১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বোমাতঙ্কে পরিত্যক্ত জার্মানি-হল্যান্ড ম্যাচ

বোমাতঙ্কে পরিত্যক্ত জার্মানি-হল্যান্ড ম্যাচ

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ গত শুক্রবার ফ্রান্স-জার্মানির ম্যাচ চলাকালেই প্যারিসে ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী হামলা করা হয়। সেই ভয়াবহ হামলা-আতঙ্কের রেশ এখনও কাটেনি। এর মধ্যেই বোমা হামলার আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ল জার্মানিতে। মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে হ্যানোভারে মুখোমুখি হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল জার্মানি আর হল্যান্ড। কিন্তু নিরাপত্তা আশঙ্কার কারণে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয় দুই দলের লড়াই। মূলত হ্যানোভার স্টেডিয়ামে সন্দেহজনক এক ব্যাগ পাওয়া গেলে সেখান থেকে ছড়িয়ে পড়ে বোমাতঙ্ক। জার্মানির হ্যানোভার শহরে ম্যাচ শুরুর নির্ধারিত সময়ের দুই ঘণ্টা আগেই মূল স্টেডিয়াম থেকে লোকজন সরিয়ে নেয়া হয়। জার্মানির সরকারপ্রধান এ্যাঞ্জেলা মের্কেলের এইচ ডি আই এ্যারেনাতে খেলা দেখার কথা ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সবই যেন এলোমেলো হয়ে গেল। হ্যানোভার সিটির পুলিশপ্রধান ভোলকার ক্লুই বলেন, ‘বিস্ফোরণ ঘটানোর মহাপরিকল্পনা ছিল। তবে এ বিষয়ে এখন আমরা কার্যকরী পদক্ষেপ নিচ্ছি।’ এই ম্যাচটিকে মূলত স্বাধীনতার প্রতীক হিসেবেই ভাবা হচ্ছিল। বিশেষ করে প্যারিসে ঘটে যাওয়া ভয়াবহ হামলার প্রতিবাদও জানাতে চেয়েছিল এই ম্যাচের মাধ্যমে। এ বিষয়ে জার্মানি কোচ জোয়াকিম লো বলেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম স্বাধীনতার সুস্পষ্ট একটি বার্তা প্রেরণ করতে। সেইসঙ্গে ফ্রান্সের হতাহত-দুঃখিত সমর্থকদের জন্যও...শুধু যে ফ্রান্স তা নয় বরং সমগ্র বিশ্বের জন্যই।’

ম্যাচের আগেই স্টেডিয়ামে ফ্রান্সের জাতীয় সঙ্গীত বাজতে শুরু করেছিল। খেলোয়াড়রাও তার সঙ্গে সুর মিলাচ্ছিল। ফিলিপ বেকারম্যান নামে ৩৪ বছর বয়সী এক সমর্থক তার বান্ধবীকে নিয়ে জার্মানি-হল্যান্ডের ম্যাচ দেখতে হ্যানোভারে উপস্থিত হয়েছিল। ম্যাচ না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘তারা ভয় এবং ত্রাসের একটি বার্তা পাঠাতে চেয়েছিল কিন্তু এমনটা মোটেও হতে দেয়া হবে না।’ হ্যানোভার স্টেডিয়ামে প্রায় ৪৯ হাজার সমর্থক খেলা দেখার সুযোগ পায়। আর এখানে বোমা হামলার মতো কোন ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটলে যে ধ্বংসযজ্ঞই হয়ে যেত তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এর আগে ব্রাসেলসে স্পেন-এর বিপক্ষে বেলজিয়ামের ম্যাচও বাতিল ঘোষণা করা হয়। গত সপ্তাহে প্যারিসে ভয়াবহ হামলার পর নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হলেই স্পেনের সঙ্গে বেলজিয়ামের প্রীতি ম্যাচ সোমবারই বাতিল করা হয়। তবে মঙ্গলবার হ্যানোভারের ম্যাচটি না হলেও, লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ইংল্যান্ড-ফ্রান্সের প্রীতি ম্যাচটি যথা সময়েই শুরু হয়।