২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দিনাজপুরে এবার প্রকাশ্যে ইতালীয় নাগরিক ডা. পিচমকে হত্যার চেষ্টা

দিনাজপুরে এবার প্রকাশ্যে ইতালীয় নাগরিক ডা. পিচমকে হত্যার চেষ্টা
  • জেলা জামায়াত সেক্রেটারি ভুট্টো আটক

সাজেদুর রহমান শিলু, দিনাজপুর ॥ ঢাকায় ইতালিয়ান নাগরিক তাবেলা সিজার, রংপুরে জাপানী নাগরিক হোশি কুনিও, ঈশ্বরদীতে ফাদার লুক সরকারের পর এবার দিনাজপুরে হামলার শিকার হলেন আরেক ইতালিয়ান নাগরিক ধর্মযাজক ডাঃ পিয়েরো পিচম। দিনাজপুর সদরের মির্জাপুর বিআরটিসি বাসস্ট্যান্ডের কাছে প্রকাশ্যে ডাঃ পিয়েরো পিচমকে (৫০) গুলি করে হত্যার চেষ্টা করে দুর্বৃত্তরা। বুধবার সকাল আটটায় মোটরসাইকেলে করে এসে তিন দুর্বৃত্ত এ হামলা চালায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে প্রথমে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিকেলে তাকে এয়ার এ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় পাঠানো হয়। তার চিকিৎসায় গঠিত ৭ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ডের প্রধান ডাঃ পার্থ সারথী রায় জানান, বর্তমানে আহত পিচমের অবস্থা আশঙ্কামুক্ত। এদিকে হামলাকারীদের ধরতে সকাল থেকে জেলার বিভিন্ন স্থানে পুলিশের জোর তল্লাশি চলছে। ইতালীয় গুলি করে আহত করার ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ বুধবার বিকেলে জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি এ্যাডঃ মাহবুবুর রহমান ভুট্টোকে আটক করেছে। বিদেশীদের নিরাপত্তার বিষয়ে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাড়তি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ঘটনাস্থলের কাছে অবস্থিত চায়ের দোকানদার নুরুল ইসলাম জানান, সকাল আটটার দিকে ৩ জন মোটরসাইকেল আরোহী এই হামলা চালায়। তারা একটি গুলির শব্দ শুনেছেন। হামলাকারীদের একজনের মাথায় হেলমেট ও অপর ২ জনের মুখ চাদরে ঢাকা ছিল। ৩ হামলাকারী গুলিবর্ষণের পর মোটরসাইকেল নিয়ে এলাকার মসজিদের সামনের গলি দিয়ে পালিয়ে যায়। তারা জানান, ডাঃ পিচম প্রায়দিনই সাইকেল নিয়ে এই পথ দিয়ে যাতায়াত করতেন। হামলার পর চিৎকার করে সাইকেল থেকে ছিটকে পড়েন ডাঃ পিয়েরো পিচম। রক্তাক্ত ও সংজ্ঞাহীন অবস্থায় পড়ে থাকেন সড়কের ওপর। এ সময় সেখানে অনেক মানুষ উপস্থিত থাকলেও, তাকে উদ্ধারের জন্য কেউ এগিয়ে আসেনি। পরে দিনাজপুর সরকারী কলেজের শিক্ষক বাবুল হোসেন ও এলাকার বাসিন্দা খতিবুদ্দিন আহত ধর্মযাজককে অটোরিক্সায় করে দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে যান।

দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডাঃ আমির আলী জানান, আহত অবস্থায় ডাঃ পিয়েরো পিচমকে হাসপাতালে আনা হলে সর্বোচ্চ যতœ নিয়ে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ পার্থ সারথী রায়কে চেয়ারম্যান করে ৭ সদস্যের একটি উচ্চ পর্যায়ের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়। বোর্ডের অপর সদস্যরা হলেন সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ জিল্লুর রহমান, নাক-কান-গলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ বুলন্দ আকতার টগর, চক্ষু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডাঃ অনিসুল হক হিরু, নিউরোমেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ বদরুল আমিন, অর্থোপেডিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ নাদির হোসেন ও রেডিওলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ শিবেশ সরকার। মেডিক্যাল বোর্ডের চেয়ারম্যান ডাঃ পার্থ সারথী রায় জানান, হাসপাতালে ভর্তির পর-পরই আহত ডাঃ পিয়েরো পিচমের মাথার পেছনের অংশে ড্রেসিং করা হয়। তবে কোন অপারেশনের প্রয়োজন হয়নি। মাথায় আর কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ তরুণ কান্তি হালদার জানান, আহত ধর্ম যাজকের সিটিস্ক্যান করা হয়েছে। তিনি এখন শঙ্কামুক্ত। প্রধানমন্ত্রীর অফিসের সামরিক সচিব বিদেশী নাগরিকের চিকিৎসার বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে ডাঃ পিচমকে ঢাকায় সিএমএইচে পাঠানো হয়েছে। বিকেল চারটা ১০ মিনিটে হেলিকপ্টারে গুলিবিদ্ধ ইতালীয় নাগরিক ডাঃ পিয়েরো পিচমকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়।

ঘটনার কিছুক্ষণ পর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এন.এম. নাসিরউদ্দিন তার সদস্যদের নিয়ে হামলাস্থলে এসে পুরো এলাকার নিয়ন্ত্রণ নেন। হলুদ ফিতা দিয়ে এলাকাটি ঘিরে ফেলা হয়। হামলাস্থলের ৩ জায়গায় জমাট বাঁধা রক্ত দেখা যায়। পিবিআই কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল থেকে ডাঃ পিচমের ব্যবহৃত চশমা, বাইসাইকেল ও এ্যাশ কালারের কাপরের তৈরি মাস্ক উদ্ধার করেন। এ সময় সেখান থেকে পিস্তলের ৯ এমএম একটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়। ঘটনার পর প্রশাসন, পুলিশ, র‌্যাব ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা হামলাস্থল পরিদর্শন করেন।

সুইহারী ক্যাথলিক চার্চের ফাদার ইনচার্জ জান বাতিস্তা জানকি জানান, পিয়েরো পিচম ডাক্তার হলেও তিনি ছিলেন ধর্মযাজক। ১৯৮৭ সালে তিনি ইতালির লেককো শহর থেকে বাংলাদেশে আসেন ধর্মযাজক হিসেবে। প্রায় ২৮ বছরের মধ্যে তিনি বেশিরভাগ সময় ছিলেন রাজশাহীতে। ২০০৮ সালে ডাঃ পিচম দিনাজপুরে আসেন এবং সুইহারী ক্যাথলিক চার্চে অবস্থান করতেন। প্রতি শনি ও রবিবার তিনি প্রার্থনা সভা পরিচালনা করতেন। যক্ষ্মা বিষয়ক একজন ডাক্তার হিসেবে তার খ্যাতি রয়েছে। তিনি দিনাজপুর মেডিক্যাল হাসপাতাল ও সেন্টভিনসেন্ট হাসপাতালে রোগী দেখতেন।

দিনাজপুর ক্যাথলিক ধর্মরাজ্যের বিশপ সেবাস্তিয়ান টুডু জানান, ইতালীয় নাগরিকের ওপর হামলার পরপরই ইতালীয় দূতাবাস, মার্কিন দূতাবাস ও ভ্যাটিকান দূতাবাসের কূটনীতিকরা ঘটনা সম্পর্কে তার সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি এই হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, সরকার উপযুক্ত ও যথাযথ বিচারের মাধ্যমে দোষীদের আইনের আওতায় আনবে বলে তারা বিশ্বাস করে।

জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এই হামলার নিন্দা জানিয়ে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও দিমেকের পরিচালককে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম বলেন, এই জঘন্য হামলার সঙ্গে যারা জড়িত, তাদের খুঁজে আইনের আওতায় এনে সুষ্ঠু বিচারের মাধ্যমে কঠোর সাজা দেয়া হবে। তিনি বলেন, বিদেশীদের নিরাপত্তার ব্যাপারে সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। দিনাজপুর পুলিশ সুপার রুহুল আমিন জানান, ইতালিয়ান নাগরিক ডাঃ পিয়েরো পিচমের ওপর হামলা পরিকল্পিত। হামলাকারীদের ধরতে পুলিশী অভিযান অব্যাহত রয়েছে।