২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিক্ষকের এ কী কাণ্ড!

নিজস্ব সংবাদদাতা, মংলা, ১৫ নবেম্বর ॥ সকলের চোখ কপালে। ছি! শিক্ষক হয়ে তিনি এমন কাজ করতে পারলেন। তাও আবার শিশু কন্যার সঙ্গে। এমন সব ধিক্কার মানুষের মুখে মুখে। মংলায় এক শিক্ষকের লালসার শিকার হয়েছে সাত বছরের এক শিশুকন্যা। আর ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর পরই তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে মংলার শহর ও গ্রাম। ভয়ে গা ঢাকা দেয় লম্পট ওই শিক্ষক। তবে বেশিক্ষণ লুকিয়ে থাকতে পারেনি। রবিবার দুপুরে পালাতে গিয়ে খুলনার রুপসা এলাকায় পুলিশের জালে ধরা পড়েন। আটক শিক্ষক হচ্ছেন মংলা কলেজের ইসলাম শিক্ষার শিক্ষক আবু ইব্রাহিম শাহ মোহাম্মদ বাকি বিল্লাহ (৪৬)। শনিবার গভীর রাতে তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের হয়। সে মংলা শহরতলীর মওলানা ভাসানী সড়কের মোহাম্মদ আলীর ছেলে। মংলা থানার সেকেন্ড অফিসার মঞ্জুর এলাহি জানান, শনিবার দুপুরে শিক্ষক বাকি বিল্লাহ মওলানা ভাসানী সড়কে তার বাড়িতে ছিল। এ সময় তার বাড়ির উঠানে খেলা করছিল প্রতিবেশীর মেয়ে স্বপ্না (ছদ্ম নাম)। স্ত্রী ঘরে নেই। বাড়িটাও ফাঁকা ফাঁকা। কুবুদ্ধি মাথায় চাপে শিক্ষকের। স্বাপ্নাকে খেলা থেকে কৌশলে তুলে ঘরে নিয়ে যান লম্পট বাকি বিল্লাহ। পরে এদিক ওদিক তাকিয়ে দরজা বন্ধ করে দেন। আদরে আদরে বিছানায় নিয়ে যান শিশুটিকে। এরপর কৌশলে স্বপ্নার পরনের ফ্রক খুলে যৌন নিপীড়ন চালায়। পরে কারও কাছে না বলার শর্তে ছেড়ে দেয় শিশুটিকে। তবে বেশিক্ষণ চেপে রাখতে পারেননি স্বপ্না। গোসল করতে এসে মায়ের চোখে ধরা পড়ে বিষয়টি। এক পর্যায়ে মায়ের জেরার মুখে গলগল করে সব বলে ফেলে স্বপ্না। তারপর ঘটে লঙ্কাকা-। খবর শুনে চারদিক থেকে লোকজন ছুটে এলে পালিয়ে যান বাকি বিল্লাহ। মংলা থানার ওসি লুৎফর রহমান জানান, ঘটনার পর ঘা ঢাকা দেয় বাকি বিল্লাহ। পরে মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে তাকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় শনিবার রাত ১২টার দিকে স্বপ্নার বাবা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

মংলা কলেজের প্রিন্সিপল গোলাম সরোয়ার জানান, এ ঘটনা নিন্দনীয়। কলেজের সুনাম নষ্ট হয়েছে। চারদিকে ছি ছি রব উঠে গেছে। এ ব্যাপারে কলেজের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান। তবে শিক্ষক বাকি বিল্লাহ তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, স্বপ্নার বয়সী আমারও দুটো মেয়ে আছে। ওদের আমি যেভাবে ভালবাসি তাকেও সে চোখে দেখি। ঘটনাটি সাজনো নাটক। আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করার চক্রান্ত চলছে।