২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ফ্রান্সে হামলার মূল হোতা আবাউদ নিহত

ফ্রান্সে হামলার মূল হোতা আবাউদ নিহত
  • নিরাপত্তায় মোড়া নিউইয়র্ক

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ গত শুক্রবার ফ্রান্সে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার মূলহোতা আবদেল হামিদ আবাউদ নিহত হয়েছে। আঙ্গুলের ছাপ পরীক্ষার মাধ্যমে তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। ফ্রান্সে চলমান জরুরী অবস্থা আরও তিন মাস বাড়তে চলেছে। বুধবার প্যারিসের সেন্ট ডেনিস শহরতলীর ফ্ল্যাটে পুলিশী অভিযানের সময় আবাউদ মারা যায় বলে বৃহস্পতিবার ফরাসী প্রসিকিউটর দফতর জানিয়েছে। এ খবরকে স্বাগত জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন ফরাসী প্রধানমন্ত্রী ম্যানুয়েল ভালস। ওদিকে ফ্রান্সে রাসায়নিক ও জীবাণু অস্ত্রের হামলা হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার পার্লামেন্টে এ তথ্য জানান তিনি।

বুধবার সেন্ট ডেনিসে ওই অভিযানে দুই জঙ্গী নিহত হয়। নিহতদের মধ্যে একজন নারী ছিল। ওই নারী আবাউদের কাজিন বলে খবরে বলা হয়েছে। ফরাসী প্রসিকিউটর অফিস এক সংক্ষিপ্ত বিবৃতিতে জানায়, নিহতদের মধ্যে আবদেল হামিদ আবাউদ রয়েছে। আমরা এই মাত্র বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী ভালস বলেন, আমরা জানি আবাউদ গত শুক্রবারের হামলার অন্যতম হোতা। বুধবার পুলিশী অভিযানে মারা গেছে আবাউদ। খবর বিবিসি, এএফপি, ওয়াশিংটন পোস্ট ও আলজাজিরার।

প্যারিসে শুক্রবারের হামলার পর একই শহরে আরও সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা ছিল আইএসের। সন্ত্রাসী সংগঠনটির দ্বিতীয় টার্গেট ছিল প্যারিসের বাণিজ্যিক এলাকা বলে দেশটির একাধিক সূত্র জানতে পেরেছে। ওদিকে প্যারিসের পর এবার নিউইয়র্কে হামলার ছক কষেছে সন্ত্রাসী সংগঠন আইএস। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই এবং নিউইয়র্ক পুলিশ একটি ভিডিও ফুটেজ পরীক্ষা করে এ বিষয়ে আভাস পেয়েছে। এ জন্য পুরো নিউইয়র্ককে নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের যত রাষ্ট্র আইএসবিরোধী অভিযানে অংশ নিয়েছে সেসব দেশে নাশকতার হুমকি দিয়েছে আইএস। প্যারিসে ইতোমধ্যে ভয়াবহ হামলা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের বড় শহরগুলো যে আইএসের হিটলিস্টে থাকবে- তা মার্কিন প্রশাসনের আগে থেকেই জানা। কিন্তু আইএস এবার ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করে নিউইয়র্কে হামলা চালানোর হুমকির বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে ভাবছে ওবামা প্রশাসন। নিউইয়র্ক পুলিশের ডেপুটি কমিশনার স্টিফেন ডেভিস বলেছেন, নিউইয়র্কজুড়ে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য পুলিশ ও গোয়েন্দারা প্রস্তুত রয়েছেন।

এফবিআই জানিয়েছে যে, ভিডিও ফুটেজের মাধ্যমে আইএস নিউইয়র্ককে তাদের পরবর্তী টার্গেট বলে ঘোষণা করেছে, সেই ফুটেজের কিছু কিছু অংশ পুরনো বা আগে হাতে আসা হুমকি ফুটেজের অংশবিশেষ। তবে এই ফুটেজে নতুন রেকর্ড করা বিষয়ও রয়েছে। প্যারিস হামলার পর এমন হুমকিকে হালকাভাবে নেয়া যাচ্ছে না। প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলার প্রেক্ষিতে জরুরী অবস্থার মেয়াদ বৃদ্ধির ব্যাপারে ফরাসী পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী ভালস বলেন, আমাদের কোন ধরনের ঝুঁকির সম্ভাবনাই উড়িয়ে দেয়া উচিত নয়। তিনি বলেন, ফ্রান্সের বিরুদ্ধে রাসায়নিক ও জীবাণু হামলা হতে পারে।

এ সময় ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে চলাচলকারী বিমান যাত্রীদের তথ্য একে-অন্যকে সরবরাহ করা উচিত বলে মত দেন ভালস। জরুরী অবস্থা সম্প্রসারণ নিয়ে বিতর্কে তিনি আইনপ্রণেতাদের উদ্দেশে বলেন, ইউরোপের জন্য এ পদক্ষেপ নেয়া। ইউরোপীয় ইউনিয়নের ভেতরেসহ যাত্রী চলাফেরা শনাক্ত করতে পারার নিশ্চয়তা বিধান করা এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি দরকার। এটি আমাদের সামষ্টিক নিরাপত্তার অন্যতম শর্ত। এ সময় নিম্নকক্ষ জরুরী অবস্থা ৩ মাস বাড়ানোর পক্ষে ভোট দিয়েছে আইনপ্রণেতারা। প্রাধানমন্ত্রী বলেন, ফরাসী নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্য এ জরুরী অবস্থা বাড়ানো দরকার। আর রাষ্ট্রপ্রধান এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে পারেন বলে জানান তিনি। ওদিকে প্যারিস হামলার মূলহোতা আবাউদ স্পেনে বাস করার সময় স্পেনের অনেক নারীকে দলে টানার চেষ্টা চালায় বলে বৃহস্পতিবার স্পেনের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে সে এ প্রচেষ্টা চালিয়েছে।

গত আগস্টে প্যারিসের একটি মেট্রো হামলা এবং এপ্রিলে একটি চার্চে বানচাল হয়ে যাওয়া হামলা পরিকল্পনার সঙ্গেও আবাউদের যোগসূত্র রয়েছে বলে ফরাসী কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

সিদ আহমেদ গলাম নামে ফ্রান্সের এক শিক্ষার্থীকে হত্যাচেষ্টা ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ঘটানোর অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়। এই গলামের সঙ্গেও আবাউদের যোগাযোগ ছিল।

এক ফরাসী পত্রিকার খবরে বলা হয়েছে, গলামের ঘরে যেসব কাগজপত্র পাওয়া গেছে এবং তার কম্পিউটার ও টেলিফোনের তথ্য অনুসন্ধান করে যেসব তথ্য পাওয়া গেছে, তা থেকে জানা যায়, সিরিয়ায় এমন একজনের সঙ্গে তার যোগাযোগ ছিল, যিনি ফরাসী ভাষা বলতে পারেন। সিরিয়ার ওই ব্যক্তিই তাকে চার্চে হামলা করতে বলেছিলেন।