২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পুলিশ, এনবিআর কাস্টমসও মানিলন্ডারিং অপরাধ তদন্ত করতে পারবে

  • আইন সংশোধন হচ্ছে

সংসদ রিপোর্টার ॥ দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পাশাপাশি পুলিশ, সিআইডি, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর), বাংলাদেশ কাস্টমস ও কর বিভাগ এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর মানিলন্ডারিং অপরাধ তদন্ত করতে পারবে। এই বিধান কার্যকর করতে জাতীয় সংসদে উত্থাপিত মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ (সংশোধন) আইন-২০১৫ চূড়ান্ত করেছে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।

মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে বিলটি পাসের সুপারিশ করে সংসদে প্রতিবেদন উত্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কমিটির সদস্য মোঃ আবদুল ওয়াদুদের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য ফরহাদ হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী ও আখতার জাহান এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কমিটি সূত্র জানায়, গত সোমবার বিলটি সংসদে উত্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। পরে বিলটি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। বিলটি চলতি অধিবেশনেই পাস হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

বিলে বলা হয়েছে, মানিলন্ডারিং প্রতিরোধে ২০১২ সালে প্রণীত আইনের কার্যকারিতা বৃদ্ধি এবং তদন্ত সংক্রান্ত বিধানসমূহ কার্যকর করা প্রয়োজন। আইনে উল্লেখিত ২৭টি অপরাধের মধ্যে অধিকাংশ অপরাধের তদন্তকালে তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ও এনবিআরকে জটিলতার সম্মুখীন হতে হয়। তাই আইন সংশোধনের জন্য গত ১১ অক্টোবর মানিলন্ডারিং (সংশোধন) অধ্যাদেশ-২০১৫ জারি করা হয়। যে অধ্যাদেশটি আইনে পরিণত করতে উক্ত বিলটি আনা হয়েছে।

ন্যাম ভবনেও নিরাপত্তা জোরদার ॥ দেশব্যাপী নাশকতা বৃদ্ধি পাওয়া এবং ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে সম্প্রতি সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় সম্ভাব্য অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি এড়াতে জাতীয় সংসদ ভবনের পাশাপাশি এমপিদের আবাসস্থল ন্যাম ভবনগুলোতেও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হচ্ছে। জাতীয় সংসদের আবাসিক সাব কমিটি মঙ্গলবার সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়ে ত্বরিত পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছে।

এর আগে সংসদ ভবনে বৈঠক করে সাব কমিটি। জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ ও সংসদীয় কমিটির সভাপতি আ স ম ফিরোজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ মোঃ তাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং খালিদ মাহমুদ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনার পর জাতীয় সংসদ ভবনে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। নিজস্ব ও নিয়মিত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং র‌্যাব নিয়োজিত রয়েছে সংসদ এলাকায়। এমনকি সংসদে এমপিদের ভবনে প্রবেশেও কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। পরিচয়পত্র ঝুলিয়ে প্রবেশ করতে এমপিদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সাংবাদিক, দর্শনার্থীসহ সংসদের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রবেশেও কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে।

নিরাপত্তা জোরদার করার বিষয়ে সংসদের চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজ জানান, সংসদের নিরাপত্তার বিষয়ে কোন ধরনের ছাড় না দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। অনেক বহিরাগত মুজিব কোট পরে সংসদে ঢুকে যাচ্ছেন। এমপি ভেবে নিরাপত্তা বাহিনী ভয়ে তাদের কিছু বলে না। তাই সবাইকে কার্ড ঝুলিয়ে প্রবেশের অনুরোধ করা হয়েছে।

নির্বাচিত সংবাদ