২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হোয়াইটওয়াশ শচীন’স ব্লাস্টার্স

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ওয়ার্ন’স ওয়ারিয়র্সের কাছে পাত্তা পেল না শচীন’স ব্লাস্টার্স। নাটকীয়তায় ভরা তৃতীয় ও শেষ টি২০তে অসি-লিজেন্ড শেন ওয়ার্নের দল জিতল ৪ উইকেটে। এ জয়ে ৩ ম্যাচের টি২০ সিরিজে শচীন বাহিনীকে ‘হোয়াইটওয়াশ’ করল তারা। প্রথম দুই ম্যাচে যথাক্রমে ৬ উইকেটে ও ৫৭ রানে জেতে ওয়ারিয়র্স। সে তুলনায় শেষটি ছিল দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। শচীন ও সৌরভ গাঙ্গুলির জোড়া হাফ সেঞ্চুরির ওপর ভর করে ৫ উইকেটে ২১৯ রানের বড় স্কোর গড়ে ব্লাস্টার্স। জবাবে ৬ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১ বল বাকি থাকতে জয় পায় ওয়ার্ন বাহিনী! ৪৭ রান করে ম্যাচসেরা হয়েছেন ওয়ারিয়র্সের জ্যাক ক্যালিস। দুরন্ত ব্যাটিংয়ে সিরিজসেরা লঙ্কান তারকা কুমার সাঙ্গাকারা।

রাগবি ফুটবল আর বাস্কেটবলের দেশ আমেরিকাতে সব লিজেন্ড ক্রিকেটারদের নিয়ে বসে মিলনমেলা। উদ্দেশ্য বিশ্বব্যাপী ক্রিকেটকে আরও জনপ্রিয় করে তোলা। খেলা হয় নিউইয়র্ক, হিউস্টন ও লস এ্যাঞ্জেলসেÑ তিনটি ম্যাচই গ্যালারি ছিল দর্শকে ভরা। ক্রিকেট মহারথীদের সামনে থেকে দেখে নেচে-গেয়ে মাঠ মাতিয়েছেন তারা। ছিল আইপিএলের আদলে চিয়ারলিডার্সও! লস এ্যাঞ্জেলসের শেষ লড়াইয়ে টস জিতে ব্যাটিং বেছে নেন শচীন। শুরুটা হয় দুর্দান্ত। ৩.৫ ওভারেই ৫৫ রান তুলে নেন শচীন-বিরেন্দ্র শেবাগ জুটি। ১৫ বলে ২৭ রান করে কোর্টনি ওয়ালসের শিকারে পরিণত হন শেবাগ। এরপর শচীনের সঙ্গে যোগ দেন মাহেলা জয়বর্ধনে।

এদিন দৃষ্টিনন্দন সব শট খেলেন তারকাদের তারকা শচীন টেন্ডুলকর। ২৭ বলে ২ চার ও ৬টি বিশাল ছক্কার সাহায্যে ৫৬ রান করে ড্যানিয়েল ভেট্টোরির বলে উইকেটের পেছনে সাঙ্গার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। ওভার বাউন্ডারিগুলো দেখে মনে হয়েছে যেন সেই টগবগে তরুণ শচীন। ১৮ বলে ২ চার ও ৪ ছক্কায় ৪১ রান করে আউট হন মাহেলা। ২২ বলে ১ চার ও ৩ ছক্কায় ৩৩ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন কার্ল হুপার। সফল স্পিনার ভেট্টোরি নেন ৩ উইকেট। জবাবে ওয়ারিয়র্সের শুরুটা ছিল খুবই হতাশার। ৫২ রানের মধ্যে সাজঘরে ফেরেন মাইকেল ভন, এ্যান্ড্রু সাইমন্ডস ও ম্যাথু হেইডেন। এরপরই শুরু হয় কুমার সাঙ্গাকারা (২১ বলে ৪২), রিকি পন্টিং (২৫ বলে অপরাজিত ৪৩) ও জ্যাক ক্যালিসের (২৩ বলে ৪৭) ব্যাটিং ঝড়।

ক্যালিসের হাতে ম্যাচসেরার পুরস্কার তুলে দেয়ার কারণ শেষ দিকের নাটকীয়তা। শেষ ২ ওভারে প্রয়োজন ছিল ৩১ রান, শেবাগের করা শেষ ওভারে ৮; এই পর্যায়ে কাজের কাজটি করে দিয়েছেন প্রোটিয়ার লিজেন্ড। আর শেবাগের পঞ্চম বলে ছক্কা হাঁকিয়ে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন শেন ওয়ার্ন। হেরেও খুশি শচীন বলেন, ‘হার-জিত নয়, আমাদের লক্ষ্য ছিল এই অঞ্চলে ক্রিকেটকে আরও জনপ্রিয় করে তোলা। সে অর্থে সফল। প্রতিটি ম্যাচেই দর্শকে গ্যালারি ভরে গিয়েছিল। সত্যি আয়োজনটা স্মৃতি হয়ে থাকবে।’