২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

'প্যারিস হামলাকারী সিরিয়ায় পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে'

অনলাইন ডেস্ক ॥ বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে প্যারিস স্টাইলে হামলা হতে পারে এই আশঙ্কায় পুরো শহর এখনও অচল হয়ে আছে।

বেশিরভাগ দোকানপাট, শপিং মল, সিনেমা, কফি শপ,যাদুঘর, রেস্তোরা বন্ধ। রাস্তায় সৈন্যরা টহল দিচ্ছে।

হামলার আশঙ্কায় বেলজিয়াম সরকার চূড়ান্ত সতর্কাবস্থা জারি করলে গতকাল শনিবার থেকেই শহরটি কার্যত বন্ধ হয়ে যায়।

আজ রবিবারও শহরের পাতাল রেল চলাচল বন্ধ রয়েছে।

কর্তৃপক্ষ বলছে, নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখার পরেই এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ধারণা করা হয় প্যারিসে হামলাকারীদের একজন সালাহ আবেদস্লাম হামলার পরপরই ফ্রান্স থেকে বেলজিয়ামে ফিরে এসেছেন।

বেলজিয়ামের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, তাকে আটক না করা পর্যন্ত হামলার আশঙ্কা কাটবে না।

তিনি জানান, তার পাশাপাশি আরো কয়েকজন সন্দেহভাজন ব্যক্তির কারণে সরাসরি হুমকি দেখা দিয়েছে।

বেলজিয়ান প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে এই সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সরকারের কাছে খবর আছে অস্ত্র ও বিস্ফোরক সহকারে কয়েকজন মিলে একাধিক স্থানে হামলা চালানো হতে পারে।

সালাহ আবেদস্লামের বন্ধুরা বলেছেন যে তিনি এখনও ব্রাসেলসেই আছেন এবং সেখান থেকে সিরিয়ায় চলে যাওয়ার চেষ্টা করছেন।

তার বন্ধুরা বিবিসিকে বলেছেন যে সালাহ আবেদস্লামের সাথে তাদের স্কাইপে কথা হয়েছে।

ফরাসী সরকার বলছে, প্যারিসের ওপর হামলার পরিকল্পনা করা হয়েছে সিরিয়া থেকে কিন্তু ওই হামলা চালানো হয়েছে বেলজিয়াম থেকে।

ইসলামিক স্টেটের চালানো ওই হামলায় ১৩০ জন নিহত হয়েছে।

সালাহ আবদেস্লামকে ফ্রান্স থেকে গাড়িতে করে বেলজিয়ামে নিয়ে আসা এক ব্যক্তি তার আইনজীবীকে বলেছেন, সে খুব বড়ো একটা জ্যাকেট পরেছিলো, সম্ভবত সেটা সুইসাইড ভেল্টও হতে পারে।

বেলজিয়ান এক টিভিতে তিনি বলেছেন, এটা থেকে মনে হতে পারে যে সালাহ আবেদস্লাম প্যারিসের হামলা চালানোর সময় আত্মঘাতী হামলা চালিয়ে নিজের মৃত্যু ঘটানোর ব্যবস্থা করে রেখেছিলো কিন্তু সেটা করার আগে তিনি হয়তো দ্বিতীয়বার চিন্তা করে দেখেছেন।

তার বন্ধুরা বলেছেন, শরীরের সাথে বেঁধে রাখা বোমার বিস্ফোরণ না ঘটানোয় তিনি তাদের কাছে তার অসন্তোষের কথা জানিয়েছেন। সূত্র-বিবিসি।