২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিরাজদিখানে দেবরকে নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ সিরাজদিখানে দেবরকে লোহার খুন্তির ছ্যাকা ও আচড় দিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলায় চন্দধূল গ্রামের কুয়েত প্রবাসী ইসলাম শেখের স্ত্রী ঝর্ণা শেখ সৎ দেবর শিশু শিপন শেখকে (৬) লোহার খুন্তির ছ্যাকা ও আচড় দিয়ে জখম করে। শুক্রবার বিকালে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শিপনের মা হেলেনা বাদী হয়ে সৎছেলে বউ ঝর্না শেখকে আসামী করে শনিবার সিরাজদিখান থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেছেন। শিপন চন্দনধূল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেনীর ছাত্র।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লতিব শেখের প্রথম পক্ষের ছেলে ইসলাম শেখের বৌ ঝর্ণা সৎ শ্বাশুড়ি ও দেবর শিপনকে সহ্য করতে পারত না। প্রায়ই দেবর শিপনের উপর ঝর্ণা ঈর্সাবশত শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত। এক পর্যায়ে অত্যাচারের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। পরে শুক্রবার বিকালে ঝর্না তার মেয়ে ঈশিতার সাথে খেলাকে কেন্দ্র করে ঝগড়া করে শিপনকে উঠানে ফেলে দুই গালে ও কানে লোহার খুন্তির ছ্যাকা, আচড় দিয়ে জখম করে।

ইছাপুরা ইউনিযনের ১নং ওয়ার্ড সদস্য নবী হোসেন বলেন ঝর্ণ নামে ওই মহিলা অনেক পাজী। আমার সামাজিক ভাবে এ ঘটনার নিন্দা জানাই। থানা পুলিশের মাধ্যমে যেন এর উপযুক্ত বিচার হয়।

শিপনের মা হেলেনা বেগম বলেন, আমার স্বামী ছেলে বউযের অত্যাচারের প্রতিবাদ করতে পারে না। আমাদের টাকা নেই। ওদের টাকা পয়সা থাকায় ওদের বিরুদ্ধে কোন লোক মুখ খুলে না। আমরা ওদের বিচার চাই। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ঝর্না বেগম সাংবাদিকদের সাথে কোন কথা বলতে রাজি হয়নি।

সিরাজদিখান থানার ওসি মোঃ ইয়ারদৌস হাসান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনায় পুলিশ আসামি ঝর্ণাকে গ্রেফতার করেছে। তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের মামলার হয়েছে। মামলা নং ২৭।