২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হুমকিদাতা ও দায় স্বীকারকারীসহ গ্রেফতার ৩

হুমকিদাতা ও দায় স্বীকারকারীসহ গ্রেফতার ৩
  • ব্লগার নিলয় হত্যাকাণ্ড

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ব্লগার নিলাদ্রী চ্যাটার্জী নিলয়কে হত্যার হুমকিদাতা ও হত্যার দায় স্বীকারকারী দুইজনসহ মোট তিনজনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে একজন ফেসবুকে হুমকিদাতা জামায়াত ও উগ্র মৌলবাদী রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। অপর দুইজন ছাত্রশিবিরের নেতা। তাদের ৫ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত। এ নিয়ে নিলয় হত্যাকা-ে ৭ জন গ্রেফতার হলো।

চলতি বছরের ৭ আগস্ট দুপুর দেড়টার দিকে রাজাধানীর খিলগাঁও থানাধীন পূর্ব গোড়ানের ৮ নম্বর সড়কের ১৬৭ নম্বরের পাঁচতলা বাড়ির পঞ্চমতলার পূর্বদিকের ভাড়া বাসায় কুপিয়ে হত্যা করা হয় ব্লগার নিলাদ্রী চ্যাটার্জী নিলয়কে (৪০)। হত্যার সময় নিলয়ের স্ত্রীকে আগ্নেয়াস্ত্রের মুখে জিম্মি করে রেখেছিল হত্যাকারীরা। আর নিলয়ের শ্যালিকাকে বারান্দায় রেখে দরজা আটকে দেয়া হয়েছিল। মামলাটির তদন্ত করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ।

ডিবির পূর্ব বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ মাহবুব আলমের নির্দেশনায়, এডিসি খোন্দকার নূরুন্নবীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মোঃ ইকবাল হোছাইনের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ডিবির যুগ্মকমিশনার মনিরুল ইসলাম জানান, সোমবার নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও এলাকায় অভিযান চালিয়ে ডিবি পুলিশ নিহত নিলয়কে হত্যার হুমকিদাতা মুফতি মাওলানা আব্দুল গাফফারকে গ্রেফতার করে। আব্দুল গাফফার চলতি বছরের ১৫ মে ইসলামের সৈনিক সত্যের লড়াকু নামক নিজের ফেসবুক থেকে নিলয়কে হত্যার হুমকি দিয়ে লেখেনÑ ‘আইতাছি, তোরে কোপামু চাপাতি দিয়া।’

আব্দুল গাফফার চট্টগ্রামের আল জামিয়াতুল ইসলামিয়া পটিয়া মাদ্রাসায় অধ্যায়নকালীন কথিত জিহাদী কার্যক্রমে উদ্বুদ্ধ হন। তাদের মাধ্যমেই ফেসবুক চালনা শেখেন। ইসলামের সৈনিক সত্যের লড়াকু ছাড়াও ইসলামের সৈনিক সত্যের পাইক, আব্দুল গাফফার প্রভৃতি নামে তার একাধিক ফেসবুক আইডি রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে আব্দুল গাফফার নিলয়কে হুমকি দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

তারই ধারাবাহিকতায় সোমবারই ডিবির আরেকটি দল চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড থেকে রাতেই থানার ভাটিয়ারী ওয়ার্ড ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারি জেনারেল মর্তুজা ফয়সাল সাব্বিরকে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর থেকে এবং সাব্বিরের তথ্যমতে, ওই দিন সকালে সীতাকুন্ড থেকে ডিবির একটি দল সীতাকু- থানা ছাত্রশিবিরের সাবেক সেক্রেটারি জেনারেল তারেকুল আলম তারেককে গ্রেফতার করে। তার বিরুদ্ধে নাশকতার অভিযোগে সীতাকু- থানাসহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন থানায় ২০টির বেশি মামলা আছে।

নিলয় হত্যার পর আনসার আল ইসলাম নামে ফেসবুক পেজ থেকে হত্যার দায় স্বীকার করে ফয়সাল সাব্বির ও তারেক। হত্যাকা-ের সঙ্গে সরাসরি বা কোনভাবে গ্রেফতারকৃতদের যোগসূত্র আছে কিনা, সে বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

সংবাদ সম্মেলনে ডিবির উত্তর, পূর্ব ও মিডিয়া বিভাগের উপ-কমিশনার এবং অতিরিক্ত উপ-কমিশনার যথাক্রমে শেখ নাজমুল আলম, মাহবুব আলম, মুনতাসিরুল ইসলাম ও এসএম জাহাঙ্গীর আলম সরকার উপস্থিত ছিলেন।

আমাদের কোর্ট রিপোর্টার জানান, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির পরিদর্শক মাহাবুবুর রহমান আসামিদের ঢাকার সিএমএম আদালতে সোর্পদ করে ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। শুনানি শেষে ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট কায়সারুল ইসলাম।