২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রান বন্যায় ড্রর পথে পার্থ টেস্ট

  • রেকর্ডের পর রেকর্ড, ১০ রানের আক্ষেপ- তবু অনন্য উচ্চতায় টেইলর

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ এ যেন রেকর্ডের এক ম্যাচ। সেঞ্চুরির জবাবে সেঞ্চুরি, ডাবল সেঞ্চুরির জবাবে ডাবল সেঞ্চুরি- রানের বন্যায় ভেসে যাওয়া পার্থ টেস্ট হয়তো শেষ পর্যন্ত ড্রই হতে যাচ্ছে। বলা হয় টেস্ট বোলারদের খেলা। সেখানে ব্যাটসম্যানরা এভাবে রানের ফল্গুধারা বইয়ে দিলে কি-ই বা করার থাকে! ৯ উইকেটে ৫৫৯ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে অস্ট্রেলিয়া। মনে হচ্ছিল অসিদের চাপে পিষ্ট হবে কিউইরা। সেটি তো হয়ই নি, উল্টো প্রথম ইনিংসে ৬৫ রানের লিড পায় সফরকারী নিউজিল্যান্ড, অলআউট হওয়ার আগে করে ৬২৪ রান। মাত্র ১০ রানের জন্য ক্যারিয়ারের প্রথম ট্রিপল সেঞ্চুরি পাননি রস টেইলর। তবে ঠিকই ১১১ বছরের রেকর্ড ভেঙ্গে দিয়েছেন অতিথি উইলোবাজ। চতুর্থ দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ২ উইকেটে ২৫৮ রান করে সর্বোপরি ১৯৩ রানের লিড অস্ট্রেলিয়ার। স্টিভেন স্মিথ ১৩১ ও এ্যাডাম ভোগস ব্যাট করছেন ১০১ রান নিয়ে।

৬ উইকেটে ৫১০ রান নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করে নিউজিল্যান্ড। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে ২৯০ রান করেন রস টেইলর। এর মধ্য দিয়ে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সফরকারী ব্যাটসম্যান হিসেবে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডের মালিক বনে যান এই কিউই ব্যাটসম্যান। প্রায় ১১২ বছরের পুরনো রেকর্ড ভাঙ্গেন তিনি। ১৯০৩ সালে সিডনি টেস্টে নিজের অভিষেকে ২৮৭ রান করেছিলেন ইংল্যান্ডের টিপ ফস্টার। শত বছরেরও বেশি সময় ধরে সেটি অক্ষুণœ ছিল। ১০ রানের জন্য ক্যারিয়ারের প্রথম টিপল সেঞ্চুরি না পেলেও ফস্টারকে হটিয়ে বিদেশী ব্যাটসম্যান হিসেবে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটি নিজের করে নেন টেইলর। মূলত টেইলর আর উইলিয়ামসনের ব্যাটে ভর করেই প্রথম ইনিংসে লিড পায় নিউজিল্যান্ড। রান-বন্যার ম্যাচের রেকর্ডের টানা-হ্যাঁচড়া এখানেই থামেনি। ৬৫ রানে পিছিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস শুরুর পর মাত্র ৪৬ রানেই ২ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও এ্যাডাম ভোগসের জোড় সেঞ্চুরিতে বিপর্যয় কাটিয়ে ভাল লিডের পথে অসিরা। দুজনে মিলে যোগ করেন ২১২ রান। আর এই জুটি গড়ার পথেই আরেকটি রেকর্ড ভেঙ্গেছেন তারা। অবশ্য তাতে দুদলের প্রথম চার ব্যাটসম্যানেরই অবদান রয়েছে। প্রায় ৬৭ বছর আগে হেডিংলি টেস্টে দুদলের প্রথম চার ব্যাটসম্যান মিলে করেছিলেন ১১৫০ রান। এই টেস্টে সেটি ১১৯০-এ উন্নীত হল! স্মিথ-ভোগস দুজনই অপরাজিত সুতরাং রেকর্ডের এই রান সংখ্যাটা আরও বাড়ার সুযোগ থাকছে। এমন রেকর্ড গড়তে গিয়ে ব্যক্তিগত এক অর্জনেও নাম লিখিয়েছেন স্টিভেন স্মিথ। পার্থের ওয়াকা স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার জন্য সবসময়ই এক পয়মন্ত ভেন্যু। কিন্তু অসি অধিনায়কদের জন্য এতদিন সেটি অপয়া হয়েই ছিল। সর্বশেষ ১৯৮৬ সালে কোন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক হিসেবে এখানে সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন এ্যালান বোর্ডার। ২৯ বছরে বিখ্যাত সব ক্যাপ্টেন যা পারেননি, সেটিই করে দেখালেন সেনসেশনাল স্মিথ!