১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সঞ্জিতের রেকর্ড ॥ জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ

অনলাইন ডেস্ক ॥ বাংলাদেশের প্রথম বোলার হিসেবে যুব ওয়ানডেতে ৬ উইকেট নিয়েছেন সঞ্জিত সাহা। তার দারুন নৈপুণ্যে সিরিজের শেষ ম্যাচও জিতে জিম্বাবুয়ে অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে হোয়াইটওয়াশ করেছে বাংলাদেশের যুবারা।

ক’দিন আগে জিম্বাবুয়ের জাতীয় দল হোয়াইওয়াশড হয়েছে বাংলাদেশের কাছে। একই ফল এবার উত্তরসূরিদের সিরিজেও। ৪ ম্যাচের সিরিজে সবকটি জিতল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯।

সোমবার শেষ ম্যাচে চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ জিতেছে ১২৫ রানে।

গত ম্যাচের মতো এ দিনও বাংলাদেশের স্পিনের জবাব জানা ছিল না জিম্বাবুয়ের তরুণদের। একাই ৬ উইকেট নিয়েছেন অফ স্পিনার সঞ্জিত সাহা, যুব ওয়ানডেতে যেটি বাংলাদেশের সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড।

টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ দ্বিতীয় ওভারেই হারায় ওপেনার জয়রাজ শেখকে (০)। দ্বিতীয় উইকেটে আরেক ওপেনার সাইফ ও তিনে নামা নাজমুল হোসেন গড়েন ৯৩ রানের জুটি।

৪০ রানে সাইফ আউট হয়ে গেলে শুরু হয় সতীর্থদের আসা-যাওয়া। পরের ৬ ব্যাটসম্যান দু অঙ্ক ছুঁলেও ২০ রান করতে পারেনি কেউই। এক প্রান্ত থেকে দলকে বলতে গেলে একাই টেনেছেন নাজমুল। শেষপর্যন্ত ১১৩ বলে ৯৬ করে আউট হন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশ অলআউট হয় ২৪৩ রানে।

আগের ম্যাচে ৮৪ রানে গুটিয়ে যাওয়া জিম্বাবুয়ের জন্য প্রায় আড়াইশ’ রান ছিল ধরাছোঁয়ার বাইরে। ৩৮ ওভারে ১১৮ রানেই গুটিয়ে যায় তারা।

১০ ওভারে ১৯ রান দিয়ে ৬ উইকেট নিয়েছেন সঞ্জিত। বাংলাদেশের হয়ে যুব ওয়ানডেতে সেরা বোলিংয়ের আগের রেকর্ড ছিল মোহাম্মদ নিহাদুজ্জামানের। ২০১৩ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জর্জটাউনে ১২ রানে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন বাঁহাতি এই স্পিনার।

দুটি উইকেট নিয়েছেন সাঈদ সরকার, একটি করে আরিফুল ইসলাম ও সালেহ আহমেদ।

ম্যাচসেরা সঞ্জিতই। চার ম্যাচে ৫১, ১০০, ১৭ ও ৪০ রান করে সিরিজের সেরা উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সাইফ হাসান।