২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অতিরিক্ত ফি ফেরতের নির্দেশ

  • এসএসসি পরীক্ষায় ফরম পূরণ

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ মহানগর ছাত্রলীগের আন্দোলনে অবশেষে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে আদায়কৃত অতিরিক্ত ফি ফিরিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে সোমবার সকালে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা করেন। সেখানে তিনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের এক সপ্তাহের মধ্যে ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীদের ফেরত দেয়ার নির্দেশ দেন।

জানা যায়, বন্দর নগরী চট্টগ্রামে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে শিক্ষা বোর্ডের নির্ধারিত ১৪৫৫টাকা ফির পরিবর্তে স্কুলভেদে ১০ হাজার থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করা হচ্ছে। এই ধরনের অভিযোগ পাওয়ায় গত ১০ নবেম্বর অতিরিক্ত ফি আদায় প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠায়। পরদিন তারা শিক্ষাবোর্ড কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচী পালন করে। একই দিন অতিরিক্ত ফি আদায় বন্ধ করতে শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানকে তারা স্মারকলিপি প্রদান করে। পরবর্তীতে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ একই দাবিতে নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন এবং প্রশাসনকে ১৮ নবেম্বরের মধ্যে তাদের দাবি মেনে নেয়ার দাবি জানায়। অন্যথায় ওই দিন থেকে কঠোর আন্দোলন শুরু করার হুঁশিয়ারি করে। অপরদিকে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের এমন অভিযোগ ওঠায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধানদের তলব করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক। সোমবার এ নিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিবাদে উখিয়ায় ভাংচুর

স্টাফ রিপোর্টার কক্সবাজার থেকে জানান, উখিয়া কলেজে অতিরিক্ত ফি ও জরিমানা আদায়ের অভিযোগে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ ও ভাংচুর করেছে। সোমবার দুপুরে এইচএসসি ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করে অধ্যক্ষের কার্যালয় ভাংচুর করেছে। এ ব্যাপারে অধ্যক্ষ বলেন, ১৫ অক্টোবর তারিখের শিক্ষার্থী টিপুর আবেদনের বিষয়ে একাডেমিক কমিটি ও গবর্নিং বডির সঙ্গে বৈঠকের মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে আশ্বস্ত করলেও শিক্ষকদের তোয়াক্কা না করে বহিরাগত ও অনিয়মিত কিছু শিক্ষার্থী অতর্কিত সন্ত্রাসী কায়দায় ভাংচুর চালায়। খবর পেয়ে উখিয়া থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বাউফল

নিজস্ব সংবাদদাতা পটুয়াখালী থেকে জানান, বাউফলে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে বিজ্ঞান বিভাগের নিয়মিত শিক্ষার্থীদের এক হাজার চার শ’ ৪৫ টাকা এবং মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের নিয়মিত শিক্ষার্থীদের এক হাজার তিন শ’ ৫৫ টাকা ফি নির্ধারণ করা হলেও এ নিয়ম মানছে না উপজেলার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পৌর সদরের বাউফল আদর্শ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, কালাইয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, নওমালা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বাজেমহল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ধানদী মডেল হাই স্কুল, ভরিপাশা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কালিশুরী এসএ ইনস্টিটিউট, চাঁদকাঠী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, নুরাইনপুর অগ্রণী বিদ্যাপীঠ, নাজিরপুর ছোটডালিমা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, রাজাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ, উপজেলার অধিকাংশ স্কুলেই পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণে কোচিং ফি, সেন্টার ফি, বিদ্যুত বিল, ব্যবহারিক পরীক্ষার ফি এসব নানা নামে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে মাথাপিছু সাড়ে তিন হাজার থেকে চার হাজার কিংবা তারও বেশি টাকা অতিরিক্ত আদায় করা হচ্ছে।

তালতলী

নিজস্ব সংবাদদাতা আমতলী, বরগুনা থেকে জানান, এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বোর্ডের নির্ধারিত টাকার চেয়ে দ্বিগুণ-তিনগুণ টাকা আদায় করা হচ্ছে। জানা গেছে, উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুসারে বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর জিয়াউল হক ৩ নবেম্বর স্বাক্ষরিত অভিভাবকদের অবহিত করে বশিবো /পনি/ এসএসসি/ ২০১৫/ ৮৪৮ (ক) নং স্মারকে বলা হয়েছে, মানবিক বিভাগে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণ ফি (ব্যবহারিক ও কেন্দ্র ফিসহ) ১৩৫৫ টাকা। এ শাখার অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের ফি ১৪৫৫ টাকা। বিজ্ঞান বিভাগে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের ফরম পূরণ ফি (ব্যবহারিক ও কেন্দ্র ফিসহ) ১৪৪৫ টাকা। এ শাখার অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের ফি ১৫৪৫ টাকা। ব্যবসায় শিক্ষা শাখার নিয়মিত শিক্ষার্থীদের ফি (ব্যবহারিক ও কেন্দ্র ফিসহ) ১৩৫৫ টাকা। এ শাখার অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের ফি ১৪৫৫ টাকা। এ টাকার বেশি না দেয়ার জন্য অভিভাবকদের অবহিত করেছেন। এ টাকার বেশি নেয়া হলে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুসারে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। কিন্তু অধিকাংশ বিদ্যালয় উচ্চ আদালতের নির্দেশনার প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে।