২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পুঁজিবাজারে মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন শেষ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বুধবার দুপুরে সারাদেশের ইন্টারনেট সেবা প্রায় সোয়া এক ঘণ্টা বন্ধ থাকার কোন প্রভাব পড়েনি উভয় স্টক একচেঞ্জের লেনদেনে। যদিও ই-কমার্সে এর কিছুটা নেতিবাচক পড়েছিল। দুই স্টক একচেঞ্জের ওয়েবসাইটে দেখা গেছে, মিশ্র প্রবণতায় শেষ হয়েছে লেনদেন। তবে উভয় বাজারেই লেনদেনের পরিমাণ আগের দিনের তুলনায় কমেছে।

বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে, গতম দুই দিনে চারশ কোটি টাকার ওপরে লেনদেন ও সূচকের বৃদ্ধির পরে বুধবারে লেনদেনের গতিও কিছুটা ভাল ছিল। তবে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারী জেনারেল আলী আহসান মুজাহিদের ফাঁসির রায় বহালকে কেন্দ্র করে কিছুটা সূচকের ওঠানামা চলতে থাকে। শুরুতে পতন থাকলেও শেষ বিকেলে সূচকের তীর ওপরে উঠতে থাকে। দিনশেষে মিশ্রাবস্থাও লেনদেন শেষ হয়েছে। বাজারে প্রাতিষ্ঠানিক ও ব্যক্তি পর্যায়ের সব ধরনের বিনিয়োগকারীই সক্রিয় ছিল। এছাড়া ইন্টারনেট সেবা সাময়িক বন্ধের প্রভাব কিছুটা পড়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা দাবি করেছেন।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা বিটিআরসির নির্দেশে বুধবার দুপুর ১ টা ১০ মিনিট থেকে দুপুর ২ টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত সারা দেশের ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করে দেয় ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানসমূহ।

লেনদেনে প্রভাব না পড়ার বিষয়ে ডিএসই’র গণসংযোগ ও প্রকাশনা বিভাগের শফিকুর রহমান বলেন, সারাদেশে ইন্টারনেট সংযোগ কিছু সময় বন্ধ ছিল। তবে এর কোনো প্রভাব ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লেনদেনে পড়েনি। ডিএসই দুইটি ইন্টারনেট সংযোগ খঅঘ এবং ডঅঘ মাধ্যমে তাদের ট্রেডিং সম্পন্ন করেছে।

ডিএসইর তথ্য অনুযায়ী, বুধবার ডিএসইতে ৩৪৭ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে; যা আগের দিনের তুলনায় ৫৫ কোটি টাকা বা ১৩ দশমিক ৬৮ শতাংশ কম লেনদেন। আগের দিন এ বাজারে ৪০২ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয় ৩০৮টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১৪২টির, কমেছে ১৩৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ২৯ টির শেয়ার দর।

সকালে নেতিবাচক প্রবণতা দিয়ে শুরুর পরে ডিএসইএক্স বা প্রধান মূল্য সূচক দশমিক ৩২ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৪৯৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ১ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে এক হাজার ৮১ পয়েন্টে। ডিএস৩০ সূচক ১ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৭০৬ পয়েন্টে।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা দশ কোম্পানি হলো : সাইফ পাওয়ারটেক, তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন, ইফাদ অটোস, বেক্সিমকো ফার্মা, কাশেম ড্রাইসেলস, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড, ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, কেডিএস অ্যাক্সেসরিজ, আইপিডিসি এবং বেক্সিমকো।

বুধবার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ২৩ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এদিন সিএসই সার্বিক সূচক ৪ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৭২৪ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২২৮ টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৯০টি কোম্পানির, দর কমেছে ১০২টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৬টি কোম্পানির।

সিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : ইফাদ অটোস, সাইফ পাওয়ার টেক, ইউনাইটেড এয়ার, ইউনাইটেড পাওয়ার, আইডিএলসি, কেডিএস এক্সেসরিজ, বে´িমকো ফার্মা, তিতাস গ্যাস, লাফার্জ সুরমা ও বে´িমকো।