২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জামায়াতের হরতাল ডাকার কোন অধিকার নেই ॥ ডাঃ ইমরান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডাঃ ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, যুদ্ধাপরাধী ও জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ও বিএনপি নেতা সাকা চৌধুরীর ফাঁসির রায় কার্যকরে কালক্ষেপণ করা হলে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি সহিংসতার সুযোগ নেবে। বৃহস্পতিবার মুজাহিদের মৃত্যুদ-ের রায়ে জামায়াতের হরতালের প্রতিবাদে রাজধানীর শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চের অবস্থান কর্মসূচীতে ইমরান এসব কথা বলেন।

জামায়াত নিষিদ্ধের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, জামায়াতে ইসলামী তাদের কর্মকা-ের জন্য ইতোমধ্যে একটি অবৈধ সংগঠনে পরিণত হয়েছে। তাই আর কালক্ষেপণ না করে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করুন। স্বাধীনতাবিরোধী গোষ্ঠীর এই দেশে রাজনীতি করার কোন অধিকার নেই। তারা স্বাধীন দেশে থেকে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বাধাগ্রস্ত করার জন্যই এ হরতাল মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে এই হরতাল কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। অবৈধ একটি সংগঠনের হরতাল ডাকার কোন অধিকার রয়েছে বলে আমি মনে করি না। হরতালের নামে রাজপথে নেমে কোন ধরনের সহিংসতা করার অধিকার কারও নেই।’

তিনি বলেন, সম্প্রতি লেখক, প্রকাশক, ব্লগার হত্যাকা-ে যারাই গ্রেফতার হয়েছে, তারা জামায়াত-শিবিরের কর্মী। এ থেকে বোঝা যায়, যুদ্ধাপরাধের বিচার বাধাগ্রস্ত করতে জামায়াত-শিবির জঙ্গী তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই আর কালক্ষেপণ না করে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি জানান তিনি।

সাধারণ মানুষ জামায়াতের হরতাল প্রত্যাখ্যান করেছে উল্লেখ করে গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র বলেন, ‘তাদের ডাকা হরতাল সফল হয়নি। সারাদেশে আমাদের সকল কর্মী এবং মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিরা হরতালের প্রতিবাদে রাজপথে আছেন। যেখানেই সহিংসতার চেষ্টা করা হবে সেখানেই দুষ্কৃতকারীদের ধরে আইনের কাছে সোপর্দ করা হবে।

রায় কার্যকরে কালক্ষেপণ করা হলে সেই স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি সহিংসতার সুযোগ নেবে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, যেহেতু সকল আইনী প্রক্রিয়া শেষ এবং কুখ্যাত দুই যুদ্ধাপরাধীর বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি হয়ে আছে, তাই দ্রুত রায় কার্যকর করুন। তাদের প্রতি আর কোন রকমের সহানুভূতি দেখানো ঠিক হবে না। ওরা যতক্ষণ বেঁচে থাকবে ততক্ষণ দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র চলবে। যতদিন এই রায় কার্যকর না হবে ততদিন গণজাগরণ মঞ্চ রাজপথে অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচী চালিয়ে যাবে বলে জানান ইমরান এইচ সরকার।