১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঢাকায় প্রথম তাইওয়ান বস্ত্রমেলা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে চান তাইওয়ানের ব্যবসায়ীরা। এজন্য তারা এদেশে তাদের ফেব্রিক্স, এক্সেসরিজ আর প্রযুক্তি নিয়ে তাইওয়ান টেক্সটাইল মেলার আয়োজন করেছে। মেলায় আগত ব্যবসায়ী ও তাদের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলাপ করে এই মনোভাবের কথা জানা যায়।

সোমবার রাজধানীর গুলশানের সিক্স সিজন হোটেলে দুই দিনব্যাপী ‘১ম তাইওয়ান টেক্সটাইল মেলা দক্ষিণ এশিয়া-২০১৫’র উদ্বোধন করেন রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) ভাইস চেয়ারম্যান শুভাশীষ বসু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন তাইওয়ানের এক্সটার্নাল ট্রেড ডেভলপমেন্ট কাউন্সিলের (টিএআইটিআরএ) ঢাকা অফিসের পরিচালক ড্যানি ইয়ং।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইপিবি ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, তৈরি পোশাকের বিদেশী ক্রেতার পাশাপাশি এখন বিদেশী বিনিয়োগকেও সুযোগ দিচ্ছে বাংলাদেশ। এখানকার তৈরি পোশাকের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে পারে থাইল্যান্ড। এজন্য তাদের আছে উদ্বৃত্ত ফান্ড আর পর্যাপ্ত জ্ঞান।

তিনি বলেন, এখানকার সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগ (এফডিআই) নীতি খুবই সহায়ক বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, থাইল্যান্ড চাইলে এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে এখানে বিনিয়োগ করে দ্বিগুণ বা তিনগুণ লাভ করতে পারবেন। শুভাশীষ বসু বলেন, এখানকার রফতানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলগুলোতে ইতোমধ্যে প্রায় ২২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিনিয়োগ হয়েছে। বর্তমান সরকার আরও ১০০টি রফতানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল করার পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করে থাইল্যান্ডের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের বিনিয়োগ করার আহ্বান জানান ইপিবি ভাইস চেয়ারম্যান। এ সময় তিনি তৈরি পোশাক খাতের পাশাপাশি চামড়া, গার্মেন্ট এক্সেসরিজ ও ফেব্রিক্স খাতে বিনিয়োগের সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন।

মাগুরায় ফার্নিচার মেলা শুরু

নিজস্ব সংবাদদাতা, মাগুরা ॥ মাগুরায় পক্ষকালব্যাপী (১৫ দিন) ফার্নিচার মেলা শুরু হয়েছে। সোমবার থেকে মাগুরা শহরের নতুন বাজার ও বটতলা এলাকায় এ মেলা শুরু হয়েছে। কাত্যায়নী পূজা উপলক্ষে এ মেলার আয়োজন করা হয়ে থাকে। কাত্যায়নী পূজা শেষ হলে এ মেলা শুরু হয়। মেলায় কোটি টাকার ফার্নিচার বিক্রি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মেলায় ঝিনাইদহ, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, যশোর, মাগুরা, সাতক্ষীরা, কুষ্টিয়াসহ বিভিন্ন জেলা থেকে ব্যবসায়ীরা আসেন ফার্নিচার নিয়ে। খাট, পালংক, ডেসিং টেবিল, ওয়ারড্রপ, সোকেসসহ নানা ধরনের ফার্নিচার এসেছে বিক্রির জন্য। দাম ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে। খাট ও পালংখাট ৫ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকা, ড্রেসিং টেবিল ৪ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা, সোকেস ৪ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা, ওয়ারড্রপ ৮ হাজার থেকে ২০ টাকার মধ্যে দাম রয়েছে।

বিক্রেতারা জানান, মেলায় আগত ফার্নিচার গুণগত মান ভাল ও দাম কম। কাঠও খারাপ না। বাজার থেকে দাম অনেক কম। সব শ্রেণীর ক্রেতা এখান থেকে ফার্নিচার ক্রয় করেন। বিশেষ করে স্বল্প আয়ের মানুষ বেশি ক্রয় করেন। মেলায় কোটি টাকার ফার্নিচার বিক্রি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।