২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

অনুৎপাদনশীল খাতে অর্থায়ন নয়

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ স্বল্প মেয়াদের ব্যবসায়ভিত্তিক মুদ্রা ও আর্থিক নীতি দিয়ে দীর্ঘমেয়াদের অন্তর্ভুক্তিমূলক, টেকসই ও পরিবেশ বান্ধব প্রয়োজন মেটানো সম্ভব নয় বলে মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নর ড. আতিউর রহমান। এ জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক স্বল্প মেয়াদী ও অনুৎপাদনশীল খাতের অর্থায়নকে নিরূৎসাহিত করে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক বাজার-বান্ধব নীতি ও সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতাকে প্রাধান্য দিয়ে ব্যাংকিং খাতে পরিবর্তন ঘটিয়েছে। উৎপাদনশীল, তথ্যপ্রযুক্তিগত ও টেকসই অর্থায়নের ওপর জোর দেয়ার আহ্বান জানিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক গবর্নর বলেন, আমাদের অন্তর্ভুক্তিমূলক ও পরিবেশবান্ধব অর্থায়নের এই মডেলকে জাতিসংঘ, বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ’র মতো সংস্থাগুলো রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

রবিবার রাজধানীর বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) আয়োজিত বার্ষিক ব্যাংকিং সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দু’দিনব্যাপী সম্মেলনে চারটি সেশন রয়েছে; প্রত্যেক সেশনে একজন চেয়ারম্যান ও চারজন প্যানেলিস্ট আছেন। এই সম্মেলনে ২৬টি কী-নোট পেপার উপস্থাপন করা হবে। এর মধ্যে ১২টি প্রবন্ধ সম্মেলনের প্রথম দিন উপস্থাপন করা হয়। নেপাল, মালেশিয়া ও ভারতের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা এই সম্মেলনে তাঁদের গবেষণামূলক আর্টিকেল উপস্থাপন করেন।

ড. আতিউর রহমান বলেন, সামষ্টিক আর্থিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার প্রচলিত ধারার পাশাপাশি বাংলাদেশ ব্যাংক অন্তর্ভুক্তিমূলক টেকসই উন্নয়নে কাজ করছে।

স্বল্প মেয়াদের ব্যবসায়ভিত্তিক মুদ্রা ও আর্থিক নীতি দিয়ে দীর্ঘমেয়াদের অন্তর্ভুক্তিমূলক, টেকসই ও পরিবেশবান্ধব প্রয়োজন মেটানো সম্ভব নয় বলে মনে করেন তিনি। এজন্য বাংলাদেশ ব্যাংক স্বল্প মেয়াদী ও অনুৎপাদনশীল খাতের অর্থায়নকে নিরূৎসাহিত করে উৎপাদনশীল, তথ্যপ্রযুক্তিগত ও টেকসই অর্থায়নের ওপর জোর দিয়েছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক বাজার-বান্ধব নীতি ও সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতাকে প্রাধান্য দিয়ে ব্যাংকিং খাতে পরিবর্তন ঘটিয়েছে। গবর্নর বলেন, আমাদের অন্তর্ভুক্তিমূলক ও পরিবেশবান্ধব অর্থায়নের এই মডেলকে জাতিসংঘ, বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ’র মতো সংস্থাগুলো রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

ড. আতিউর রহমান বলেন, কয়েকটি ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণে দুর্বলতার কারণে কিছু অনিয়মের ঘটনা ঘটেছে। এ কারণে বাংলাদেশ ব্যাংক তার সুপারভিশন কৌশলে কৌশলগত পরিবর্তন এনেছে। আর্থিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক কর্পোরেট সুশান এবং পর্ষদের জবাবদিহিতা ও দায়-দায়িত্বের ক্ষেত্রে তত্ত্বাবধানের ওপর জোর দেয়া হয়েছে। অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ কাঠামো শক্তিশালী করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক রীতিনীতির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ঝুঁকি চিহ্নিতকরণ, পরিমাপ ও ঝুঁকি প্রশাসনের প্রক্রিয়া নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া সুপারভিশনে তথ্যপ্রযুক্তির প্রয়োগ বিদ্যমান দুর্বলতাগুলোকে উত্তরণে সহায়তা করবে বলে আশা করা যায়। তিনি আরও বলেন, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতের আকার অনেক গুণ বেড়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি। বেসরকারী খাতের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণসহ ব্যাংকিং খাতে এসেছে ব্যাপক অবকাঠামোগত ও নীতিগত সংস্কার।

বাংলাদেশ ব্যাংক বাজার-বান্ধব নীতি ও সামষ্টিক অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতাকে প্রাধান্য দিয়ে ব্যাংকিং খাতে এই পরিবর্তন ঘটিয়েছে। বর্তমান সময়ে পরিবেশগত ঝুঁকি থেকে পৃথিবীকে রক্ষা করা বড় চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নর বলেন, সৌরশক্তি, বায়োগ্যাস, বর্জ্য পরিশোধন প্লান্ট ও পরিবেশবান্ধব ইটভাঁটি স্থাপন, বায়োগ্যাসের মাধ্যমে বিদ্যুত উৎপাদন ও সৌরশক্তি চালিত সেচ যন্ত্রে অর্থায়নের উদ্যোগ নিচ্ছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এই উদ্যোগের ফলে আমরা দ্রুত পরিবেশগত ঝুঁকি থেকে আমাদের দেশ ও পৃথিবীকে রক্ষা করতে পারব।

উদ্বোধনী পর্বে স্বাগত বক্তব্য রাখবেন সম্মেলন ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শাহ মোঃ আহসান হাবিব। এছাড়া জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্ট স্কুলের এক্সিকিউটিভ শিক্ষার পরিচালক আন্দ্রে ইমজার স্কাইপের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এ সময় ‘বিআইবিএম-ফ্রাঙ্কফুর্ট স্কুল অব ফাইন্যান্স এ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট জয়েন্ট সার্টিফিকেশন প্রোগ্রাম অন সার্টিফাইড এক্সপার্ট ইন রিক্স ম্যানেজমেন্ট’ প্রোগ্রামেরও আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন গবর্নর। এতে বক্তব্য রাখবেন বাংলাদেশ ব্যাংক ট্রেনিং একাডেমির অধ্যক্ষ কেএম জামসেদ উজ-জামান। সম্মেলনে বিআইবিএমের মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমদ চৌধুরী ২০১৪ সালে ব্যাংকিং খাতের ওপর একটি গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন। প্রবন্ধে তিনি বলেন, ঝুঁকিভিত্তিক অডিট, ব্যাংক পরিচালনার ম্যানুয়াল, বার্ষিক প্রতিবেদন প্রস্তুত, আইসিসিডি প্রধান ও কর্মকর্তার দক্ষতার ইত্যাদির বিষয়ে গত এক বছরে ব্যবধানে চোখে পড়ার মতো কোন উন্নয়ন হয়নি। অর্থাৎ অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রলে দুর্বলতা রয়েছে গেছে।

ব্যাংকের একজন ডিএমডিকে আইসিসিডির প্রধান হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। তিনি প্রধান নির্বাহী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। এমন নিয়ন্ত্রিত ব্যক্তি দ্বারা অভ্যন্তরীণ ঝুঁকি চিহ্নিত ও নিরসন করা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, ব্যাংকগুলোতে কিছু বড় ধরনের অনিয়মের ঘটনার পর আইসিসির গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। ব্যাংকগুলোর ঠকার পর শিখছে।

মূল প্রবন্ধে ব্যাংকের আইনকানুন, ঋণ, বাণিজ্য, ট্রেজারি, ইসলামিক ব্যাংকিং, আর্থিক অন্তর্ভুক্তি ও মানবসম্পদ বিষয়ে আলোচনা করেন ড. তৌফিক।

উদ্বোধনী পর্বের পর ‘সামষ্টিক ও আর্থিক স্থিতিশীলতা’ শীর্ষক পর্বে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. ফয়সাল আহমেদ। এছাড়া ‘হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট এ্যান্ড ইনফরমেশন কমিউনিকেশন টেকনোলজি ইন ব্যাংকস’ শীর্ষক পর্বে সভাপতিত্ব করেন এসএ চৌধুরী।

সেমিনারে বাংলাদেশ ব্যাংকের সিনিয়র ইকোনমিক এ্যাডভাইজর ড. ফয়সাল আহমেদ, বিআইবিএমের একে গঙ্গোপাধ্যায় চেয়ার প্রফেসর এসএ চৌধুরী, বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, খ্যাতনামা অর্থনীতিবিদ, গবেষকরা উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলনের দ্বিতীয় ও শেষ দিন সকালে তৌফিক আহমদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদ। ‘ফিন্যান্সিয়াল ইনক্লুশন এ্যান্ড সাসটেইনেবল ব্যাংকিং’ শীর্ষক পর্বে সভাপতিত্ব করবেন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম। ‘কর্পোরেট গবর্ন্যান্স এবং রিস্ক ম্যানেজমেন্ট ইন ব্যাংকস’ শীর্ষক পর্বে সভাপতিত্ব করবেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গবর্নর এসকে সুর চৌধুরী।