২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এবার হোয়াইট হাউস উড়িয়ে দেয়ার হুমকি আইএসের

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বিশ্বশক্তিগুলোর সমর্থন পেতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে একটি খসড়া প্রস্তাবনা পেশ করেছে ফ্রান্স। আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায়ে ফরাসী প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদের কৌশলেরই অংশ এটি বলে মনে করা হচ্ছে। এদিকে প্যারিসের সেন্ট ডেনিসের একটি এ্যাপার্টমেন্ট থেকে আরও এক নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে তিনটি মৃতদহে উদ্ধার করা হলো। ফ্রান্সে জরুরী অবস্থা চলাকালীন বিক্ষোভ নিষিদ্ধ হলেও সঙ্গীত এবং আলো জ্বালিয়ে শুক্রবারের হামলায় নিহতদের স্মরণ করার আহ্বান জানানো হয়। ফ্রান্সের শিল্পী এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বরা ঠিক যে সময় (রাত ৯.২০ মিনিট) শুক্রবার হামলা হয়েছে সে মুহূর্তকে স্মরণ করতে এ আহ্বান জানান। এদিকে আত্মঘাতী হামলাকারী পাঠিয়ে গাড়িবোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে হোয়াইট হাউস উড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছে আইএস। বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এক ভিডিও বার্তায় এ হুমকি দেয়া হয়। খবর বিবিসি, আলজাাজিরা ও ইনডিপেনডেন্ট অনলাইনের।

ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী মানুয়েল ভালস জানিয়েছেন, ইউরোপে শরণার্থীদের প্রবেশের সুযোগ নিয়ে প্যারিস হামলায় জড়িতদের কয়েকজন ফ্রান্সে প্রবেশ করেছিল।

ফরাসী কর্তৃপক্ষ দাবি করছে, প্যারিসে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার সন্দেহভাজন মূল পরিকল্পনাকারী আবাউদ ফ্রান্সে প্রবেশ করেছিল গ্রিস হয়ে। তবে তিনি শরণার্থী ছিলেন কিনা তা জানা সম্ভব হয়নি। প্যারিসে হামলার পর ১৩ নবেম্বর থেকে ফ্রান্সে জারি করা জরুরী অবস্থা কমপক্ষে তিনমাস বাড়ানো হতে পারে বলেও জানা গেছে।

এর আগে মিসরের সিনাইয়ে রুশ যাত্রীবাহী বিমান সন্ত্রাসী হামলার কারণেই বিধ্বস্ত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে রাশিয়া। এই হামলা আইএস চালিয়েছিল বলে শুরু থেকেই দাবি করেছিল এই জঙ্গী গোষ্ঠী। বিমানটির অধিকাংশ যাত্রীই রুশ। এ ঘটনার পর রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন আইএসের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার ঘোষণা দেন।

অন্যদিকে, সম্প্রতি আইএস দুই অপহৃত ব্যক্তির শিরñেদ করেছে বলে জানিয়েছে। এদের একজন নরওয়ের এবং অপরজন চীনের নাগরিক। আর এ কারণেই ফ্রান্সের এই খসড়া যুদ্ধকৌশলগত প্রস্তাব রাশিয়া কিংবা চীনের ভেটোর শিকার হবে না বলেই আশা করা হচ্ছে।

জাতিসংঘে নিযুক্ত ফরাসী রাষ্ট্রদূত ফ্রান্সিস দেলাত্রি বলেন, খসড়া এই প্রস্তাবনা খুবই সংক্ষিপ্ত কিন্তু শক্তিশালী। এতে আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য বর্ণিত হয়েছে আর তা হচ্ছে আমাদের সবার কমন শত্রু আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা।

তিনি আরও বলেন, আমাদের লক্ষ্য নিরাপত্তা পরিষদের সব অংশীদারকে সঙ্গে নিয়ে এই পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ করা যাতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় একাত্ম হবে বলে আশা করছি।

এদিকে ফরাসী প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদ এ সপ্তাহে ওয়াশিংটন সফর করার পর মস্কোও সফর করছেন। আইএসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বিশ্বশক্তিগুলোর একটি যৌথ জোট গঠনের লক্ষ্যেই তার এই সফর।

আরও এক মৃতদেহ উদ্ধার ॥ প্যারিসের সেন্ট ডেনিসের একটি এ্যাপার্টমেন্টে বুধবার সকালে অভিযানের পর গভীর রাতে সেখান থেকে এক নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ভবনটি তল্লাশির সময় থেকে এ মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। ওই নারী জঙ্গী বোমার সাহায্যে নিজেকে উড়িয়ে দেয়। তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে ঘটনাস্থল থেকে একটি পাসপোর্ট উদ্ধার করা হয়েছে। হাসনা আইতবাওলাসেন নামে এক নারীর পাসপোর্ট এটি। ধারণা করা হচ্ছে, আত্মঘাতী ওই নারীর পাসপোর্ট এটি। হাসনা আইতবাওলাসেন হামলার মূল হোতা আবাউদের চাচাত বোন বলে ধারণা করা হচ্ছে। সাত ঘণ্টাব্যাপী ওই অভিযান শুরুর পর পরই সে নিজেকে বোমার সাহায্যে উড়িয়ে দেয়।

হোয়াইট হাউস উড়িয়ে দেয়ার হুমকি ॥ আত্মঘাতী হামলাকারী পাঠিয়ে গাড়িবোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে হোয়াইট হাউস উড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছে আইএস। বৃহস্পতিবার প্র্রকাশিত একটি ভিডিও বার্তায় এই হুমকি আসে। ছয় মিনিটের ওই ভিডিওর শিরোনাম ‘প্যারিস বিফোর রোম’। অর্থাৎ এর পর রোমে হামলার পরিকল্পনা রয়েছে আইএস জঙ্গীদের। সেই সঙ্গে ফ্রান্সের ওপর আরও হামলা হবে বলেও হুমকি দেয়া হয়েছে ভিডিওতে। ভিডিওটি প্রকাশ করেছে ইরাকের আইএস জঙ্গীরা, যাতে গত সপ্তাহের প্যারিস হামলার ভূয়সী প্রশংসা করা হয়েছে। আর ওই ভিডিও বার্তার একটি ইংরেজী অনুবাদ প্রকাশ করেছে সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ, যারা ইন্টারনেটে জঙ্গী তৎপরতা পর্যবেক্ষণ করে।

ভিডিও বার্তায় দুই জঙ্গী আলাদাভাবে ক্যামেরায় আরবীতে কথা বলতে শুরু করে। তারাই প্যারিসের বিভিন্ন স্থাপনা এবং যুক্তরাষ্ট্রের হোয়াইট হাউস উড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। হুমকি দেয়া হয় যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টকেও। ভিডিওতে এক জঙ্গীকে বলতে শোনা যায়, ‘আমরা বোমার বেল্ট আর গাড়িবোমা দিয়ে তাদের কাবাব বানাব।’

এফবিআইয়ের পরিচালক জেমস কোমে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে ‘প্যারিসের মতো’ কোন হামলার হুমকির বিষয়ে তিনি অবগত নন। তবে পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র জন কিরবি সিএনএনকে বলেছেন, ওই ভিডিওটি তারা পরীক্ষা করে দেখছেন। যুক্তরাষ্ট্র সরকার সব হুমকিই গুরুত্বের সঙ্গে নিচ্ছে।