২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চীন গেল বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল

  • ইউনান আসফান আন্তর্জাতিক ফুটবল ওপেন টুর্নামেন্ট, সাফের আগে এই টুর্নামেন্ট দারুণ সহায়ক হবে ॥ মামুনুল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ সাফ ফুটবলের প্রস্তুতি হিসেবে আগামী শুক্রবার থেকে চীনের ইউনান প্রদেশে শুরু হতে যাওয়া বহুজাতিক একটি ফুটবল টুর্নামেন্টে অংশ নেবে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল। টুর্নামেন্টটির নাম ‘ইউনান আসফান আন্তর্জাতিক ফুটবল ওপেন টুর্নামেন্ট।’ ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইয়ে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ম্যাচের পরের দিনই, অর্থাৎ বুধবার টুর্নামেন্টে অংশ নিতে দুপুর ২টায় বিমানযোগে (কুয়ালালামপুর হয়ে) চীনের উদ্দেশ্যে রওনা হয় জাতীয় ফুটবল দল। এর আগে পরিকল্পনা ছিল সাফ ফুটবলের প্রস্তুতি হিসেবে মালদ্বীপের ‘প্রমিজ কাপ’-এ অংশ নেবে বাংলাদেশ। কিন্তু বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ব্যস্ত সূচীর কারণে এবার টুর্নামেন্টটি আয়োজন করছে না বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। তবে একই সময়ে চীনের কাছ থেকে বিকল্প প্রস্তাব পাওয়ায় সেখানেই অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাফুফে। উল্লেখ্য, টুর্নামেন্টটি আয়োজন করছে ইউনান প্রভিন্সিয়াল স্পোর্টস ব্যুরো। চীনের ইউনান প্রদেশে অনুষ্ঠিতব্য এই টুর্নামেন্টটি শেষ হবে ৩০ নবেম্বর। যেখানে অংশ নেবে ৯ দেশের ১১ দল। একমাত্র বাংলাদেশ ও কম্বোডিয়াই পাঠাচ্ছে তাদের জাতীয় দল। শ্রীলঙ্কারও একটি দল খেলবে, তবে তারা এখনও জাতীয় দল, না ক্লাব পাঠাবে- সেটা এখনও জানায়নি (বাফুফের সূত্রমতে)। দলগুলো হচ্ছে- চীনের লিজিয়াং ফুটবল ক্লাব, চায়না সনডি ফুটবল ক্লাব ও পিউয়ের ম্যারিয়ট ফুটবল ক্লাব, থাইল্যান্ডের এসসিজি মুয়াং থং ইউনাইটেড ফুটবল টিম, মিয়ানমারের হানথারওয়াদি ইউনাইটেড এফসি, কম্বোডিয়া জাতীয় ফুটবল দল, মালয়েশিয়ার সাবাহ্ ফুটবল এ্যাসোসিয়েশন, লাওসের গোল্ডেন ট্রায়াঙ্গল স্পেশাল জোন ফুটবল, ভিয়েতনামের হ্যানয় টি এ্যান্ড টি ফুটবল ক্লাব, বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল এবং শ্রীলঙ্কার একটি দল। টুর্নামেন্টের খেলাগুলো অনুষ্ঠিত হবে দেহংয়ের মাংশি সিটি এবং রুইলি সিটিতে। টুর্নামেন্টের ফিকশ্চার এবং গ্রুপিং ড্র অনুষ্ঠিত হবে আজ বৃহস্পতিবার। টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন, রানার্সআপ, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান অধিকারী দলগুলো প্রাইজমানি হিসেবে পাবে যথাক্রমে- দেড় লাখ, এক লাখ, ৮০ হাজার এবং ৫০ হাজার ইউয়ান (চীনা মুদ্রা)।

বাংলাদেশ দল প্রথমে কুয়ালালামপুরে যাত্রাবিরতি করবে। সেখানে তারা উঠবে কুনমিংয়ের ইউন হুয়া হোটেলে। বৃহস্পতিবার চীনে পৌঁছে সেখানকার মাংশির মাংশি হোটেলে উঠবে। বাংলাদেশ দলে আছেন ২০ ফুটবলার এবং ৬ অফিসিয়াল। দল থেকে বাদ পড়েছেন চার ফুটবলারÑ ইয়ামিন, ইমন, সোহেল রানা এবং ফয়সাল মাহমুদ।

বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপের যৌথ বাছাইয়ের আপাতত বিরতি। এখন বাংলাদেশ জাতীয় দলের মিশন আসন্ন সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ। চীনের ইউনান প্রদেশে যাওয়ার আগে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম বলেন, ‘সাফের আগে এমন একটি টুর্নামেন্টে খেলতে পারা সাফে আমাদের অনেক সহায়ক হবে। বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে ভাল করতে পারিনি। তবে বিধস্ত ভাব নিয়ে এই টুর্নামেন্টে অংশ নিতে যাচ্ছি না। কেননা বিশ্বকাপ বাছাই আর আমন্ত্রণমূলক টুর্নামেন্ট সম্পূর্ণ আলাদা ব্যাপার।’

টুর্নামেন্টের সূচী এখনও চূড়ান্ত হয়নি। এ প্রসঙ্গে মামুনুলের ভাষ্যÑ ‘এখনও জানি না কাদের সঙ্গে খেলব। তবে আমাদের লক্ষ্য থাকবে ভাল খেলা। টিম কম্বিনেশন ভাল। একে অপরকে ভালভাবে চিনি। ক্লাব পর্যায়েই হোক আর জাতীয় পর্যায়েই হোক, এ ধরনের আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে খেলার সুযোগ আমরা খুব একটা পাই না। তাই বলব এটি একটি খুব ভাল সুযোগ আমাদের জন্য। তাও আবার সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের আগে।’

মঙ্গলবারই ঘরের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার কাছে ৪-০ গোলে হেরেছে বাংলাদেশ। হারটাকে ফুটবল সমালোচকরা একেকজন দেখছেন একেক দৃষ্টিতে। কারও মতে অস্ট্রেলিয়ার মতো কঠিন দলের বিপক্ষে মামুনুলদের ৪-০ গোলের হার খুব খারাপ ফল নয়। কারও মতে, বাংলাদেশের রক্ষণ বলে কিছুই নেই। আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতেই পারে না তারা। এজন্যই গোল করতে পারে না। আবার কেউ মনে করেন, অস্ট্রেলিয়ার মতো (ফিফা র‌্যাঙ্কিং ৬০) দলকে পুরো দ্বিতীয়ার্ধ আটকে রাখাটাও বাংলাদেশ দলের উন্নতিই। বাংলাদেশ দলের ডিফেন্ডার রায়হান হাসান এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমরা যে সবসময় রক্ষণাত্মক খেলি এটি ঠিক না। আমরা আক্রমণাত্মক ফুটবলও খেলতে পারি। সেটা আসলে নির্ভর করে আমরা কার বিপক্ষে খেলছি তার ওপর।’

বাংলাদেশ দল ॥ লিটন, শহীদুল, রায়হান, রনি, নাসিরুল, ইয়াসিন, হেমন্ত, জামাল, মামুনুল, তকলিস, কোমল, শাহেদুল, সজীব, ওয়ালী, কেষ্ট, রানা, জনি, জীবন, তপু ও রাজু। কোচ : ফ্যাবিও লোপেজ।