১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দিনাজপুরে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠে

সাজেদুর রহমান শিলু, দিনাজপুর ॥ পৌরসভা নির্বাচনে এলাকা সরগরম। নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে কেউ কেউ ইতোমধ্যেই প্রচারণা শুরু করেছেন। আবার কারও প্রচারণা চলছে কয়েক মাস ধরেই। দলীয় প্রতীকে নির্বাচনের সিদ্ধান্তে দীর্ঘদিন ধরে লবিংয়ে থাকা নেতারা বাদ পড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। আসন্ন পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ থাকলেও বিরোধীদলে থাকা সম্ভাব্য প্রার্থীদের কর্মকা- তেমনটি দেখা যাচ্ছে না। তবে কাউন্সিলর পদের প্রার্থীরা নিজেদের অবস্থান জানান দিতে ধর্মীয় ও সামাজিক উৎসবকে ঘিরে বিভিন্ন শুভেচ্ছা ব্যানারে ছেয়ে ফেলেছে রাস্তার অলিগলি। দিনাজপুর পৌরসভার বর্তমান মেয়র জেলা বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম ৫ বছর যাবত মেয়র পদে থাকলেও প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা এবং জেলা শহরের পৌরসভা হিসেবে তেমন একটি উন্নয়ন করতে পারেননি। পাশাপাশি সাম্প্রতিক সময়ে তার দলীয় সম্পৃক্ততাও ছিল খুব কম। তবে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক অস্থিরতায় মামলা-মোকাদ্দমায় জড়াননি তিনি। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে তার সম্ভাবনা থাকলেও দলের কিছু নেতাকর্মীর মাঝে তাকে নিয়ে বিরূপ মনোভাব রয়েছে। নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে রয়েছেন জেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আখতারুজ্জামান জুয়েল। এর আগে তিনি উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। মনোনয়ন পাওয়ার আশায় তিনি বিভিন্ন প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। এই পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন বিএনপির আরেক নেতা ও সাবেক প্যানেল মেয়র আলতাফ উদ্দিন। দীর্ঘসময় ধরে পৌরসভায় মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে প্রচারণা চালিয়ে আসছেন বর্তমান পৌর কাউন্সিলর ফয়সল হাবিব সুমন।

এদিকে আ’লীগ থেকে পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী হিসেবে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে আসছেন শহর আ’লীগের সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম। রাজনৈতিক কর্মকা-ের পাশাপাশি পেশায় তিনি ঠিকাদার ও ব্যবসায়ীদের সংগঠন দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্সের সহ-সভাপতি। দীর্ঘদিন ধরে তিনি প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে আসছেন এবং এখন পর্যন্ত এ দিক দিয়ে শীর্ষে রয়েছেন তিনি। পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে নাম রয়েছে সাবেক পৌর আ’লীগের সভাপতি তৈয়ব উদ্দিন চৌধুরীর। প্রচার না থাকলেও পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন কোতোয়ালি আ’লীগ নেতা বিশ্বজিত ঘোষ কাঞ্চন। আ’লীগ থেকে মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় রয়েছেন জেলা আ’লীগের উপ-দফতর সম্পাদক কাজী তাজউল সামস প্রিন্স। তিনি রাজনীতির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত। আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনে যেতে আগ্রহী সাবেক পৌর মেয়র সফিকুল হক ছুটু। তিনি এক সময়কার জাতীয় পার্টির নেতা ছিলেন। পৌরসভা নির্বাচনে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন পেতে আগ্রহী জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আহমেদ শফি রুবেল। এছাড়াও জামায়াত থেকে পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন জেলা জামায়াতের সদস্য ও জেলা আইনজীবী সমিতির ধর্মবিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট মাইনুল আলম। আর নিজেকে জানান না দিলেও প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে সাবেক পৌরসভা চেয়ারম্যান ও ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা সৈয়দ মোকাদ্দেক হোসেন লাবুর। প্রচারণার দৌড়ে রয়েছে জেলা জাগপার সভাপতি রকিবউদ্দিন চৌধুরী মুন্নাও।