটাগরির শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আন্দোলনরত শিক্ষকদের ন্যায্য দাবীগুলো মেনে নেয়ার জোর দাবী জানাচ্ছি।

আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, সরকার বাজেটের পরও ভ্যাট ও কর বসিয়ে উন্নয়ন বাজেট বাড়ায়, কমায়ও। এছাড়া, ব্যাংক লুটেরাদের ঋণ মওকুফ বিলোপ করায় হাজার হাজার কোটি টাকা অদৃশ্য হয়ে যায়। ফ্লাইওভারে ২ হাজার কোটি টাকার কাজ ছয় হাজার কোটি টাকা হয়ে যায়। রুপপুর পারমানবিক প্রকল্প ২০ হাজার কোটি টাকা থেকে লাখ কোটি টাকায় দাঁড়ায়। এভাবে ভুতুড়ে ব্যয় বৃদ্ধির নামে হাজার লাখ কোটি টাকা গায়েব হয়ে যায়। অথচ জনস্বার্থের কাজে শিক্ষকদের দাবী ও পাওনা পরিশোধে মাত্র কয়েক শ কোটি টাকার সংস্থান করতে পারে না সরকার। শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন শিক্ষকদের মর্যাদা সবার উপরে কিন্তু সরকারের আচরণে সে কথা হাস্যকর মনে হয়। সরকার এভাবে শিক্ষকদের অপমান করবেন, এটা কি জাতি মেনে নিতে পারে ?