১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দুঃসময়ের সাঁতারের রানী ফ্রাঙ্কলিন

  • মাহমুদা সুবর্ণা

মাত্র বিশ বছর বয়স মিসি ফ্রাঙ্কলিনের। এই সময়ের মধ্যেই বিশ্ব সাঁতারে নিজেকে মেলে ধরেছেন দারুণভাবে। ইতোমধ্যেই ক্রীড়াজগতের মহাযজ্ঞ অলিম্পিকের চারটি স্বর্ণপদক দখলে এই আমেরিকান সাঁতারুর। শুধু তাই নয়, বর্তমানে ২০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকে বিশ্বরেকর্ডের মালিক তিনি। তাছাড়া ১০০ এবং ২০০মিটার ব্যাকস্ট্রোকে আমেরিকার জাতীয় রেকর্ডও তার দখলে। তবে বর্তমান সময়টা ভাল কাটছে না তার। বিশেষ করে আমেরিকার মিনিয়াপোলিসের প্রো সুইম সিরিজে রীতিমতো লড়াই করতে হচ্ছে মিসি ফ্রাঙ্কলিনকে।

অথচ আর মাত্র সাত মাস পরেই শুরু হতে যাচ্ছে পরবর্তী অলিম্পিক গেমস। ২০১৬ সালে ‘গ্রেটেস্ট শোন অন আর্থ’ খ্যাত অলিম্পিকের আসর বসবে ব্রাজিলের রিও ডি জেনিরোতে। যুক্তরাষ্ট্রের সাঁতারুরা সেই ইভেন্টে মেলে ধরার জন্য ইতোমধ্যেই প্রস্তুত হচ্ছেন। আর এখানেই পুলে নেমেছিলেন আমেরিকার সেরা সাঁতারুরা। তবে প্রো সুইম সিরিজে মিসি ফ্রাঙ্কলিনকে ছাপিয়ে পাদপ্রদীপের আলোয় উঠে এসেছেন কেটি লিডেকি। ১৮ বছর বয়সী বিস্ময় বালিকা হিসেবে খ্যাতি লাভ করা লিডেকি যে দুর্দান্ত গতিতেই এগিয়ে যাচ্ছেন-তার আরেকটি প্রমাণ যেন এই প্রো সুইম টুর্নামেন্ট। দূরপাল্লার সাঁতারে বিশ্বে অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছেন লিডেকি। তবে এবার স্বল্প পাল্লাতেও দুরন্ত হয়ে উঠছেন তিনি। মিনেসোটা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ্যাকুয়াটিক সেন্টারে দারুণ নৈপুণ্য প্রদর্শন করেই অফ-সিজনের সব আলো কেড়ে নিলেন তিনি। লিডেকি এবার ২০০ মিটার ফ্রিস্টাইলে হারিয়ে দিয়েছেন আরেক বিস্ময় বালিকা মিসি ফ্র্যাঙ্কলিনকে।

সাঁতারে আমেরিকা-অস্ট্রেলিয়ার দাপট সবসময়ই। তবে ২০১৬ অলিম্পিক আসরেও যে যুক্তরাষ্ট্রের মহিলা সাঁতারুদের দাপটে বিশ্বের বাকি দলগুলোকে বেশ হিমশিম খেতে হবে সেটা আগেভাগেই বোঝা যাচ্ছে। কেননা গত আগস্টেই বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে দেখা গেছে লিডেকি ঝড়। যার কাছে টিকতে পারেননি আর কেউ। সেই চ্যাম্পিয়নশিপে সবমিলিয়ে ৫টি স্বর্ণপদক জয় করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই তরুণ প্রতিভাবান সাঁতারু। সেই সাফল্যের রেশ এখনও কাটেনি তার। এর মধ্যেই ঝলক দেখালেন আরেক ইভেন্টে। নিজের সাফল্যের ধারাবাহিকতা ভালভাবেই ধরে রেখেছেন তিনি। মাত্র ১ মিনিট ৫৫.৩৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে শেষ করেছেন এবার মিনিয়াপোালিসে চলমান এ্যারেনা প্রো সুইম সিরিজে। স্বল্প পাল্লায় দুর্বার ফ্র্যাঙ্কলিন হেরে গেছেন ০.৬৪ সেকেন্ড পিছিয়ে থেকে। আর ৬ বারের অলিম্পিক পদকজয়ী এ্যালিসন শ্মিট তৃতীয় হয়েছেন ১ মিনিট ৫৭.২৮ সেকেন্ড টাইমিং নিয়ে শেষ করে। কেটি লিডেকি আর মিসি ফ্রাঙ্কলিনের সম্পর্কটা শুধু প্রতিপক্ষ হিসেবেই নয়। তাদের সম্পর্কটাও বন্ধুসূলভ। তাই কেটি লিডেকির কাছে হারলেও বান্ধবীর পারফরমেন্সে মুগ্ধ তিনি। পরাজিত হওয়ার পরও তার হাসিটা অম্লান। লড়াইয়ের পর মিসি ফ্রাঙ্কলিন সংবাদ সম্মেলনে নিজের অভিমত জানাতে গিয়ে বলেন,‘যখন কেটি লিডেকির মতো কারও সঙ্গে লড়াইয়ে নামাটা খুবই আনন্দের। তার বিপক্ষে খেললে যে কাররই উন্নতি করার সুযোগ থাকে। আমি মনে করি তার বিপক্ষে অনেক ভাল পারফরমেন্স করতে পেরেছি।’

মিসি ফ্রাঙ্কলিনের বর্তমান বয়স ২০। আর লিডেকির তার চেয়েও দুই বছর কম। মাত্র ১৫ বছর বয়সেই চমক দেখানো শুরু করেছিলেন লিডেকি। সেই ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছেন এখনও। এই সময়ে তিনি আরও বেশি পরিপক্ব এবং গতিটাও বাড়িয়েছেন ধীরে ধীরে। ফ্রিস্টাইল জগতের অপ্রতিরোধ্য এক সম্রাজ্ঞী হয়ে গেছেন তিনি। তবে বেশি রাজত্ব করছেন দূরপাল্লার সাঁতারে। তবে স্বল্প পাল্লার সাঁতারেও যে তিনি খুব বেশি পিছিয়ে নেই তার প্রমাণ দিলেন এবার দেশসেরা ফ্র্যাঙ্কলিনকে ২০০ মিটারে হারিয়ে। লন্ডন অলিম্পিকে চার স্বর্ণপদকজয়ী ফ্র্যাঙ্কলিনকে হারালেও অবশ্য অন্য ইভেন্টগুলোয় তেমন সুবিধা করতে পারেননি লিডেকি। ৪০০ মিটার ব্যক্তিগত মিডলেতে তৃতীয় হয়েছেন চলমান এই আসরে। পুলের রেকর্ড টাইমিং ৪ মিনিট ৩৭.০৪ সেকেন্ড সময় নিয়ে বেকা মান প্রথম হন। ২.১৪ সেকেন্ড পিছিয়ে ছিলেন লিডেকি।

এই ইভেন্টটি মূলত একটি অনুশীলন ছাড়া এবং কৌতুক ছাড়া কিছুই ছিলনা লিডেকির জন্য। কিন্তু তিনি নিজেই জানালেই আগামী অলিম্পিকে এই ইভেন্টেও লড়াইয়ে নামার চিন্তা করছেন। এ বিষয়ে লিডেকি বলেন, ‘আমি সাঁতরানোর সময় দারুণ উপভোগ করেছি এটা এবং শেষ হওয়ার পর যে প্রতিক্রিয়া হয়েছে সেটার পর বুঝতে পেরেছি খুব খারাপ সাঁতরেছি। বিষয়টা আমাকে পরে বেশ কষ্ট দিয়েছে। সুতরাং আমাকে দীর্ঘ সময় অনুশীলন করতে হবে।’ এখানে মার্কিন সাঁতার দলের ৫০ জন প্রতিযোগী অংশ নিয়েছেন। সবমিলিয়ে প্রাইজমানি ৩ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। প্রতি ইভেন্টের প্রথম স্থানের জন্য ১০০০, দ্বিতীয় স্থান ৬০০ এবং তৃতীয় স্থানের জন্য ২০০ মার্কিন ডলার করে পুরস্কার রয়েছে। আর সবমিলিয়ে প্রতিযোগিতা শেষে শীর্ষস্থানে থাকা সাঁতারু পুরস্কার পাবে ১০ হাজার মার্কিন ডলার। মিনিয়াপোলিসে চলমান এই ইভেন্টের ২০০মিটার ফ্রি স্টাইলে লিডেকির কাছে ফ্রাঙ্কলিন হারলেও ২০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকে দ্যূতি ছড়িয়েছেন ঠিকই। মাত্র ২:০৭. ২৪ সেকেন্ডে ফিনিশিং লাইন স্পর্শ করেন এই ইভেন্টে। যা তার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পারফরমেন্স। এখান থেকে অনুপ্রেরণা নিয়েই সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় মিসি ফ্রাঙ্কলিনের চোখে-মুখে।