২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লোকসভা অধিবেশনের আগে সর্বদলীয় বৈঠকের পরিকল্পনা বিজেপির

  • অসহিষ্ণুতা নিয়ে সরকারকে কোণঠাসা করবে বিরোধীরা

মানস ব্যানার্জী, নয়াদিল্লী থেকে ॥ ২৬ নবেম্বর থেকে ভারতের পার্লামেন্টের শীতকালীন অধিবেশন শুরু হচ্ছে। অধিবেশনে অসষ্ণিুতা নিয়ে বিরোধীদের আক্রমণাত্মক ভূমিকার আশঙ্কায় সরকারের পক্ষ থেকে মূল বিরোধী দলের নেতাদের নিয়ে একটি বৈঠকের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। বিজেপি সূত্রে জানা গেছে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নাইডুর সভাপতিত্বে এই বৈঠকে কংগ্রেসসহ মূল বিরোধী দলের নেতাদের আমন্ত্রণ জানান হবে। বৈঠকে আগামী শীতকালীন অধিবেশনে সভার কাজ শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত করার আবেদন জানিয়ে বিরোধীদের মতামতকেও জানার চেষ্টা করা হবে। বস্তুত সেবা করসহ [জিএসটি] বকেয়া বিলগুলো যাতে বিরোধীদের সহযোগিতায় পাস করিয়ে নেয়া যায় তার জন্য আবেদন রাখা হবে। বিহার বিধানসভা নির্বাচনকালে বিজেপির বিরুদ্ধে যে অসহিষ্ণুতার অভিযোগ উঠেছে দেশজুড়ে তাকে প্রশমিত করতে মরিয়া প্রয়াস চালানোর চেষ্টা করা হবে বিজেপির পক্ষ থেকে। বিজেপি জানিয়েছে, লোকসভা স্পীকার সুমিত্রা মহাজনের ডাকা সর্বদলীয় বৈঠকের আগেই তিন চার দিনের মধ্যেই বিজেপির পক্ষ থেকে এই বৈঠক ডাকার চেষ্টা চলছে। জিএসটি নিয়ে এর আাগেও সরকার প্রচ- বিরোধিতার সম্মুখীন হয়েছে। রাজ্য সভায় সংখ্যালঘু হবার ফলে বিজেপিকে এখন কংগ্রেসের শরণাপন্ন হতে হচ্ছে। তবে আরজেডি নেতা লালু প্রসাদ যাদব বলেছেন, তারা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কোণঠাসা করার জন্য কংরেগ্রসকে কোন মতেই বিজেপির সঙ্গে সমঝোতা করতে দেবে না। কংগ্রেস সূত্রে জানান হয়েছে, মিডিয়া ও প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে এফডিআই কংগ্রেস মেনে নেবে না। তারা সংসদে তীব্র বিরোধিতা করবেন বলে জানিয়েছেন কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধী। বিহারে এনডিএর শোচনীয় পরাজয়ের ফলে বিরোধীদের মধ্যে এক নতুন শক্তির সঞ্চার হয়েছে। এর প্রতিফলন ঘটবেই অধিবেশনে বলে জানিয়েছেন সিপিএমএর সাধারণ সম্পাদক ও এমপি সীতারাম ইয়েচুরি। বাম দলগুলোর পক্ষ থেকে পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষে অসহিষ্ণুতা নিয়ে একটি প্রস্তাব আনার কথা ভাবা হচ্ছে। বিহার নির্বাচনের সময় সরকারের পক্ষ থেকে যে ধরনের ভাষা প্রয়োগ করা হয়েছে এবং দাদরিকা-ে সংখ্যালঘু সদস্যকে পিটিয়ে মারা ও ফরিদাবাদে দলিত হত্যা ও গোমাংস নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য নিয়েও বামেরা সোচ্চার হবেন বলে সিতারাম জানিয়েছেন। এ জন্য কংগ্রেসসহ অন্যান্য বিরোধী দলের সমর্থন দাবিও করা হয়েছে। বিজেপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সরকারের ডাকা বৈঠকে নেতৃত্ব দেয়ার জন্য বেঙ্কাইয়া নাইডু অথবা অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলিকে বলা হতে পারে।