১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজধানীতে গ্রিল কেটে ঢুকে তিন যুবতীকে ছুরিকাঘাত

  • শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর শাহজাহানপুর রেল কলোনিতে দুই বছরের শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। একই থানা এলাকার একটি বাসার রান্নাঘরের গ্রিল কেটে বাসায় ঢুকে তিন বোনকে ছুরিকাঘাত করেছে দুর্বৃত্তরা। চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় বনানীতে একটি দোকানে হামলা চালিয়ে এক যুবককে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় ওই এলাকার ক্ষুব্ধ জনতা ধাওয়া করে এক হামলাকারীকে পুলিশে সোপর্দ করেছে। এদিকে বাংলামটরে একটি পুলিশ ভ্যানকে ধাক্কা দিয়েছে যাত্রীবাহী একটি বাস। এতে পুলিশ ভ্যানটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। পরে পুলিশ বাস ও চালককে আটক করেছে। এছাড়া শাহবাগে বাসের ভেতরে যাত্রীবেশী অজ্ঞানপার্টি সদস্যরা এক ওষুধ ব্যবসায়ীকে অচেতন করে সর্বস্ব লুট করে নিয়ে গেছে। সোমবার পুলিশ ও মেডিক্যাল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রাজধানীর শাহজাহানপুর রেলওয়ে কলোনিতে সাব্বির হোসেন নামে দুই বছরের এক শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। সোমবার সকাল ১১টার দিকে পুলিশ খবর পেয়ে ওই কলোনির তৃতীয় তলার বাথরুম থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায়। নিহতের বাবার নাম কবির হোসেন। মায়ের নাম পলি আক্তার। শাহজাহানপুর থানার উপ-পরিদর্শক বেলায়েত হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, কবির হোসেনের দুই স্ত্রী। তারা ওই কলোনির একটি ভবনের তৃতীয় তলার ভাড়াটিয়া। দুই স্ত্রীকে নিয়ে সেখানে থাকতেন কবির হোসেন। ছোট স্ত্রী পলির ছেলে সাব্বির হোসেন। এসআই বেলায়েত হোসেন আরও জানান, সকাল ১১টায় খবর পেয়ে ওই বাসার বাথরুম থেকে ওই শিশু লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। কবিরের বড় স্ত্রীর দাবি সাব্বির বাথরুমের বালতিতে পড়ে মারা গেছে। আর নিহতের মা কবিরের ছোট স্ত্রী পলি আক্তারের দাবি, তার শিশু পুত্রকে মেরে বালতিতে রাখা হয়েছে। শাহজাহানপুর থানার উপ-পরিদর্শক বেলায়েত হোসেন জানান, শিশু সাব্বিরের মৃত্যু ঘটনা রহস্যজনক। তদন্ত চলছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে আসল ঘটনা জানা যাবে।

তিন বোনকে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা ॥ রাজধানীর উত্তর শাজাহানপুর সাততলা ভবনের দোতলায় একটি ফ্ল্যাটের রান্নাঘরের গ্রিল কেটে বাসায় ঢুকে তিন বোনকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। পরে আহতদের উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নেয়া হয়। আহতরা হচ্ছে, নাহিদা আক্তার (৩০) ও তার বোন পলি আক্তার (২৬) ও রোজি আক্তার (২৪)। ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক মোজাম্মেল হক জানান, পলি আক্তারের অবস্থা গুরুতর। তাই তাকে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। আর তার দুই বোন নাহিদ আক্তার ও রোজি আক্তারকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেয়া হয়েছে। আহত পলি আক্তার জানান, ভোরের দিকে বাসার রান্না ঘরের গ্রিল কেটে ৩-৪ জন দুর্বৃত্ত চুরি করার জন্য ঢোকে। এ সময় তিনি বিষয়টি বুঝতে পেরে রান্না ঘরের দিকে এগিয়ে আসেন। এ সময় দুর্বৃত্তরা তাকে পেছন দিক থেকে তার মাথায় বাড়ি দেয়। পরে তিনি চিৎকার করলে তার দুই বোন নাহিদ আক্তার ও রোজি আক্তার এগিয়ে এলে তাদেরও ছুরি মারে চোরেরা। পরে তাদের ভাই শাহেদ আলী আহতদের উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে আসেন। আহতদের ভাই শাহেদ আলী জানান, ভোরে রান্নাঘরের গ্রিল কেটে ৩-৪ জন লোক বাসায় ঢোকে। তাদের দেখে চিৎকার দিলে তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করতে আমার দিকে এগিয়ে আসে। এ সময় চিৎকার শুনে আমার তিন বোন এগিয়ে আসে। পরে দুর্বৃত্তরা তাদের ছুরিকাঘাত পালিয়ে যায়। এক প্রশ্নে জবাবে তিনি জানান, কারও সঙ্গে ব্যক্তিগত বিরোধ নেই তাদের। দুর্বৃত্তরা ডাকাতি করতেই বাসায় ঢুকেছিল বলে তার ধারণা।

বনানীতে চাঁদার দাবিতে হামলা ॥ প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার বিকেলে বনানীর ২ নম্বর সড়কের ন্যাম ভবনের সামনে মীম ডিপার্টমেন্টাল শপ ও বনানী কনফেকশনারি নামে দুটো দোকানে হঠাৎ একদল সন্ত্রাসী লাঠিসোঠা ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এ সময় দোকানের মালিক সুফিয়া আক্তারের ছোট ভাই জজ মিয়া এগিয়ে এলে তাকে হত্যার হুমকি দেয়। পরে হামলাকারীরা তার মাথায় আঘাত করতে থাকে। তার চিৎকার শুনে পাশের বাসা থেকে ছুটে আসেন জজের দুই বোন সুফিয়া আক্তার ও লিলি। এ সময় তাদের ওপরও হামলা চালানোর চেষ্টা চালায় তারা। এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতা ধাওয়া করে শামীম নামের এক চাঁদাবাজকে হাতেনাতে ধরে ফেলে। এরপর তাকে টহল পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। স্থানীয়রা জানান, হামলাকারীরা তিতুমির কলেজের একটি ছাত্র সংগঠনের বলে পরিচয় দেয়। তখনই তাদের ধাওয়া করা হয়।

বাসের ধাক্কায় পুলিশ ভ্যান ক্ষতিগ্রস্ত ॥ রাজধানীর বাংলামটরে শাহবাগ থানার একটি পুলিশ ভ্যানকে ধাক্কা দিয়েছে ৬ নং রুটের একটি যাত্রীবাহী বাস। এতে পুলিশ ভ্যানটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। পুলিশ বাস ও তার চালককে আটক করেছে।

অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে ওষুধ ব্যবসায়ী ॥ অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে ইব্রাহিম খলিল নামে এক ওষুধ ব্যবসায়ী ২ লাখ টাকা খুইয়েছেন। সোমবার বিকেলে তাকে শাহবাগ চৌরাস্তায় একটি বাসের সিট থেকে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।