২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সেনাবাহিনী প্রধানের পদবী পরিবর্তন হচ্ছে

  • সংসদে বিল উত্থাপন

সংসদ রিপোর্টার ॥ আর্মি (এ্যামেন্ডমেন্ট) এ্যাক্ট ২০১৫ ও এয়ার ফোর্স (এ্যামেন্ডমেন্ট) এ্যাক্ট ২০১৫ শীর্ষক দুইটি বিল জাতীয় সংসদে উত্থাপিত হয়েছে। বিলে সেনাবাহিনী প্রধানের পদবী ‘কমান্ডার ইন চীফ’-এর পরিবর্তে ‘চীফ অব আর্মি স্টাফ’ এবং বিমানবাহিনীর প্রধানের পদবী ‘কমান্ডার ইন চীফ’-এর পরিবর্তে ‘চীফ অব এয়ার স্টাফ’ পদবী প্রতিস্থাপনের প্রস্তাব করা হয়েছে। যা আগেই অধ্যাদেশের মাধ্যমে কার্যকর করা হয়েছে।

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সোমবার জাতীয় সংসদে এ দুটিসহ মোট চারটি নতুন বিল উত্থাপন করেন সংসদ কার্যে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। পরে উত্থাপিত বিল ৪টি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। অপর বিল দুটি হচ্ছে- ক্যাডেট কলেজ (এ্যামেন্ডমেন্ট) বিল-২০১৫ ও উদ্বৃত্ত সরকারী কর্মচারী আত্তীকরণ বিল, ২০১৫।

আর্মি ও এয়ারফোর্স সংশোধন বিলে বলা হয়, সংবিধান (পঞ্চদশ সংশোধনী) আইন ২০১১ দ্বারা সংবিধানের চতুর্থ তফসিলের ১৮ অনুচ্ছেদ বিলুপ্ত হওয়ায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৭৯ সালের ৯ এপ্রিল পর্যন্ত সময়ের মধ্যে জারিকৃত অধ্যাদেশসমূহ কার্যকারিতা হারায়। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দ্য আর্মি (এ্যামেন্ডমেন্ট) অর্ডিন্যান্স ১৯৭৬ ও দ্য এয়ার ফোর্স (এ্যামেন্ডমেন্ট) অর্ডিন্যান্স ১৯৭৬ শীর্ষক অধ্যাদেশ দুটি উক্ত সময়ের মধ্যে জারি হয়েছিল।

সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী ও সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগের রায়ের প্রেক্ষিতে সৃষ্ট আইনী শূন্যতা সমাধানকল্পে ২০১৩ সালের ২১ জানুয়ারি সংসদ অধিবেশনে না থাকায় রাষ্ট্রপতি একটি অধ্যাদেশ জারি করেন। এছাড়া সংবিধানের ৯৩(২) অনুচ্ছেদের নির্দেশনাপূরণের জন্য ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৭৯ সালের ৯ এপ্রিল পর্যন্ত সময়ের মধ্যে জারিকৃত কতিপয় অধ্যাদেশ কার্যকরণ (বিশেষ বিধান) আইন ২০১৩ প্রণীত হয়।

বিল দুটির উদ্দেশ্য ও কারণ সম্বলিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অধ্যাদেশটির অধীন বিধানসমূহের কার্যকারিতা জনস্বার্থে বহাল ও অক্ষুণœ রাখার লক্ষ্যে নতুন আইন করা প্রয়োজন। এ লক্ষে বিলটি প্রণয়ন করা হয়েছে। বিল দুটি আইনে রূপান্তরিত হলে ১৯৭৬ সালের অধ্যাদেশে ব্যবহৃত সেনাবাহিনীর প্রধানের পদবী ‘কমান্ডার ইন চীফ’-এর পরিবর্তে ‘চীফ অব আর্মি স্টাফ’ এবং বিমান বাহিনীর প্রধানের পদবী ‘কমান্ডার ইন চীফ’-এর পরিবর্তে ‘চীফ অব এয়ার স্টাফ’ পদবী প্রতিস্থাপিত হবে।

এদিকে ক্যাডেট কলেজ (এ্যামেন্ডমেন্ট) এ্যাক্ট ২০১৫ বিলে ক্যাডেট কলেজ (এ্যামেন্ডমেন্ট) অর্ডিন্যান্স ১৯৬৪-এর অনুচ্ছেদ ৪-এ পরিমার্জন করে ‘কনস্টিটিউশন অব দ্য কাউন্সিল অব ক্যাডেট কলেজ’ হিসেবে নতুনভাবে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, কাউন্সিল অব ক্যাডেট কলেজের প্রধান হবেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, সাচিবিক দায়িত্ব পালন করবেন একই মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব। এছাড়া কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি, অর্থমন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (অর্থবিভাগ), শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব, বাংলাদেশ আর্মির শিক্ষাবিষয়ক উইংয়ের পরিচালক, বাংলাদেশ বিমান বাহিনী ও নৌবাহিনীর প্রধানের মনোনীত ২ জন প্রতিনিধি, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক ও সব ক্যাডেট কলেজের অধ্যক্ষ পদাধিকার বলে কাউন্সিলের সদস্য হবেন।