২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলা পাশে থাকার জন্য বাংলাদেশের প্রতি ফ্রান্সের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ

কূটনৈতিক রিপোর্টার ॥ প্যারিসে ভয়াবহ হামলার প্রেক্ষিতে সন্ত্রাসবাদের কাছে কখনোই মাথা নত করবে না বলে জানিয়েছে ফ্রান্স। এছাড়া প্যারিস হামলায় দেশটির পাশে থাকার জন্য বাংলাদেশকে ও ফ্রান্সের সকল বন্ধুদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে দেশটি। রবিবার ঢাকার ফ্রান্সের দূতাবাস থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এদিকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ফ্রান্সের ভয়াবহ হামলার ঘটনায় কোন বাংলাদেশী নাগরিক নিহত হয়নি। এছাড়া ফ্রান্সের প্রবাসীরা এখনও আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে।

ঢাকার ফ্রান্সের দূতাবাস থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, ফ্রান্সের হৃদয় আজ ব্যথিত কিন্তু ফ্রান্স দুর্বল নয়। আমরা সন্ত্রাসবাদের কাছে কখনোই মাথা নত করব না। এতে আরও বলা হয়, বাংলাদেশকে এবং ফ্রান্সের যত বন্ধু আছে তাদের সবাইকে আমি ধন্যবাদ জানাচ্ছি দুঃখ ভারাক্রান্ত এই দিনে আমাদের পাশে থাকার জন্য।

শুক্রবার রাতে ফ্রান্সে ভয়াবহ হামলার পর সারা পৃথিবীর মানুষই এখন ফরাসিদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছে। শনিবার পৃথিবীর বেশিরভাগ প্রধান শহরের বড় বড় স্থাপনাতেই দেখা গেছে ফ্রান্সের পতাকার আদলে আলোকসজ্জা। বাংলাদেশেও অনেক মানুষ ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন এবং নিজেদের প্রোফাইল ছবি ফ্রান্সের পতাকার রঙে রাঙিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগেই ফরাসি নেতৃবৃন্দের সঙ্গে যোগাযোগ করে সমবেদনা জানিয়েছেন। বার্তায় সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তাদের লড়াইয়ে পাশে থাকার অঙ্গীকারও করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি।

এদিকে ঢাকার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্যারিসে হামলার ঘটনায় ১২৯ জন মানুষ নিহত হলেও সেখানে কোন বাংলাদেশী নাগরিক নিহত হয়নি। এছাড়া ঢাকা থেকে প্যারিসে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। সেখানে বাংলাদেশ দূতাবাসে একটি হটলাইনও চালু করা হয়েছে।

প্যারিসে ভয়াবহ হামলার পরে ফ্রান্সের বাংলাদেশী প্রবাসীরা এখনও আতঙ্কে রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রবাসী নাগরিকরা। প্যারিসে বসবাসরত প্রবাসী সাংবাদিক ফারুখ নেওয়াজ খান সুমন রবিবার জনকণ্ঠকে বলেন, প্যারিসে হামলার ঘটনায় এখনও প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। একান্ত প্রয়োজন না হলে কেউ বাইরে বের হচ্ছেন না। তবে প্রবাসী নাগরিকরা আত্মীয়স্বজন ও শুভানুধ্যায়ীদের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে।

সূত্র জানায়, প্যারিসে প্রায় ১৬ হাজার প্রবাসী বাংলাদেশী নাগরিক বসবাস করছেন। এসব নাগরিকদের মধ্যে প্রবল আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এছাড়া পর্যটন শিল্পের ওপর নির্ভর করে যেসব প্রবাসী বাংলাদেশীরা ব্যবসা করছেন, তাদের মধ্যে দুশ্চিন্তা ছড়িয়ে পড়েছে। তারা মনে করছেন, এ হামলার পরে প্যারিসে পর্যটক কমে যেতে পারে। কেননা এ বছরের শুরুতেও প্যারিসে হামলা হয়েছিল। আর বছরের শেষ সময়েও হামলা হয়েছে। দুটি হামলায় অন্যান্য দেশের নাগরিকদের মধ্যেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। সে কারণে পর্যটন ব্যবসায় মন্দা দেখা দিতে পারে।

ফ্রান্সের প্রবাসী নাগরিকরা বলছে, সেদেশের প্রশাসনের কাছে বাংলাদেশী প্রবাসীদের সুনাম রয়েছে। সেখানে বাংলাদেশের প্রবাসী নাগরিকরা এ ধরনের সন্ত্রাসী কাজে জড়িত থাকার কোন রেকর্ডও নেই। তাই এ ঘটনার ফলে বাংলাদেশী নাগরিকদের প্রশাসন থেকে কোন ধরনের হেনস্থা হওয়ার আশঙ্কা করছেন না তারা।

এছাড়া বাংলাদেশী প্রবাসীরা মূলত প্যারিসের শহরতলীতে থাকেন। তবে যেসব স্থানে হামলা হয়েছে, সেসব স্থান মূলত প্যারিসের অভিজাত এলাকা বলে পরিচিত। এই হামলায় শুধু প্যারিস নয়, ফ্রান্সজুড়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।