২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নারী-পুরুষের সমতায় এশিয়ার সেরা বাংলাদেশ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ লিঙ্গ সমতায় অগ্রগতি অর্জন করেছে বাংলাদেশ। নারী-পুরুষের ব্যবধান কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে ধারাবাহিক উন্নতির মধ্য দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। গত এক বছরে সবচেয়ে বেশি অগ্রগতি হয়েছে স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে। বিশ্বের ১৪৫টি দেশে নারীর পরিস্থিতি নিয়ে করা এ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান এবার ৬৪তম। গতবছর ১৪২টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ছিল ৬৮ নম্বরে। জেনেভাভিত্তিক বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম বুধবার ‘বিশ্ব লিঙ্গ বৈষম্য প্রতিবেদন ২০১৫’ প্রকাশ করে। অর্থনৈতিক অংশগ্রহণ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও নারীর ক্ষমতায়ন-এই চার মাপকাঠির ভিত্তিতে প্রতিবছর এ সূচক প্রকাশ করা হয়।

সূচকে বাংলাদেশের অবস্থানের উন্নতির পাশাপাশি স্কোরেও অগ্রগতি হয়েছে। গত বছর বাংলাদেশের স্কোর ছিল শূন্য দশমিক ৬৯৭, এবার তা বেড়ে শূন্য দশমিক ৭০৪ হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি অগ্রগতি হয়েছে স্বাস্থ্য খাতে। এই মাপকাঠিতে আগের বছর বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১২২তম, এবার ২৭ ধাপ এগিয়ে

৯৫তম অবস্থানে উঠে এসেছে । এক্ষেত্রে বাংলাদেশের স্কোর শূন্য দশমিক ৯৭১।

বাংলাদেশ গতবছরের তুলনায় দুই ধাপ করে এগিয়েছে নারীর শিক্ষা ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়নেও। শিক্ষায় অংশগ্রহণে এবার বাংলাদেশের অবস্থান ১০৯তম, স্কোর শূন্য দশমিক ৯৪৮। গত বছরের মতো এবারও প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষায় নারীর অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে বিশ্বে প্রথম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। তবে উচ্চ শিক্ষায় নারীর অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে গতবছরের ১১৮তম অবস্থান থেকে পিছিয়ে এসেছে ১১৯তম অবস্থানে।

রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে গতবারের দশম থেকে এগিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান এবার অষ্টম; স্কোর শূন্য দশমিক ৪৩৩। তবে অর্থনৈতিক কর্মকা-ে নারীর অংশ গ্রহণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ গতবারের চেয়ে দুই ধাপ পিছিয়ে ১৩০তম অবস্থানে এসেছে। স্কোর গতবারের শূন্য দশমিক ৪৭৭ থেকে কমে এবার শূন্য দশমিক ৪৬২ হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শ্রীলঙ্কার অবস্থান বাংলাদেশের ১৬ ধাপ পেছনে, ৮৪ নম্বরে। গতবছরের সূচকে ৭৯তম অবস্থানে ছিল শ্রীলঙ্কা। ভারত, ভুটান ও নেপাল এবার উন্নতি করেছে। তবে এখন বাংলাদেশের পেছনে। ভারতের অবস্থান ১১৪ থেকে এগিয়ে ১০৮, ভুটান ১২০ থেকে ১১৮ এবং নেপাল ১১২ থেকে দুই ধাপ এগিয়ে ১১০তম অবস্থানে উঠে এসেছে। অন্যদিকে মালদ্বীপ ১০৫ থেকে পিছিয়ে ১১৩তম এবং পাকিস্তান ১৪১তম অবস্থান থেকে পিছিয়ে ১৪৪ নম্বরে রয়েছে। পাকিস্তানের পরে এ তালিকার একমাত্র দেশ ইয়েমেন, যারা গতবছরও সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে ছিল।