১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সরকার পতনে প্রস্তুতির আহ্বান বিএনপির

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সরকার পতনে রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বাত্মক প্রস্তুতির আহ্বান জানিয়েছে বিএনপির অঙ্গ সংগঠন মুক্তিযোদ্ধা দল।

রবিবার দুপুরে মুক্তিযোদ্ধা দলের ব্যানারে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে সংগঠনের নেতারা বলেন, দেশে এখন গণতন্ত্র নেই। তাই গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে দল-মত নির্বিশেষে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটাতে হবে। একই সঙ্গে তারা মুক্তিযোদ্ধা দলের সহ-সভাপতি ও রংপুর মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফফর হোসেনের সন্ধান ও মুক্তি দাবি করেছেন।

এদিকে রবিবার বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো অপর এক বিবৃতিতে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও বাড়িতে তল্লাশির নিন্দা জানিয়েছে বিএনপি। বিবৃতিতে দলটির মুখপাত্র ও আন্তর্জাজিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, শনিবার রাতে মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক ব্যাপারীকে গ্রেফতার এবং সাধারণ সম্পাদক মাহবুব মুন্সীর বাড়িতে পুলিশি তল্লাশির ঘটনায় নিন্দা জানাচ্ছে বিএনপি।

বিবৃতিতে রিপন বলেন, সারাদেশে বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের ধারাবাহিকতায় মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক ব্যাপারীকে গ্রেফতার এবং সাধারণ সম্পাদক মাহবুব মুন্সীর বাড়িতে পুলিশি তল্লাশি চালানো হয়েছে। এছাড়া দেশব্যাপী বিএনপি নেতাকর্মীদের হেনস্তা করতে মামলা দায়ের করা হচ্ছে। এ ধরনের ঘটনার নিন্দা জানাই। তিনি অবিলম্বে মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক ব্যাপারীর বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার করে তার মুক্তি দাবি করেন।

মুক্তিযোদ্ধা দলের নেতাদের বিবৃতিতে বলা হয়, ৭১-এ জাতীর দুঃসময়ে দেশের মুক্তিকামী জনগণকে পাকিস্তানি হানাদারদের ট্যাংক-কামানের সামনে অরক্ষিত রেখে যখন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ নিরাপদ আশ্রয়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন, তখন ছাত্রাবস্থায় মোজাফফর হোসেনের মতো সাহসী সন্তানরা জীবনবাজি রেখে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছিলেন। অথচ এ সরকারের নির্দেশে শুধু রাজনৈতিক কারণে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে সাদা পোশাকে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে তাকে বাড়ি থেকে তুলে নেয়া হয়।

বিবৃতিদাতাদের মধ্যে রয়েছেন মেজর (অবঃ) হাফিজউদ্দীন আহমেদ বীর বিক্রম, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, মেঃ জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রহীম বীর প্রতীক, ইশতিয়াক আজীজ উলফাত, সফীউজ্জামান খোকন, সাদেক আহমেদ খান, মিজানুর রহমান খান বীর প্রতীক, কর্নেল (অব.) মনীষ দেওয়ান, মেজর (অবঃ) আসাদুজ্জামান, আবীদুর রহমান, আলহাজ্ব আবুল হোসেন, মহীউদ্দীন আহমেদ শাহজাহান, ড. শাহ আলম, ইঞ্জিনিয়ার নজরুল ইসলাম, মোকসেদ আলী মঙ্গোলিয়া, অধ্যক্ষ আব্দুল কাইয়ুম, এ্যাডভোকেট আবু বকর সিদ্দিক, মোস্তফা শাহাবুদ্দীন রেজা, নুরুল ইসলাম, এসএম কামাল উদ্দীন, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল হালিম, একরামুল হক, এইচ. আর, সিদ্দিকী সাজু, শহিদুল হক চৌধুরী মিলন, আবু তালেব চৌধুরী, কাজী নাছির আহমেদ, সিরাজ পাটোয়ারী, আব্দুল লতীফ, আব্দুল আহাদ, আতিকুর রহমান, মহসীন সরকার, নূর হোসেন মোল্লা ওয়ালী উল্লাহ বাবুল, মোঃ কুতুবুদ্দীন, আব্দুল মান্নান, মনিরুল ইসলাম ইউসুফ, মোঃ গাওস মিয়া, আব্দুল হাকিম, নুরুল আমীন, কাজী আমীনুর রহমান, আব্দুর রাজ্জাক ভূইয়া রাজা, এ্যাডভোকেট গোলাম মোস্তফা, সানোয়ার হোসেন, রেজাউল করীম, হারুনুর রশীদ, গোলাম হোসেন, নুরুল ইসলাম , এ্যাডভোকেট আব্দুল হালিম, মোঃ হানিফ মিয়া, মহসীন উদ্দীন দুলাল, কমান্ডার আফজাল হোসেন, এ্যাডভোকেট সুলতান মল্লিক, আব্দুল কাদের প্রমুখ।