২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গণধর্ষণের শিকার পেকুয়ার রাবেয়ার মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার ॥ গণধর্ষণের বিচার পাওয়ার আগেই না ফেরার দেশে চলে গেছেন হতভাগী যুবতী রাবেয়া। বুধবার সকালে স্থানীয় কবরাস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে। পেকুয়ার বাঘগুজারা বদরখালী সড়কের সিএনজি টেক্সি চালকের হাতে ২জুলাই রাতে ধর্ষণের শিকার হয় চকরিয়ার কোনাখালীর খাতুর বাপের বাড়ির মো: হোছনের মেয়ে রাবেয়া খাতুন (১৯)। ধর্ষনের পর ১২দিন লোক লজ্জায় মামলা না করে স্থানীয়ভাবে বিচার মিমাংসার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে ১৩জুলাই চকরিয়া থানায় ধর্ষণকারী স্থানীয় মরংঘোনার কবির আহমদের পুত্র লম্পট মিজান, মৃত মো: আলমগীরের পুত্র রানা, খুটাখালী নতুন পাড়ার হায়দার আলীর পুত্র আবদুল আজিজ, পেকুয়া বাঘগুজারার মঞ্জুর মাষ্টারের পুত্র শফি আলম প্রকাশ কালূ, নন্দীর পাড়ার আহমদ হোছনের পুত্র কিসমত, ইছহাকের পুত্র মো: ফরিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন ধর্ষণের শিকার রাবেয়া।

এদিকে মামলা দায়েরের পর থেকে আসামীদের অব্যাহত হুমকিতে রাবেয়া ভয়ে তটস্থ অবস্থায় থাকত। কথা বলত না কারও সঙ্গে। মামলার তদন্ত সংক্রান্ত যাওয়া-আসা এবং আদালতে ধার্য্য দিন যেন রাবেয়ার জন্যে অস্বস্থিকর। মামলার ধার্য্য দিন শুনলে ডুকরে কেদে ওঠত রাবেয়া। আলমগীর বলেন, তার বোন সব সময় মানসিক বিপর্যস্থ অবস্থায় থাকত। স্থানীয় মেম্বার আবদুর রহিম জানান, মেয়েটি অসহায় গরীব পরিবারের ভদ্র নম্র স্বভাবের ছিল। বখাটেদের ধর্ষণের শিকার হয়ে সে মানসিক ভাবে বিপর্যস্থ হয়ে পড়ে মারা যায়।