২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে আন্তর্জাতিক টেস্টিং ল্যাব বাংলাদেশে

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ইলেক্ট্রনিক্স ও ইলেকট্রিক্যাল পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করল আন্তর্জাতিক মানের টেস্টিং ল্যাব ‘নুসডাট ইউটিএস।’ সম্প্রতি বাংলাদেশ এ্যাক্রিডিটেশন বোর্ড-বিএবি’র কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক সনদ পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। এতদিন ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে কোন আন্তর্জাতিক মানের টেস্টিং ল্যাব ছিল না দেশে। ফলে পণ্য রফতানিতে নিতে হতো বিভিন্ন দেশের সার্টিফিকেট। এতে ভোগান্তির পাশাপাশি অনেক সময় এবং অর্থ ব্যয় হতো।

সম্প্রতি ইন্টারন্যাশনাল ল্যাবরেটরি এ্যাক্রিডিটেশন কোঅপারেশন (আইলাক) এবং এশিয়া প্যাসিফিক ল্যাবরেটরি এ্যাক্রেডিটেশন কোঅপারেশনের (এ্যাপলাক) কাছ থেকে বিএবি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করেছে। এতে করে বিএবি’র এ্যাক্রেডিটেশন প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে পণ্যের গুণগতমান সম্পর্কে যে সনদ দেয়া হবে তা আইলাক ও এ্যাপলাকের সদস্যভুক্ত দেশগুলোতে সরাসরি গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে নুসডাট ল্যাব থেকে ফ্রিজ এবং এয়ারকন্ডিশনারের টেস্টিং রিপোর্ট দেয়া হবে। পরবর্তীতে টেলিভিশন, মোটরসাইকেলসহ অন্যান্য ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যের মাননিয়ন্ত্রণ প্রতিবেদনও দেয়া হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, অত্যাধুনিক ইক্যুইপমেন্ট, অর্ধ-শতাধিক মেধাবী ও অভিজ্ঞ প্রকৌশলী এবং টেকনিশিয়ানের সমন্বয়ে আন্তর্জাতিক মানদ- অনুসারে এখানে পণ্য মান যাচাই করা হচ্ছে। বিএবি’র মূল্যায়নে আন্তর্জাতিক মানদ- বজায় রাখায় নুসডাট ইউটিএস (ইউনিভার্সাল টেস্টিং সার্ভিসেস) কে যথাযথ প্রক্রিয়ায় অনুমোদন দেয়া হয়। বিএবির কাছ থেকে এ্যাক্রেডিটেশন পাওয়ায় এখন থেকে নুসডাট ইউটিএস ল্যাবে পরীক্ষাকৃত পণ্যের টেস্টিং রিপোর্ট বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকারী মান নিয়ন্ত্রণ সংস্থা কর্তৃক সরাসরি গৃহীত হবে।

সকল শপিং মল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সিসিটিভি স্থাপনের আহ্বান চিটাগাং চেম্বারের

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ চট্টগ্রাম মহানগরীর মার্কেট ও শপিং মলসহ সকল প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা বিধানে নিজ নিজ উদ্যোগে সিসিটিভি স্থাপনের আহ্বান জানিয়েছে চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি। দেশ-বিদেশে নানা পরিস্থিতির কারণে নিরাপত্তা ঝুঁকি সৃষ্টি হওয়ায় চেম্বারের পক্ষ থেকে এ আহ্বান জানানো হয়েছে।

চিটাগাং চেম্বারের সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ মঙ্গলবার এক লিখিত পত্রের মাধ্যমে ব্যবসায়ী সমাজের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, সার্বিক নিরাপত্তা বিধানের দায়িত্ব সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর হলেও এক্ষেত্রে নিজ নিজ স্বার্থে ব্যবসায়ী ও প্রতিষ্ঠান মালিকদেরও সতর্ক হওয়া প্রয়োজন। তিনি সন্ত্রাসী কার্যক্রম, দুর্বৃত্তপনা, ছিনতাই, রাহাজানি ইত্যাদি অপ্রত্যাশিত কার্যকলাপের প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম মহানগরীর অফিস আদালত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক, বীমা, শিল্প কারখানা, শপিং মল, মার্কেট, ক্লাব, কনভেনশন সেন্টার ইত্যাদি জনবহুল স্থানসমূহের যথাযথ নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপনের অনুরোধ জানান। বিভিন্ন মার্কেট ও এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবরে এ ব্যাপারে লিখিত পত্র প্রদান করা হয়েছে। তিনি বলেন, ব্যবসা-বাণিজ্য ও ক্রয়-বিক্রয় কার্যক্রম নির্বিঘœ এবং ক্রেতা-বিক্রেতার নিরাপত্তাসহ বৃহত্তর স্বার্থে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন অতীব জরুরী। একইসঙ্গে তিনি ইতোমধ্যেই যেসব মার্কেট ও শপিং মলে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন হয়েছে তাদের প্রশংসা করেন।