১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাখাইনদের হেতাল পাতায় মোড়া সিদ্ধ পিঠা

সাগরপাড়ের জনপদ কলাপাড়ায় রাখাইনদের পিঠাপুলির রয়েছে আলাদা স্বাদ আর সুখ্যাতি। ধর্মীয় উৎসব ছাড়াও আদিবাসী এ সম্প্রদায় তাদের নিজস্ব ঘরানার এ পিঠা দিয়ে আপ্যায়ন করে নানান ধর্ম-বর্ণের মানুষকে। বিশেষ করে বিন্নি চালের তৈরি এ পিঠা-পুলির রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি। একবার কেউ খেলে এর স্বাদ ভুলতে পারে না। প্রবারণা পূর্ণিমা, বৌদ্ধ পূর্ণিমা কিংবা নীলপূজা, জলকেলী উৎসব ছাড়াও কঠিন চীবরদানসহ নানা অনুষ্ঠানে রাখাইনদের বানানো পিঠার বিকল্প নেই। রয়েছে এ পিঠার ভিন্ন স্বাদ। রাখাইনদের পিঠা তৈরির প্রধান উপকরণ বিন্নি ধানের চাল আর নারকেল। অন্তত ১০/১২ ধরনের পিঠা তৈরি করে রাখাইনরা। অনুষ্ঠানকেন্দ্রিক পিঠা পরিবশন ছাড়াও নিজেদের বিয়েসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পিঠার বিকল্প নেই। রাখাইন পল্লীতে পিঠা খাওয়ার পর সঙ্গে করে আলাদা প্যাকেটে নিয়ে আসতে ভোলে না অনেক ভোজনপ্রিয় মানুষ। তবে নিজস্ব জমিজমা হারিয়ে পিঠাপুলির সেই উৎসবের এখন আর আগের মতো জৌলুস নেই।

দিয়ারামখোলা রাখাইন পল্লীর বাসিন্দা রাখাইন নেতা উথাচিং বাবু জানান, প্রবারণা পূর্ণিমা ও নীলপূজায় আনুষ্ঠানিকভাবে পিঠা বানানোর পর্ব থাকে। অতিথি আপ্যায়নে এ পিঠার বিকল্প নেই। বিন্নি ধানের চাল গুঁড়া করে নারকেল দিয়ে অধিকাংশ পিঠা বানানো হয়। এর মধ্যে পাটিসাপটা, তেলে ভাজা মাইটে পিঠা, হেতাল পাতায় মোড়ানো সিদ্ধ পিঠা, বিন্নি চালের গুঁড়ার সঙ্গে নারকেল মিশিয়ে রসে জাল দিয়ে চিনির সিরায় ভেজানো এক ধরনের পিঠা। একে আবার রসমালাইও বলা হয়। এছাড়া বিন্নি চালের ভাত তেলে ভাজার পরও পরিবেশন করা হয়। কখনও কখনও রাখাইন সম্প্রদায় তাদের তৈরি পিঠামেলার আয়োজন করে। তুলাতলীপাড়ার রাখাইন নারী মায়া জানান, সাধারণত কুলিপিঠা, দুই ধরনের পাটিসাপটা, হেতাল ও রসগোল্লা পিঠা বানানো হয়। পিঠা-পুলির এ আয়োজন তাদের জন্য এখন খুবই কষ্টকর। আর্থিক সঙ্কটই এ সম্প্রদায়ের এখন মূল সমস্যা বলে এক সময়ের দাপুটে এ জনগোষ্ঠী এখন পরিণত হয়েছে ক্ষয়িষ্ণু সম্প্রদায়ে। তারপরও বিভিন্ন ধর্মীয় আচার পালনে পিঠা-পুলির আয়োজন করে থাকে। সাধ আর সাধ্যের সমন্বয় না থাকায় এখন আর রাখাইন পল্লীতে ঘটা করে পিঠা-পুলির আয়োজন হয় না। বসে না পিঠা খাওয়ার আসর। তারপরও শত বছরের পুরণো ঐতিহ্য ধরে রাখতে ছোট্ট পরিসরে আয়োজন করে রাখাইনরা তাদের পিঠা-পুলির আসর।

Ñমেজবাহউদ্দিন মাননু

কলাপাড়া থেকে