২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রতি ফাইল ২০০০ টাকা

আমরা বন্দরটিলা পতেঙ্গা, হালিশহর মুসলিমাবাদ ও নারিকেল তলার বিদ্যুত গ্রাহক এসএ্যান্ডডি হালিশহর দফতরে আমরা নতুন বিদ্যুত সংযোগের জন্য আবেদন করলে কার্যালয়ের জনৈক উচ্চমান সহকারী বলে প্রতি ফাইল ২ কিলোওয়াট এর জন্য ২০০০ টাকা অফিস খরচ লাগবে। ২০০০ টাকা না দিলে ফাইল খোলা হয় না। তিনি ছাড়া আর কেউ ফাইল ওপেন করতে পারে না। যদি অন্য কেউ ফাইলের কাজ নেয় তাকে বিভিন্নভাবে হয়রানির মুখোমুখি হতে হয়। এইভাবে দীর্ঘদিন তিনি ক্ষমতা অপব্যবহার করে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন। উক্ত উচ্চমান সহকারী জন্মলগ্ন থেকে এ অফিসে আছে। এ ব্যাপারে নির্বাহী প্রকৌশলী ওএসডিদের সঙ্গে কথা বললে সন্তোষজনক কোন জবাব দিতে পারেনি। আমরা বিদ্যুত গ্রাহক হয়রানির শিকার বিধায় আমাদের আবেদনখানা সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে আমাদের এই কর্মচারীর জুলুম নির্যাতন থেকে রেহাই দেয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করছি।

হাজী আবদুল মান্নান

নারিকেল তলা, জিএম গেট, চট্টগ্রাম।

প্রকৃতির উদারতা সিলেটকে করেছে পর্যটনসমৃদ্ধ। প্রকৃতির আপন মহিমায় গড়ে ওঠা ঝর্ণা পান্থুমাই, জাফলংয়ের স্বচ্ছ জলরাশি, সোয়াম্প ফরেস্ট রাতারগুল, বিছনাকান্দির অপরূপ সৌন্দর্য সিলেটকে দিয়েছে পর্যটন নগরীর খেতাব। প্রকৃতির রূপে মুগ্ধ হতে প্রতিনিয়ত এ অঞ্চলে ভিড় করেন দেশী-বিদেশী পর্যটকরা।

কিন্তু এসব পর্যটন কেন্দ্রে যাওয়ার মতো উপযুক্ত গাইডের ব্যবস্থা সিলেট নগরীতে নেই, এছাড়াও যাতায়াত ব্যবস্থা ও সড়কের বেহাল দশা হওয়ায় পর্যটকদের অহরহ ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হয়। পর্যটন কেন্দ্রের আশপাশে কোন আবাসন ব্যবস্থা না থাকায় পর্যটকদের সন্ধ্যার মধ্যেই সেখান থেকে ফিরে আসতে হয়। এছাড়া ও এসব পর্যটন কেন্দ্রের সঠিক পরিচর্যা না করায় ধীরে ধীরে এদের সৌন্দর্যহানি ঘটছে।

ফলে এসবের চাহিদা কমে যাচ্ছে। পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনা সত্ত্বেও সরকারী ও বেসরকারী উদ্যোগের অভাবে সম্ভাবনার বিকাশ ঘটছে না। সিলেটের পর্যটন শিল্পের সঠিক পরিচর্যা ও বিকাশ ঘটানো সম্ভব হলে এ অঞ্চলের আর্থ সামাজিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন সম্ভব হতো।

নীলাঞ্জনা পুরকায়স্থ

সিলেট

নির্বাচিত সংবাদ