২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চার স্তরের নিরাপত্তা বলয়ে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ

  • ম্যাচ খেলে রাতেই বিশেষ বিমানে ফিরে যাবে অস্ট্রেলিয়া ফুটবল দল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ‘নিরাপত্তা, নিরাপত্তা’ বলে গলা শুকিয়েছে যে দলটি সেই অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ফুটবল দলকে সর্বোচ্চ নিরাপত্তাই দেয়া হবে। বাংলাদেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে হয়তো এখনও শঙ্কা আছে তাদের। তাইতো সিঙ্গাপুরেই অনুশীলন সেরে সোমবার সন্ধ্যায় ঢাকায় পা রাখে তারা। তার মানে বাংলাদেশে কোন অনুশীলন না করেই (কথা ছিল শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব মাঠে তারা অনুশীলন করবে) মঙ্গলবার বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে ‘বেঙ্গল টাইগার্স’দের মুখোমুখি হবে ‘সকারুস’ দল। ম্যাচের আগেরদিন সোমবার বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে নিরাপত্তা নিয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করেন ফিফা ও এএফসির তালিকাভুক্ত নিরাপত্তা কর্মী, ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এবং বাফুফে সদস্য ডিআইজি শেখ মোহাম্মদ মারুফ হাসান। তিনি বলেন, ‘ফিফার নিয়মানুযায়ী যে নিরাপত্তা একটি ফিফাভুক্ত দলকে দেয়া হয়, অস্ট্রেলিয়ার বেলাতেও তাই দেয়া হবে। ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে প্রীতি ম্যাচ খেলতে আসা আর্জেন্টিনা ও নাইজেরিয়া জাতীয় ফুটবল দলকে যে মানের নিরাপত্তা দেয়া হয়েছিল, সেটির সঙ্গে সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তাকে তুলনা করা যেতে পারে।’

দলটির নিরাপত্তা প্রসঙ্গে তিনি আরও জানান, অস্ট্রেলিয়ার জন্য হযরত শাহজালাল বিমানবন্দরে দুই স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। প্রথম স্তরের আওতায় বিমানবন্দরের ভেতরে থাকবে এপিবিএন আর বাইরে থাকবে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের নিরাপত্তা কর্মীরা। বিমানবন্দর থেকে হোটেলে দলটিকে চার স্তরের নিরাপত্তা কর্মীরা নিয়ে যাবে। এর আওতায় টিম বাসের সামনে ও পেছনে দুটি করে নিরাপত্তা গাড়ি থাকবে। আর টিম হোটেল পর্যন্ত পথে বিভিন্ন মোড়ে থাকবে সাদা পোশাকের নিরাপত্তা দল। একই নিরাপত্তা বজায় থাকবে টিম হোটেল থেকে ভেন্যু ও ভেন্যু থেকে দেশ ছাড়ার সময় বিমানবন্দরে যাওয়া পর্যন্ত। পাশাপাশি তাদের চলাচলের জন্য থাকবে বিশেষ ট্রাফিক ব্যবস্থা।’ ম্যাচের দিন চার স্তরের নিরাপত্তা বেষ্টনি থাকবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। শিল্প ব্যাংক ও আশপাশের উঁচু ভবনে সতর্ক অবস্থায় থাকবে সাদা পোশাকধারী পুলিশ। এছাড়া স্টেডিয়ামের প্রবেশপথ, ভেতরে, বাইরে কয়েক স্তরে সার্বিক নিরাপত্তায় মোতায়েন থাকবে আইনশৃংখলা বাহিনী। ম্যাচের সুবিধার্ধে স্টেডিয়ামে অবস্থিত সব দোকান বন্ধ থাকবে এদিন। গ্যালারিতেও থাকছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা। দর্শকদের ওপর থাকবে কড়া নজর। আগত ফুটবলপ্রেমীরা সেল ফোন ছাড়া আর কিছু নিয়ে স্টেডিয়ামে ঢুকতে পারবেন না (কোন ব্যাগ, পানির বোতল, ছুরি বা ক্যামেরা নিয়ে মাঠে প্রবেশ করা যাবে না)। ম্যাচ সাড়ে ৫টায় শুরু। তবে দর্শকদের জন্য স্টেডিয়ামের গেটগুলো খুলে দেয়া হবে দুপুর আড়ায়টায়। মাঠে সবাইকে অবশ্যই টিকেট ও সংবাদকর্মীদের বৈধ পাস নিয়ে আসতে হবে। মাঠে ঢোকার সময় নিরাপত্তাকর্মীরা বেশ সতর্কতা নিয়ে নিরাপত্তা তল্লাশি চালাবেন।

উল্লেখ্য, নিরাপত্তা নিয়ে অস্ট্রেলিয়া দল এতটাই ভীত যে, তারা খেলা শেষে হোটেলে না ফিরে বা রাত্রিযাপন না করে স্টেডিয়াম থেকে সরাসরি বিমানবন্দরে চলে যাবে। সেখান থেকে বিমানে চেপে সরাসরি নিজ দেশে।