২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পাকিস্তান-ভারত সিরিজ বাংলাদেশে!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ পাকিস্তান-ভারত সিরিজ ঘিরে নাটক অব্যাহত। কখনও শোনা যাচ্ছে বহুল আলোচিত সিরিজটি ঝুলে গেছে। আবার ভারত এটি নিজেদের মাটিতে খেলতে চায়, নিরাপত্তা ও আনুষঙ্গিক কারণে পাকিস্তান কিছুতেই প্রতিপক্ষ দেশে যেতে রাজি নয়। ঘরের মাটির ফিরতি সিরিজটি তারা নিরপেক্ষ ভেন্যু আরব আমিরাতেই খেলতে চাইছে। নতুন খবর, ডিসেম্বরে প্রস্তাবিত পাক-ইন্দো সিরিজের ভেন্যু হিসেবে এবার বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কার নামও উঠে এসেছে! শক্তিশালী সংবাদ মাধ্যম দ্য টেলিগ্রাফের সংবাদে এমন ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে। সুতরাং সিরিজটি দু’দেশের কোথাও আয়োজনের বিষয়টি উড়িয়ে দেয়া যায় না।

দ্বিপাক্ষিক পর্যায়ে সর্বশেষ ২০১৩ সালে সিরিজ খেলেছিল দেশ দু’টি। পত্রিকাটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানতে পেরেছে, ইন্ডিয়ান বোর্ড (বিসিসিআই) শেষ পর্যন্ত নিজেদের মাটিতে ব্যর্থ হলে প্রতিবেশী দু’দেশ বাংলাদেশ অথবা শ্রীলঙ্কায় সিরিজটি খেলার বিষয়টি সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করছে। বিসিসিআই সভাপতি ও ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর এমন ভাবনা নিয়েই দুবাইয়ে পাকিস্তান বোর্ড (পিসিবি) প্রধান শাহরিয়ার খানের সঙ্গে আলোচনা করেন বলে জানা যায়। এন শ্রীনিবাসন বিসিসিআই সভাপতি থাকাকালে পিসিবির সঙ্গে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর করেছিলেন। সেই চুক্তি অনুযায়ী ভারত পাকিস্তানের সঙ্গে খেলতে অঙ্গীকারবদ্ধ, যেখানে এই সিরিজটি হবে পাকিস্তানেরই ‘হোম’ সিরিজ। ২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কান দল বহনকারী বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকেই পাকিস্তান আমিরাতকে হোম ভেন্যু হিসেবে ব্যবহার করে আসছে।

যেহেতু এটা পাকিস্তানের ‘হোম’ সিরিজ তাই সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকার কেবল পিসিবিরই। পিসিবির নির্বাহী কমিটির প্রধান নাজাম শেঠী বলেন, ‘আমাদের পরিষ্কার কথা, পাকিস্তান সরকারের অনুমতি ছাড়া আমরা ভারতে খেলতে পারি না, যে অনুমতিটা আমাদের দেয়া হয়নি। ভারতে খেলার ব্যাপারে সরকার ক্রিকেটারদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে।’ তিনি অনেকটা ক্ষোভের সঙ্গে আরও যোগ করেন, ‘আমি ঠিক বুঝতি পারছি না, ভারত কোন্ যুক্তিতে আরব আমিরাতে খেলতে রাজি হচ্ছে না। এমনকি তারা সম্প্রতি (২০১৪) সেখানে ঘরোয়া আইপিএলের ম্যাচও খেলেছে। বিসিসিআইর কাছ থেকে আমরা ইতিবাচক পদক্ষেপের অপেক্ষায় আছি। তবে আমাদের অবস্থান স্পষ্ট, কিছুতেই ভারতে যাচ্ছি না। এটা যেহেতু আমাদের হোম সিরিজ অর্থাৎ ভেন্যু ঠিক করার অধিকার কেবল পিসিবির।’

এ নিয়ে রবিবার দুবাইয়ে অনির্ধারিত এক সভায় বসে দুই বোর্ড প্রধান ভারতের মনোহর ও পাকিস্তানের শাহরিয়ার। তবে সেখানেও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। কারণ দু’দেশই পুনরায় নিজ নিজ বক্তব্য আওড়েছেন। তাই বিকল্প ভেন্যু হিসেবে বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। দু’টি দেশেই ডিসেম্বরের মাঝামাঝি থেকে জানুয়ারি পর্যন্ত কোন সিরিজ নেই। অবশ্য ১৫ ডিসেম্বর বিপিএল শেষ হওয়ার পর ৫ জানুয়ারি থেকে ঘরের মাটিতে জিম্বাবুইয়ের সঙ্গে টেস্ট সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। সেক্ষেত্রে শ্রীলঙ্কাই এগিয়ে থাকবে।