২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চট্টগ্রামে আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব

চট্টগ্রামে আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব

সংস্কৃতি ডেস্ক ॥ চট্টগ্রামের নাট্য সংগঠন নান্দীমুখ প্রতিষ্ঠার ২৫ বছর উদ্যাপন করছে। এ উপলক্ষে চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমিতে ৯ দিনব্যাপী ‘নান্দীমুখ আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব ২০১৫’ শিরোনামের উৎসবের আয়োজন করতে যাচ্ছে দলটি। এই নাট্যোৎসবে বাংলাদেশ, ভারত, নরওয়ে ও নেপালের মোট ৯টি নাট্যদল তাদের প্রশংসিত নাট্যপ্রযোজনাসমূহ মঞ্চায়ন করবে। উৎসবে ছয় গুণী নাট্যজনকে সম্মাননা দেয়া হবে। এছাড়া প্রতিদিন অনিরুদ্ধ মুক্তমঞ্চে থাকবে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। আগামী ২৭ নবেম্বর শুক্রবার এ উৎসবের উদ্বোধন হবে। উৎসব চলবে ৫ ডিসেম্বর শনিবার পর্যন্ত।

আয়োজক কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন নাট্যব্যক্তিত্ব আতাউর রহমান। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন উৎসবের উদ্বোধন করবেন। নান্দীমুখের প্রধান অভিজিৎ সেনগুপ্তর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ।

আয়োজক সূত্র জানায় আগামী ২৭ নবেম্বর শুক্রবার সন্ধ্যায় উৎসবের উদ্বোধনী দিন ভারতের নাট্যদল অসম রঙ্গ কথা পরিবেশন করবে তাদের অন্যতম প্রশংসিত প্রযোজনা ‘সূত্র’। নাটকটি রচনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন নিরঞ্জন ভূঁইয়া। ২৮ নবেম্বর ভারতের গোবরডাঙা নকসা তাদের ‘বিনোদিনী’ নাটকটি মঞ্চায়ন করবে। নাটকটি রচনা করেছেন মৌনাক সেনগুপ্ত ও নির্দেশনা দিয়েছেন আশীষ কুমার দাশ। ২৯ নবেম্বর নেপালের মান্দালা থিয়েটার পরিবেশন করবে ‘সারজমিন’। পুশকার শমসেরের ছোটগল্প অবলম্বনে নাটকটি রচনা এবং নির্দেশনা দিয়েছেন প্রউন কাটিওয়াদা। ৩০ নবেম্বর ভারতের প্রাচ্য পরিবেশন করবে ‘টিপুর স্বপ্ন’। মূল নাটক গিরিশ কার্নাড, রূপান্তর করেছেন রতন কুমার দাস ও নির্দেশনা দিয়েছেন বিপ্লব বন্দ্যোপাধ্যায়। ১ ডিসেম্বর ঢাকার নাট্যতীর্থ পরিবেশন করবে ‘কঙ্কাল’। নাটকটি রচনা করেছেন রবিউল আলম এবং নির্দেশনা দিয়েছেন তপন হাফিজ। ২ ডিসেম্বর আয়োজক সংগঠন নান্দীমুখ পরিবেশন করবে অভিজিৎ সেনগুপ্ত রচিত ও নির্দেশিত নাটক ‘তবুও মানুষ’। ৩ ডিসেম্বর ভারতের আত্মপরিচয় পরিবেশন করবে ‘এলাদিদি’। নীলা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গল্প অবলম্বনে নাট্যরূপ পুনর্বিন্যাস এবং নির্দেশনা দিয়েছেন শুভেন্দু ভান্ডারি। ৪ ডিসেম্বর ঢাকার নাগরিক নাট্য সম্প্রদায় মঞ্চায়ন করবে নাটক ‘নাম-গোত্রহীন মান্টোর মেয়েরা’। নাটকটি রচনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন ঊষা গাঙ্গুলী।

একই দিন দেশ-বিদেশের ছয় গুণী নাট্যজনকে সম্মাননা দেয়া হবে। তারা হলেন- ভারতের নাট্য গবেষক ও নাট্যকার আশীষ গোস্বামী, বাংলাদেশের বিশিষ্ট নাট্যকার ও সংগঠক রবিউল আলম, নাট্যকার-নিদের্শক ও সংগঠক মলয় ভৌমিক, নাট্যকার ও সংগঠক সাইফুল আলম চৌধুরী, সংগঠক সৈয়দ দুলাল, অভিনেতা ও সংগঠক আকবর রেজা। ৫ ডিসেম্বর নরওয়ের দ্য সামি ন্যাশনাল থিয়েটার পরিবেশন করবে ‘ইনান্না’। উৎসব প্রসঙ্গে নান্দীমুখের দলপ্রধান অভিজিৎ সেনগুপ্ত রবিবার জনকণ্ঠকে বলেন, নান্দীমুখ তাদের ২৫ বছর উদ্যাপন উপলক্ষে বছরব্যাপী অনুষ্ঠানমালা সাজিয়েছে।

এরই মধ্যে ‘নান্দীমুখ দক্ষিণ এশিয়া নাট্যোৎসব’, ‘নান্দীমুখ নাট্যত্রয়ী’ ও ‘নান্দীমুখ রঙ্গমেলা’ শিরোনামের ৩টি নাট্যোৎসব এই বছরে সফলভাবে আয়োজন করেছে। বছরব্যাপী আয়োজনের অংশ হিসেবে এবার আমরা ‘নান্দীমুখ আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসবের আয়োজন করছি। আশা করছি আমাদের এই আয়োজনটি সফল হবে। এ জন্য সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতা চাই।