২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নিজ দেশে প্রথম দলের ৬২ জনের এক রাত অতিবাহিত

নিজ দেশে প্রথম দলের ৬২ জনের এক রাত অতিবাহিত

স্টাফ রিপোর্টার,নীলফামারী ॥ কোন পরিবারে দুই বা ৪ জন সদস্য, কারো ৯ সদস্য। চারশত বর্গফুটের লম্বা একটি ঢেউ টিনের ঘর। ভেতরে দুটি থাকার রুম। সাথে নিয়ে যাওয়া সংসারের জিনিষপত্র। মাথা পিছু নারী পুরুষদের জন্য পৃথক ২০ জন করে একটি শৌচাগার। বাংলাদেশের থেকে যাওয়া ভারতীয় ভূখন্ডের মানুষদের জন্য তৈরি করা ভারতের মেখলিগঞ্জ থানার ভোটবাড়ি অস্থায়ী ক্যাম্পে প্রথম দলটির ৬২ জনের একটি রাত পার হলো ওই ক্যাম্পে। এভাবেই তাদের আগামী দুই বছর থাকতে হবে। এরপর স্থায়ীভাবে পাকা ঘর নির্মান করে দেবে ভারত সরকার।

আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় এ বিষয় নিয়ে মুঠোফোনে কথা হয় ভারতের ছিটমহল বিনিময়ের সম্বন্ময় নেতা দীপ্তিমান সেনগুপ্তর সাথে, তিনি বলেন অস্থায়ী ক্যাম্পে কিছু সমস্যা রয়েছে। এটি প্রশাসনের কাছে আমরা বিষয়গুলি তুলে ধরব। তবে তিনি জানান যারা এসেছে এবং আসছে তাদের জন্য ভারত সরকার পুরো একমাস তৈরী খাবার সরবরাহ করবে। এরপর বিনামূল্যে রেশন দেয়া হবে। আর স্থায়ীভাবে পাকা বাড়ি নির্মান করে দেয়া হবে। ভারত সরকার এ জন্য অতিরিক্ত দুই বছর সময় নিয়েছে। কিন্তু স্থায়ী বসবাসের ঘর এক বছরের মধ্যে তৈরী করতে আমরা প্রশাসনকে বলেছি। পাশাপাশি স্থায়ী কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে।

বৃহস্পতিবার (১৯ নবেম্বর) দুপুর দুইটায় বুড়িমারী - চ্যারাবান্ধা অভিবাসন সীমান্ত পথ দিয়ে বাংলাদেশের মধ্যে থাকা গতামারি ও লতামারি সাবেক ছিটমহল থেকে প্রথম দফায় ৬২ জন বাসিন্দা স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য ভারত গমন করেন। এই দলে ২৯ দিনের শিশু কন্যা দশমীকে নিয়ে গেছের মা স্বপ্না বর্মন। এই শিশুটি সদ্য জন্ম নেয়ায় তাঁর নাম জনগণনায় ছিল না। প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়, এ দিন ৬৭ জন ভারত যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ছয়জন যায়নি।